ঢাকা ০৯:০১ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম ঢাকা’র সভাপতি সাজ্জাদ সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ নির্বাচিত ভর্তুকি দিয়ে গ্যাস বিদ্যুৎ ও দ্রব্যমূল্য কমানোর দাবিতে সমাবেশ ও মিছিল “সফল সংগঠক হিসেবে ‘সাকসেস এ্যাওয়ার্ড-২০২৪’ পাচ্ছেন ব্যারিস্টার সাইফুর রহমান “ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের নব নির্বাচিত সভাপতি মনিরুল ইসলাম ,এবং সাধারণ সম্পাদক নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল সাংবাদিক নাসির উদ্দীন বাবুলের ইন্তেকাল। দুমকিতে আন্তঃ উপজেলা ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। মুন্সীগঞ্জ পৌর নির্বাচনে আমিরুল ইসলাম এর নির্দেশে জগ মার্কার গনসংযোগ রাজধানীর বেইলি রোডে আগুন লাগার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেন। “গুলশানে বিশ্বমানের জুয়েলারী শোরুম চালু করছে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড” ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চিটাগাং রোড সিমরাইল ট্রাক ও ইজিবাইকের সংঘর্ষে এক বৃদ্ধার মৃত্যু ও আহত ২

ভারতের বিপক্ষে ডাক পেয়েছেন খেলতে না চাওয়া রশিদ!

টেস্ট ক্রিকেট খেলবেন না এমনটা বলেননি কখনো আদিল রশিদ। এই তো ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পরও বলেছেন, সাদা বলের ক্রিকেটে সব মনোযোগ থাকলেও টেস্ট খেলার আগ্রহ আছে তাঁর। ইচ্ছা প্রকাশ করেই নির্বাচকদের মন গলিয়ে ফেলেছেন রশিদ। ভারতের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দলে ডাক পেয়েছেন এই লেগ স্পিনার।
ভারতীয় দুই লেগ স্পিনার যুজবেন্দ্র চাহাল ও কুলদীপ যাদব ওয়ানডেতে বড্ড ভুগিয়েছেন ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের। সেখানে স্বাগতিক দলের হয়ে পাল্টা জবাব দিয়েছেন রশিদ। এতেই হয়তো নির্বাচকদের মনে হয়েছে, টেস্টেও আদিল থাকলে মন্দ হয় না! অন্তত ইংল্যান্ডের প্রধান নির্বাচক এড স্মিথের কথায় সে সুরই মিলল, ‘এটা পরিষ্কার, আদিলের এভাবে টেস্ট স্কোয়াডে ফেরার ঘটনা একটু অস্বাভাবিক। তবে নির্বাচক কমিটির সবার মনে হয়েছে ইংল্যান্ড দলে আদিলের থাকা উচিত।’
তাঁর ওপর নির্বাচকদের এমন বিশ্বাস রশিদের নিশ্চয় ভালো লাগছে। অথচ এই লেগ স্পিনার নিজেই পরিকল্পনা করছিলেন ২০১৮ সালে অন্তত টেস্ট খেলবেন না। ফেব্রুয়ারিতেই কাউন্টি দল ইয়র্কশায়ারের সঙ্গে শুধু সাদা বলের ক্রিকেট খেলার চুক্তি করেছেন। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে মনোযোগ দিতে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট না খেলার এ সিদ্ধান্ত তাঁর টেস্ট দলে ফেরার পথে বড় বাধা হতেও পারত। প্রধান নির্বাচক নিজেই যেমন জানিয়ে দিলেন, ‘আদিল ভালোভাবেই জানে, ২০১৯ মৌসুমে টেস্ট খেলতে চাইলে ওকে চার দিনের ক্রিকেট খেলার চুক্তিতে থাকতে হবে। ইংল্যান্ডের টেস্ট খেলোয়াড়দের অবশ্যই কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপের সঙ্গে জড়িত থাকতে হবে।’
এবার অবশ্য এ নিয়মে যে পড়ছেন না রশিদ, সেটা তো বোঝাই যাচ্ছে। ইংল্যান্ডের হয়ে ১০ টেস্টে ৩৮ উইকেট নেওয়া এই স্পিনার সর্বশেষ টেস্ট খেলেছেন ২০১৬ সালে। সেটাও ভারতের বিপক্ষেই, সে সফরে ইংল্যান্ডের ৪-০ ভরাডুবির পেছনে রশিদের নিষ্ক্রিয়তার ভূমিকা দেখেন অনেকেই। এমন অবস্থায় রশিদের দলভুক্তি প্রশ্ন তুলছেই।
ওদিকে ইয়র্কশায়ারের প্রধান নির্বাহী মার্ক আর্থার ভয়ংকর খেপেছেন এ ঘটনায়। এভাবে সীমিত ওভারের জন্য চুক্তিবদ্ধ খেলোয়াড়কে টেস্টে ডেকে নেওয়াটা খেলোয়াড় ও কাউন্টির জন্য ক্ষতিকর বলে ভাবেন আর্থার, ‘আমরা খুবই অবাক হয়েছি যে ইংল্যান্ড আদিলকে ডেকেছে। সে এ মৌসুমে লাল বলের ক্রিকেটই খেলেনি। সে এমন ইচ্ছার কথাও জানায়নি কখনো। আমি আশা করি, ইংল্যান্ড জানে আদিলকে নিয়ে ওদের কী পরিকল্পনা এবং কাউন্টির ম্যাচ নিয়েও।’

