ঢাকা ০৫:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
গজারিয়ায় বাউশিয়া ইউনিয়নে মাসিক উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত টাঙ্গাইল বন বিভাগের বিকল্প জীবিকা উন্নয়ন সম্পর্কিত প্রশিক্ষণ উদ্বোধন সিন্দুকছড়ি জোনের মাসিক মত বিনিময় সভা “বসুন্ধরা সিমেন্টের বার্ষিক বিক্রয় সম্মেলন-২০২৪ অনুষ্ঠিত “ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সাইনবোর্ডে আগুন জ্বালিয়ে অটোরিকশা চালকদের বিক্ষোভ “দেশীয় সফটওয়্যারে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের প্রত্যয়ে শপথ নিল বেসিসের নতুন কার্যনির্বাহী পরিষদ” রাজশাহী গোদাগাড়ী অঞ্চলে পুকুর সংস্কারের নামে প্রশাসনকে যেভাবে বোকা বানাচ্ছে অবৈধ পুকুর ব্যবসায়ীরা চট্টগ্রামে দ্বিতীয় ধাপে হাটহাজারী ও রাঙ্গুনিয়ায়-ফটিকছড়ি উপজেলায় ভোট আজ “অ্যালায়েন্স ফাইন্যান্স ও কনকর্ড রিয়েল এস্টেটের সাথে চুক্তি সই” গজারিয়ায় সাংবাদিকের উপর হামলা, থানার সামনে সাংবাদিকদের অবস্থান কর্মসূচি

মে দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবে বিড়ি শ্রমিকদের র‌্যালি ও সমাবেশ

স্টাফ রিপোর্টার :

মহান মে দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবে র‌্যালি ও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশন। বুধবার (১ মে) সকাল ১০ টায় বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমিন উদ্দিন বিএসসি ও সাধারণ সম্পাদক হারিক হোসেনের নেতৃত্বে একটি র‌্যালি বের হয়। র‌্যালি শেষে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় বিড়ি শিল্পে নিয়োজিত শ্রমিকদের মজুরী বৃদ্ধি, বঙ্গবন্ধুর আমলে বিড়ি শিল্পে কোন শুল্ক ছিল না, তাই আগামী বাজেটে বিড়ির শুল্ক প্রত্যাহার, অগ্রিম আয়কর প্রত্যাহার এবং নিম্নস্তরের প্রতি প্যাকেট সিগারেটের মূল্য ৪৫ টাকা থেকে ৬৫ টাকা বৃদ্ধির দাবি জানান শ্রমিকরা।

বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হারিক হোসেনের সঞ্চালনায় সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমিন উদ্দিন বিএসসি। এসময় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সহ-সভাপতি মো. নাজিম উদ্দিন, মো. আনোয়ার হোসেন, সহকারী সম্পাদক আবুল হাসনাত লাবলু, সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম ইসলাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক লুৎফর রহমান প্রমূখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসের ইতিহাস আত্মত্যাগ ও সংগ্রামের ইতিহাস। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধসহ সকল আন্দোলন-সংগ্রামে শ্রমিকেরা অংশগ্রহণ করেছে। শ্রমিকেরাই এদেশের প্রাণশক্তি, শ্রমিকদের ঘামে গড়ে ওঠে অর্থনৈতিক ভিত। কিন্তু দেখা যায়, সকল সংকটে শ্রমিকেরাই থাকে সবচেয়ে বেশি অবহেলিত ও বঞ্চিত, যা অত্যন্ত দু:খজনক। অসহায় খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলনকে বেগবাদ করতে মহান মে দিবসের চেতনায় সকলকে উদ্বুদ্ধ থাকতে হবে।’

