ঢাকা ০৫:০৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ঈদের দিন আকস্মিক হাসপাতাল পরিদর্শনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ‘২৪ ঘন্টা লক্ষ্যমাত্রার অনেক আগেই কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণে সক্ষম হবোঃ মেয়র তাপস ঈদে নিরাপত্তা হুমকি নেই: সিএমপি কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায় সিলেট সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি বিপৎসীমার উপরে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাণীশংকৈল উপজেলার মানবিক ইউএনও রকিবুল হাসান পবিত্র ঈদুল আযহার পবিত্র শুভেচ্ছা জানালেন,বাকেরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ রাজিব আহম্মেদ তালুকদার। দৈনিক মাতৃভূমির খবর পত্রিকা থেকে সাংবাদিক মোঃ শাহ আলম বহিষ্কার । অগ্রিম ঈদউল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক অনুমোদনহীন পশুর হাট বসানোয় ১৬ ব্যবসায়ীকে ঢাদসিক’র পৌনে ১ লাখ টাকা জরিমানা “মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ঢাকা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট, পোস্ট বাজেট ২০২৪-২০২৫”

শেখ রাসেলকে হারিয়ে স্বাধীনতা কাপে চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা

স্পোর্টস ডেস্ক :  শেখ রাসেলকে ২-১ গোলে হারিয়ে স্বাধীনতা কাপের শিরোপা গতকাল বুধবার হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে জিতে নিয়েছে বাংলাদেশের ঘরোয়া ফুটবলের নতুন জায়ান্ট বসুন্ধরা কিংস।

চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মতো দল সাজিয়েও ফেডারেশন কাপের শিরোপা জেতা হয়নি। হতাশা আড়াল করে স্বাধীনতা কাপে নতুন উদ্যোমে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল বসুন্ধরা কিংস। ২০১৮-১৯ মৌসুমের সবচেয়ে শক্তিশালী রক্ষণের দল শেখ রাসেলকে হারিয়ে জিতে নিল নিজেদের প্রথম শিরোপাও।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটি ছিল শক্তিশালী রক্ষণের বিপক্ষে তারকায় ঠাসা দলের আক্রমণ শক্তির পরীক্ষা। সেই লড়াইয়ে জয় হল তারকায় ভরা বসুন্ধরারই। ম্যাচে গোল হয়েছে তিনটি, যার প্রতিটি ছিল চোখ জুড়ানো!

খেলা শেষে বসুন্ধরার এক কর্মকর্তা জয়সূচক গোলদাতা মতিনের প্রশংসা করতে গিয়ে তাকে বিশ্বকাপ খেলা কলিন্দ্রেসের চেয়েও উপরে তুলে ধরলেন! কলিন্দ্রেস কোস্টারিকার হয়ে বিশ্বকাপে খেলেছেন। তার চেয়েও ভালো খেলোয়াড় বাংলাদেশের মতিন! বসুন্ধরার ওই কর্তা বলেন, ‘আরে কিসের কলিন্দ্রেস, খেলোয়াড় হলো মতিন!’ কলিন্দ্রেসের সঙ্গে এই তুলনাটা আসলে তিনি করেছেন ফাইনালের মতিনের গুরুত্ব বোঝাতেই।

শুধু জয়সূচক গোল নয়, পুরো ম্যাচেই দুর্দান্ত খেলেছেন মতিন। ওই কর্তা তাই মেতে উঠলেন মতিন বন্দনায়। ম্যাচের ১৭ মিনিটেই এগিয়ে যায় বসুন্ধরা। বুলেট গতির শটে লক্ষ্যভেদ করেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড মার্কাস ভিনিসিয়াস। অবশ্য এই লিড খুব বেশি সময় ধরে রাখতে পারেনি বসুন্ধরা। বুলেট গতির আরেক শটে শেখ রাসেলকে সমায় ফেরান নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড রাফায়েল অনব্রো।