Tag :

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম ঢাকা’র সভাপতি সাজ্জাদ সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ নির্বাচিত

ভারতের বিপক্ষে ডাক পেয়েছেন খেলতে না চাওয়া রশিদ!

আপডেট টাইম ০৬:০৫:৪১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ জুলাই ২০১৮

টেস্ট ক্রিকেট খেলবেন না এমনটা বলেননি কখনো আদিল রশিদ। এই তো ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পরও বলেছেন, সাদা বলের ক্রিকেটে সব মনোযোগ থাকলেও টেস্ট খেলার আগ্রহ আছে তাঁর। ইচ্ছা প্রকাশ করেই নির্বাচকদের মন গলিয়ে ফেলেছেন রশিদ। ভারতের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দলে ডাক পেয়েছেন এই লেগ স্পিনার।
ভারতীয় দুই লেগ স্পিনার যুজবেন্দ্র চাহাল ও কুলদীপ যাদব ওয়ানডেতে বড্ড ভুগিয়েছেন ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের। সেখানে স্বাগতিক দলের হয়ে পাল্টা জবাব দিয়েছেন রশিদ। এতেই হয়তো নির্বাচকদের মনে হয়েছে, টেস্টেও আদিল থাকলে মন্দ হয় না! অন্তত ইংল্যান্ডের প্রধান নির্বাচক এড স্মিথের কথায় সে সুরই মিলল, ‘এটা পরিষ্কার, আদিলের এভাবে টেস্ট স্কোয়াডে ফেরার ঘটনা একটু অস্বাভাবিক। তবে নির্বাচক কমিটির সবার মনে হয়েছে ইংল্যান্ড দলে আদিলের থাকা উচিত।’
তাঁর ওপর নির্বাচকদের এমন বিশ্বাস রশিদের নিশ্চয় ভালো লাগছে। অথচ এই লেগ স্পিনার নিজেই পরিকল্পনা করছিলেন ২০১৮ সালে অন্তত টেস্ট খেলবেন না। ফেব্রুয়ারিতেই কাউন্টি দল ইয়র্কশায়ারের সঙ্গে শুধু সাদা বলের ক্রিকেট খেলার চুক্তি করেছেন। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে মনোযোগ দিতে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট না খেলার এ সিদ্ধান্ত তাঁর টেস্ট দলে ফেরার পথে বড় বাধা হতেও পারত। প্রধান নির্বাচক নিজেই যেমন জানিয়ে দিলেন, ‘আদিল ভালোভাবেই জানে, ২০১৯ মৌসুমে টেস্ট খেলতে চাইলে ওকে চার দিনের ক্রিকেট খেলার চুক্তিতে থাকতে হবে। ইংল্যান্ডের টেস্ট খেলোয়াড়দের অবশ্যই কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপের সঙ্গে জড়িত থাকতে হবে।’
এবার অবশ্য এ নিয়মে যে পড়ছেন না রশিদ, সেটা তো বোঝাই যাচ্ছে। ইংল্যান্ডের হয়ে ১০ টেস্টে ৩৮ উইকেট নেওয়া এই স্পিনার সর্বশেষ টেস্ট খেলেছেন ২০১৬ সালে। সেটাও ভারতের বিপক্ষেই, সে সফরে ইংল্যান্ডের ৪-০ ভরাডুবির পেছনে রশিদের নিষ্ক্রিয়তার ভূমিকা দেখেন অনেকেই। এমন অবস্থায় রশিদের দলভুক্তি প্রশ্ন তুলছেই।
ওদিকে ইয়র্কশায়ারের প্রধান নির্বাহী মার্ক আর্থার ভয়ংকর খেপেছেন এ ঘটনায়। এভাবে সীমিত ওভারের জন্য চুক্তিবদ্ধ খেলোয়াড়কে টেস্টে ডেকে নেওয়াটা খেলোয়াড় ও কাউন্টির জন্য ক্ষতিকর বলে ভাবেন আর্থার, ‘আমরা খুবই অবাক হয়েছি যে ইংল্যান্ড আদিলকে ডেকেছে। সে এ মৌসুমে লাল বলের ক্রিকেটই খেলেনি। সে এমন ইচ্ছার কথাও জানায়নি কখনো। আমি আশা করি, ইংল্যান্ড জানে আদিলকে নিয়ে ওদের কী পরিকল্পনা এবং কাউন্টির ম্যাচ নিয়েও।’