ঢাকা ১০:২৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
দিঘলিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আনারস মার্কার প্রচার প্রচারণায় জনতার ঢল । –২০১৮ সালে ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা এলাকায় চাঞ্চল্যকর ৮ম শ্রেণী পড়ুয়া স্কুল ছাত্র অন্তর হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি আজিজুল’কে দীর্ঘ ০৬ বছর পর ফরিদপুর জেলার ভাংগা এলাকা হতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০। বাকেরগঞ্জে জাহানারা মাহবুব মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় বিভিন্ন মহলের শুভেচ্ছা।। নৌকার মাঝি নায়েব আলী জোয়ার্দ্দার বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় বিজয়ী। চন্দনাইশ উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী জসিম উদ্দীনের গণসংযোগ চন্দনাইশে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করায় সড়ক নির্মাণ কাজ বন্ধ করেছেন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান বরিশাল স্টেডিয়ামে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের আসর বসবে। ৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷৷ জাহিদ ফারুক শামীম বাকেরগঞ্জে পুলিশের উপর হামলার মামলায় দুই নারী গ্রেপ্তার টাঙ্গাইলে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী কলেজ ছাত্র নিহত টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বজ্রপাতে দুই ধানকাটা শ্রমিক নিহত

খুলনাকে হারিয়ে জয়ে ফিরল মাশরাফির রংপুর

স্পোর্টস ডেস্ক :   লক্ষ্য ১৭০ রানের। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে গতকাল রবিবার খুলনা টাইটান্সকে ৮ রানে হারিয়ে দিয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল দারুণ জয় তুলে নিল বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। রংপুরের ১৬৯ রানের জবাবে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৬১ রানে থামে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের খুলনা টাইটান্স। ব্যাট হাতে রুশো-বোপারার দাপটের পর বল হাতে রংপুরকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন মাশরাফি-শফিউল-ফরহাদ রেজারা।

১৭০ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে খুলনা টাইটান্সকে দারুণ সূচনা এনে দেন আইরিশ তারকা পল স্টার্লিং এবং জুনায়েদ সিদ্দিকী। দুজনে মিলে উদ্বোধনী জুটিতে এনে দেন ৯০ রান। ৩০ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ৩৩ করা জুনায়েদকে ফিরিয়ে দিয়ে জুটি ভাঙেন হাওয়েল। ৩৮ বলে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন স্টার্লিং। খুলনার দূর্গে দ্বিতীয় আঘাত হানেন শফিউল। এই পেসারের বলে বোল্ড হয়ে যান নাজমুল হাসান শান্ত (১)।

৪৬ বলে ৮ চার ১ ছক্কায় ৬১ রান করা বিধ্বংসী রুশোকে থামান রংপুর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। ম্যাশের বলে বোল্ড হয়ে যান রুশো। খুলনা টাইটান্সের আশার প্রদীপ হয়ে ছিলেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। শেষ পর্যন্ত ১৭ বলে ২৪ রান করে ফরহাদ রেজার বলে মাশরাফির দারুণ এক ক্যাচে পরিণত হন তিনি। শফিউলের দ্বিতীঢ শিকার হন আরিফুল হক (১২)। শেষ ওভারে জয়ের জন্য কুমিল্লার দরকার ছিল ২০ রান।

এর আগে শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে রাইলি রুশোর অপরাজিত হাফ সেঞ্চুরি এবং রবি বোপারার ইনিংসে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেটে ১৬৯ রান তুলে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। দলীয় ১৮ রানে মেহেদী মারুফের (৫) উইকেট হারায় রংপুর। এরপর অ্যালেক্স হেলসকে নিয়ে জুটি গড়ার চেষ্টা করেন রুশো। তবে জহির খানের বলে এলবিডাব্লিউ হয়ে যান ৯ বলে ১৫ রান করা হেলস। মোহাম্ম মিঠুনও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ১৯ রানে শিকার হন ব্র্যাথওয়েটের।