বিড়ি শ্রমিকরা আরো বলেন, বিড়ি শিল্প দেশের প্রাচীন শ্রমঘন একটি শিল্প। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরেই স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এই শিল্পের দ্বার উন্মোচিত হয়েছিল। তিনি এই শ্রমঘন শিল্পটি শুল্ক মুক্ত ঘোষণা করেছিলেন। দেশের ১৮ লক্ষ শ্রমিক বিড়ি কারখানায় কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। সুতরাং বিড়ি শিল্পে নিয়োজিত শ্রমিকদের মজুরী বৃদ্ধি দাবি করছি। একইসাথে শ্রমজীবি মানুষের কর্ম রক্ষার্র্থে বঙ্গবন্ধুর সময়ের মত জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলেও বিড়ি শিল্পের উপর থেকে শুল্ক এবং অগ্রিম আয়কর প্রত্যাহার করার আহবান জানাচ্ছি। দেশের অর্থনীতিতে বিড়ি শিল্পের মালিকদের অবদান অপরিসীম। অথচ বিদেশী বহুজাতিক কোম্পানী ও দেশের কিছু এনজিও এই শিল্পকে ধ্বংস করতে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। বর্তমানে দেশের টোব্যাকো মার্কেটের ৭৫ শতাংশ থেকে ৮০ শতাংশ দখল করে আছে নিম্নস্তরের সিগারেট। এসব নিম্নস্তরের সিগারেট ব্রিটিশ-আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানির। সুতরাং দেশীয় শ্রমঘন বিড়ি শিল্পের অস্তিত্ব রক্ষার্থে এই দেশে বিদেশী বহুজাতিক কোম্পানীর নিম্নস্তরের ১০ শলাকা প্রতি প্যাকেট সিগারেটের মূল্য ৪৫ টাকা থেকে ৬৫ টাকা করার অনুরোধ করছি।

Bidi workers demand withdrawal of tax and increase of wages

Bidi Workers have demanded an increase in their wages and withdrawal of tax on bidi industry. They made the demands at a rally organised by Bangladesh Bidi Sramik Federation on the occasion of `May Day’ in front of the National Press Club on Wednesday.

During Bangabandhu’s era, there was no tax on bidi industry, so the bidi workers demanded withdrawal of bidi duty, withdrawal of advance income tax, stoppage of foreign companies’ low level cigarettes and increase in wages of workers engaged in bidi industry.

Presidents of Bangladesh Bidi Sramik Federation Amin Uddin BSc, Vice President Nazim Uddin, Lutfor Rahman, Joint Secretary Abdul Gofur, Abul Hasnat Lavlu, Anower Hossain, organizing secretary Shamim Islam, among others, spoke in the function while the General Secretary Harik Hossain moderated it.

Though the history of struggling laborers is long to protect the rights of workers, the laborers are fighting till to establish their wages and others rights, said Bidi Sramik Federation leaders.

The labor are becoming deprived in any crisis that is very sad, to honor the May Day, they demand to give priority for Bidi labor protection Act.

Bidi Sramik Federation leaders further said that millions of workers of the country make a living by working in the ancient labor intensive bidi industry. But the country’s ancient labor-intensive industry is being destroyed by the conspiracy of foreign multinational companies.

The Cigarette compnaies are burning the lungs of people of this country and taking huge money abroad, in addition, some unscrupulous bureaucrats are conspiring to impose exorbitant taxes on bidis to give foreign cigarette companies a monopoly, Bidi workers leaders said.

Tag :

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

গজারিয়ায় বাউশিয়া ইউনিয়নে মাসিক উন্নয়ন সভা অনুষ্ঠিত

মে দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবে বিড়ি শ্রমিকদের র‌্যালি ও সমাবেশ

আপডেট টাইম ০১:০৮:৫৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ মে ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার :

মহান মে দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবে র‌্যালি ও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশন। বুধবার (১ মে) সকাল ১০ টায় বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমিন উদ্দিন বিএসসি ও সাধারণ সম্পাদক হারিক হোসেনের নেতৃত্বে একটি র‌্যালি বের হয়। র‌্যালি শেষে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় বিড়ি শিল্পে নিয়োজিত শ্রমিকদের মজুরী বৃদ্ধি, বঙ্গবন্ধুর আমলে বিড়ি শিল্পে কোন শুল্ক ছিল না, তাই আগামী বাজেটে বিড়ির শুল্ক প্রত্যাহার, অগ্রিম আয়কর প্রত্যাহার এবং নিম্নস্তরের প্রতি প্যাকেট সিগারেটের মূল্য ৪৫ টাকা থেকে ৬৫ টাকা বৃদ্ধির দাবি জানান শ্রমিকরা।

বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হারিক হোসেনের সঞ্চালনায় সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমিন উদ্দিন বিএসসি। এসময় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সহ-সভাপতি মো. নাজিম উদ্দিন, মো. আনোয়ার হোসেন, সহকারী সম্পাদক আবুল হাসনাত লাবলু, সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম ইসলাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক লুৎফর রহমান প্রমূখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসের ইতিহাস আত্মত্যাগ ও সংগ্রামের ইতিহাস। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধসহ সকল আন্দোলন-সংগ্রামে শ্রমিকেরা অংশগ্রহণ করেছে। শ্রমিকেরাই এদেশের প্রাণশক্তি, শ্রমিকদের ঘামে গড়ে ওঠে অর্থনৈতিক ভিত। কিন্তু দেখা যায়, সকল সংকটে শ্রমিকেরাই থাকে সবচেয়ে বেশি অবহেলিত ও বঞ্চিত, যা অত্যন্ত দু:খজনক। অসহায় খেটে খাওয়া শ্রমজীবি মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলনকে বেগবাদ করতে মহান মে দিবসের চেতনায় সকলকে উদ্বুদ্ধ থাকতে হবে।’

বিড়ি শ্রমিকরা আরো বলেন, বিড়ি শিল্প দেশের প্রাচীন শ্রমঘন একটি শিল্প। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরেই স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এই শিল্পের দ্বার উন্মোচিত হয়েছিল। তিনি এই শ্রমঘন শিল্পটি শুল্ক মুক্ত ঘোষণা করেছিলেন। দেশের ১৮ লক্ষ শ্রমিক বিড়ি কারখানায় কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। সুতরাং বিড়ি শিল্পে নিয়োজিত শ্রমিকদের মজুরী বৃদ্ধি দাবি করছি। একইসাথে শ্রমজীবি মানুষের কর্ম রক্ষার্র্থে বঙ্গবন্ধুর সময়ের মত জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলেও বিড়ি শিল্পের উপর থেকে শুল্ক এবং অগ্রিম আয়কর প্রত্যাহার করার আহবান জানাচ্ছি। দেশের অর্থনীতিতে বিড়ি শিল্পের মালিকদের অবদান অপরিসীম। অথচ বিদেশী বহুজাতিক কোম্পানী ও দেশের কিছু এনজিও এই শিল্পকে ধ্বংস করতে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। বর্তমানে দেশের টোব্যাকো মার্কেটের ৭৫ শতাংশ থেকে ৮০ শতাংশ দখল করে আছে নিম্নস্তরের সিগারেট। এসব নিম্নস্তরের সিগারেট ব্রিটিশ-আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানির। সুতরাং দেশীয় শ্রমঘন বিড়ি শিল্পের অস্তিত্ব রক্ষার্থে এই দেশে বিদেশী বহুজাতিক কোম্পানীর নিম্নস্তরের ১০ শলাকা প্রতি প্যাকেট সিগারেটের মূল্য ৪৫ টাকা থেকে ৬৫ টাকা করার অনুরোধ করছি।

Bidi workers demand withdrawal of tax and increase of wages

Bidi Workers have demanded an increase in their wages and withdrawal of tax on bidi industry. They made the demands at a rally organised by Bangladesh Bidi Sramik Federation on the occasion of `May Day’ in front of the National Press Club on Wednesday.

During Bangabandhu’s era, there was no tax on bidi industry, so the bidi workers demanded withdrawal of bidi duty, withdrawal of advance income tax, stoppage of foreign companies’ low level cigarettes and increase in wages of workers engaged in bidi industry.

Presidents of Bangladesh Bidi Sramik Federation Amin Uddin BSc, Vice President Nazim Uddin, Lutfor Rahman, Joint Secretary Abdul Gofur, Abul Hasnat Lavlu, Anower Hossain, organizing secretary Shamim Islam, among others, spoke in the function while the General Secretary Harik Hossain moderated it.

Though the history of struggling laborers is long to protect the rights of workers, the laborers are fighting till to establish their wages and others rights, said Bidi Sramik Federation leaders.

The labor are becoming deprived in any crisis that is very sad, to honor the May Day, they demand to give priority for Bidi labor protection Act.

Bidi Sramik Federation leaders further said that millions of workers of the country make a living by working in the ancient labor intensive bidi industry. But the country’s ancient labor-intensive industry is being destroyed by the conspiracy of foreign multinational companies.

The Cigarette compnaies are burning the lungs of people of this country and taking huge money abroad, in addition, some unscrupulous bureaucrats are conspiring to impose exorbitant taxes on bidis to give foreign cigarette companies a monopoly, Bidi workers leaders said.