ঢাকা ০৯:০৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম ঢাকা’র সভাপতি সাজ্জাদ সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ নির্বাচিত ভর্তুকি দিয়ে গ্যাস বিদ্যুৎ ও দ্রব্যমূল্য কমানোর দাবিতে সমাবেশ ও মিছিল “সফল সংগঠক হিসেবে ‘সাকসেস এ্যাওয়ার্ড-২০২৪’ পাচ্ছেন ব্যারিস্টার সাইফুর রহমান “ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের নব নির্বাচিত সভাপতি মনিরুল ইসলাম ,এবং সাধারণ সম্পাদক নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল সাংবাদিক নাসির উদ্দীন বাবুলের ইন্তেকাল। দুমকিতে আন্তঃ উপজেলা ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। মুন্সীগঞ্জ পৌর নির্বাচনে আমিরুল ইসলাম এর নির্দেশে জগ মার্কার গনসংযোগ রাজধানীর বেইলি রোডে আগুন লাগার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেন। “গুলশানে বিশ্বমানের জুয়েলারী শোরুম চালু করছে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড” ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চিটাগাং রোড সিমরাইল ট্রাক ও ইজিবাইকের সংঘর্ষে এক বৃদ্ধার মৃত্যু ও আহত ২

স্যান্ডউইচ নাকি প্যাটিস

স্যান্ডউইচ আর প্যাটিস—সব বয়সী মানুষই কমবেশি এগুলো পছন্দ করে। স্যান্ডউইচ ও প্যাটিসের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানালেন ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালের পুষ্টি বিভাগের প্রধান তামান্না চৌধুরী।

স্যান্ডউইচ

■ স্যান্ডউইচ অনেকগুলো উপকরণ দিয়ে তৈরি করা যায়। প্রতিটি উপকরণেই আলাদা আলাদা পুষ্টিগুণ রয়েছে।

■ সবজির স্যান্ডউইচ সবচেয়ে বেশি পুষ্টিসম্পন্ন।

■ বাইরের স্যান্ডউইচ খাওয়ার চেয়ে নিজে তৈরি করে খাওয়াই ভালো।

■ এক বেলার খাবার হিসেবে খেলে স্যান্ডউইচ খেতে পারেন।

■ স্যান্ডউইচে তুলনামূলক কম চর্বি থাকে। তাই এটি স্বাস্থ্যকর।

■ বাসায় বানানো স্যান্ডউইচ প্রতিদিন খেতে পারেন। আর বাজারে তৈরি হলে সপ্তাহে এক-দুইবারের বেশি খাওয়া উচিত না।

■ স্যান্ডউইচ বেশি সবজি দিয়ে তৈরি করাটা খেলে পুষ্টিচাহিদা বেশি পূরণ হবে।

■ মেয়োনিজ দিয়ে স্যান্ডউইচ না খাওয়াই ভালো। এতে শরীরের ক্ষতি হয়।

প্যাটিস

■ প্যাটিস তৈরিতে বেশি তেল ব্যবহার করা হয়। তাই এটি তুলনামূলক শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

■ এতে শর্করা থাকে। তাই এটা শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।

■ ক্যালরি ও চর্বির পরিমাণ বেশি।

■ প্যাটিস বাসায় বানানো খুবই কষ্টকর। তারপরও বাজারের চেয়ে বাসায় বানিয়ে খাওয়া প্যাটিস পুষ্টিকর।

■ বেলা হিসেবে না খেয়ে নাশতার সময় প্যাটিস খাওয়াই ভালো।

■ বাসায় বানানো সম্ভব হলে সপ্তাহে একটি বা দুটি প্যাটিস খেতে পারেন। আর বাজারে তৈরি হলে মাসে এক বা দুইবারের বেশি খাওয়া উচিত না।

■ প্যাটিসের সঙ্গে ড্রেসিংস বা সস ব্যবহার করবেন না।

Tag :

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম ঢাকা’র সভাপতি সাজ্জাদ সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ নির্বাচিত

স্যান্ডউইচ নাকি প্যাটিস

আপডেট টাইম ০৫:৫০:০৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৬ অক্টোবর ২০১৮

স্যান্ডউইচ আর প্যাটিস—সব বয়সী মানুষই কমবেশি এগুলো পছন্দ করে। স্যান্ডউইচ ও প্যাটিসের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানালেন ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালের পুষ্টি বিভাগের প্রধান তামান্না চৌধুরী।

স্যান্ডউইচ

■ স্যান্ডউইচ অনেকগুলো উপকরণ দিয়ে তৈরি করা যায়। প্রতিটি উপকরণেই আলাদা আলাদা পুষ্টিগুণ রয়েছে।

■ সবজির স্যান্ডউইচ সবচেয়ে বেশি পুষ্টিসম্পন্ন।

■ বাইরের স্যান্ডউইচ খাওয়ার চেয়ে নিজে তৈরি করে খাওয়াই ভালো।

■ এক বেলার খাবার হিসেবে খেলে স্যান্ডউইচ খেতে পারেন।

■ স্যান্ডউইচে তুলনামূলক কম চর্বি থাকে। তাই এটি স্বাস্থ্যকর।

■ বাসায় বানানো স্যান্ডউইচ প্রতিদিন খেতে পারেন। আর বাজারে তৈরি হলে সপ্তাহে এক-দুইবারের বেশি খাওয়া উচিত না।

■ স্যান্ডউইচ বেশি সবজি দিয়ে তৈরি করাটা খেলে পুষ্টিচাহিদা বেশি পূরণ হবে।

■ মেয়োনিজ দিয়ে স্যান্ডউইচ না খাওয়াই ভালো। এতে শরীরের ক্ষতি হয়।

প্যাটিস

■ প্যাটিস তৈরিতে বেশি তেল ব্যবহার করা হয়। তাই এটি তুলনামূলক শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

■ এতে শর্করা থাকে। তাই এটা শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।

■ ক্যালরি ও চর্বির পরিমাণ বেশি।

■ প্যাটিস বাসায় বানানো খুবই কষ্টকর। তারপরও বাজারের চেয়ে বাসায় বানিয়ে খাওয়া প্যাটিস পুষ্টিকর।

■ বেলা হিসেবে না খেয়ে নাশতার সময় প্যাটিস খাওয়াই ভালো।

■ বাসায় বানানো সম্ভব হলে সপ্তাহে একটি বা দুটি প্যাটিস খেতে পারেন। আর বাজারে তৈরি হলে মাসে এক বা দুইবারের বেশি খাওয়া উচিত না।

■ প্যাটিসের সঙ্গে ড্রেসিংস বা সস ব্যবহার করবেন না।