অতিরিক্ত সময়ে খেলার শুরুতেই বদলি খেলোয়াড় মতিন মিয়া ডি-বক্সের ভেতরে জটলা থেকে শেখ রাসেলের ডিফেন্সকে বোকা বানিয়ে ডান পায়ের শটে আড়াআড়ি গোলে বসুন্ধরার জয় নিশ্চিত করেন। এরপর আর কোনো দল গোল করতে ব্যর্থ হলে ২-১ গোলের জয়ে টুর্নামেন্টে প্রথমবার চ্যাম্পিয়ন হয় বসুন্ধরা কিংস।

Tag :

জনপ্রিয় সংবাদ

ঈদের দিন আকস্মিক হাসপাতাল পরিদর্শনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শেখ রাসেলকে হারিয়ে স্বাধীনতা কাপে চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা

আপডেট টাইম ০২:১৯:৫১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮

স্পোর্টস ডেস্ক :  শেখ রাসেলকে ২-১ গোলে হারিয়ে স্বাধীনতা কাপের শিরোপা গতকাল বুধবার হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে জিতে নিয়েছে বাংলাদেশের ঘরোয়া ফুটবলের নতুন জায়ান্ট বসুন্ধরা কিংস।

চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মতো দল সাজিয়েও ফেডারেশন কাপের শিরোপা জেতা হয়নি। হতাশা আড়াল করে স্বাধীনতা কাপে নতুন উদ্যোমে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল বসুন্ধরা কিংস। ২০১৮-১৯ মৌসুমের সবচেয়ে শক্তিশালী রক্ষণের দল শেখ রাসেলকে হারিয়ে জিতে নিল নিজেদের প্রথম শিরোপাও।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটি ছিল শক্তিশালী রক্ষণের বিপক্ষে তারকায় ঠাসা দলের আক্রমণ শক্তির পরীক্ষা। সেই লড়াইয়ে জয় হল তারকায় ভরা বসুন্ধরারই। ম্যাচে গোল হয়েছে তিনটি, যার প্রতিটি ছিল চোখ জুড়ানো!

খেলা শেষে বসুন্ধরার এক কর্মকর্তা জয়সূচক গোলদাতা মতিনের প্রশংসা করতে গিয়ে তাকে বিশ্বকাপ খেলা কলিন্দ্রেসের চেয়েও উপরে তুলে ধরলেন! কলিন্দ্রেস কোস্টারিকার হয়ে বিশ্বকাপে খেলেছেন। তার চেয়েও ভালো খেলোয়াড় বাংলাদেশের মতিন! বসুন্ধরার ওই কর্তা বলেন, ‘আরে কিসের কলিন্দ্রেস, খেলোয়াড় হলো মতিন!’ কলিন্দ্রেসের সঙ্গে এই তুলনাটা আসলে তিনি করেছেন ফাইনালের মতিনের গুরুত্ব বোঝাতেই।

শুধু জয়সূচক গোল নয়, পুরো ম্যাচেই দুর্দান্ত খেলেছেন মতিন। ওই কর্তা তাই মেতে উঠলেন মতিন বন্দনায়। ম্যাচের ১৭ মিনিটেই এগিয়ে যায় বসুন্ধরা। বুলেট গতির শটে লক্ষ্যভেদ করেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড মার্কাস ভিনিসিয়াস। অবশ্য এই লিড খুব বেশি সময় ধরে রাখতে পারেনি বসুন্ধরা। বুলেট গতির আরেক শটে শেখ রাসেলকে সমায় ফেরান নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড রাফায়েল অনব্রো।

অতিরিক্ত সময়ে খেলার শুরুতেই বদলি খেলোয়াড় মতিন মিয়া ডি-বক্সের ভেতরে জটলা থেকে শেখ রাসেলের ডিফেন্সকে বোকা বানিয়ে ডান পায়ের শটে আড়াআড়ি গোলে বসুন্ধরার জয় নিশ্চিত করেন। এরপর আর কোনো দল গোল করতে ব্যর্থ হলে ২-১ গোলের জয়ে টুর্নামেন্টে প্রথমবার চ্যাম্পিয়ন হয় বসুন্ধরা কিংস।