এরপরেই ১০৪ রানের অবিচ্ছিন্ন দারুণ এক জুটি গড়েন রুশো এবং বোপারা। রুশোর ৫২ বলে অপরাজিত ৭৬ রানের ইনিংসে ছিল ৮টি চার এবং ২টি ছক্কা। অন্যদিকে রবি বোপারা ২৯ বলে ৩ চার এক ছক্কায় করেন অপরাজিত ৪০ রান। এই দুজনের ব্যাটেই বড় সংগ্রহ পায় রংপুর রাইডার্স। খুলনার হয়ে একটি করে উইকেট নিয়েছেন আলী খান, জহির খান এবং ব্র্যাথওয়েট।

Tag :

জনপ্রিয় সংবাদ

দিঘলিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আনারস মার্কার প্রচার প্রচারণায় জনতার ঢল ।

খুলনাকে হারিয়ে জয়ে ফিরল মাশরাফির রংপুর

আপডেট টাইম ০৪:৩১:৫৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৭ জানুয়ারী ২০১৯

স্পোর্টস ডেস্ক :   লক্ষ্য ১৭০ রানের। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে গতকাল রবিবার খুলনা টাইটান্সকে ৮ রানে হারিয়ে দিয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল দারুণ জয় তুলে নিল বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। রংপুরের ১৬৯ রানের জবাবে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৬১ রানে থামে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের খুলনা টাইটান্স। ব্যাট হাতে রুশো-বোপারার দাপটের পর বল হাতে রংপুরকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন মাশরাফি-শফিউল-ফরহাদ রেজারা।

১৭০ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে খুলনা টাইটান্সকে দারুণ সূচনা এনে দেন আইরিশ তারকা পল স্টার্লিং এবং জুনায়েদ সিদ্দিকী। দুজনে মিলে উদ্বোধনী জুটিতে এনে দেন ৯০ রান। ৩০ বলে ৩ চার ১ ছক্কায় ৩৩ করা জুনায়েদকে ফিরিয়ে দিয়ে জুটি ভাঙেন হাওয়েল। ৩৮ বলে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন স্টার্লিং। খুলনার দূর্গে দ্বিতীয় আঘাত হানেন শফিউল। এই পেসারের বলে বোল্ড হয়ে যান নাজমুল হাসান শান্ত (১)।

৪৬ বলে ৮ চার ১ ছক্কায় ৬১ রান করা বিধ্বংসী রুশোকে থামান রংপুর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। ম্যাশের বলে বোল্ড হয়ে যান রুশো। খুলনা টাইটান্সের আশার প্রদীপ হয়ে ছিলেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। শেষ পর্যন্ত ১৭ বলে ২৪ রান করে ফরহাদ রেজার বলে মাশরাফির দারুণ এক ক্যাচে পরিণত হন তিনি। শফিউলের দ্বিতীঢ শিকার হন আরিফুল হক (১২)। শেষ ওভারে জয়ের জন্য কুমিল্লার দরকার ছিল ২০ রান।

এর আগে শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে রাইলি রুশোর অপরাজিত হাফ সেঞ্চুরি এবং রবি বোপারার ইনিংসে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেটে ১৬৯ রান তুলে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। দলীয় ১৮ রানে মেহেদী মারুফের (৫) উইকেট হারায় রংপুর। এরপর অ্যালেক্স হেলসকে নিয়ে জুটি গড়ার চেষ্টা করেন রুশো। তবে জহির খানের বলে এলবিডাব্লিউ হয়ে যান ৯ বলে ১৫ রান করা হেলস। মোহাম্ম মিঠুনও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ১৯ রানে শিকার হন ব্র্যাথওয়েটের।

এরপরেই ১০৪ রানের অবিচ্ছিন্ন দারুণ এক জুটি গড়েন রুশো এবং বোপারা। রুশোর ৫২ বলে অপরাজিত ৭৬ রানের ইনিংসে ছিল ৮টি চার এবং ২টি ছক্কা। অন্যদিকে রবি বোপারা ২৯ বলে ৩ চার এক ছক্কায় করেন অপরাজিত ৪০ রান। এই দুজনের ব্যাটেই বড় সংগ্রহ পায় রংপুর রাইডার্স। খুলনার হয়ে একটি করে উইকেট নিয়েছেন আলী খান, জহির খান এবং ব্র্যাথওয়েট।