ঢাকা ০৫:২৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বাকেরগঞ্জ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবিতে মানববন্ধন। শোক সংবাদ গজারিয়ায় নতুন বলাকি জামে মসজিদে জুম্মা নামাজের পূর্বে শান্তির পক্ষে থাকার আহবান জানান চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিরুল ইসলাম বগুড়ায় মদ্যপ যুবকের ককটেল হামলায় দুই পুলিশ আহত! খুলনায় যথাযোগ্য মর্যাদায় পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উদযাপিত। *ঈদ, নববর্ষে টগি ফান ওয়ার্ল্ডে বর্ণিল আয়োজন* আইন পেশায় সফলতার আট বছর পেরিয়ে নয় বছরে পদার্পণ করেছেন এডভোকেট তাপস চন্দ্র সরকার গজারিয়ায় ভবেরচর কেন্দ্রীয় ঈদগাঁ ময়দানে ঈদুল ফিতরের জামাতে মুসল্লীদের ঢল চন্দনাইশ উপজেলা চেয়ারম্যানের ঈদ বস্ত্র বিতরণ বাকেরগঞ্জে মাহিন্দ্র ও পিক-আপের সংঘর্ষে ২ জন আহত এবং ১ জন নিহত হয়েছে।

হবিগঞ্জে দর্শকের অভাবে বন্ধ হলো সিনেমা হল

লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় মোনালিসা ও মণিকা নামে দুটি সিনেমা হল ছিল। বেশ কয়েকবছর আগেই মালিকানা পরিবর্তন হয়ে মোনালিসা হলটি বন্ধ রয়েছে, এরপরে পুরো উপজেলায় কেবল মণিকা হলটি চালু ছিল। গেল করোনা শুরুর এক বছর আগ থেকে দর্শকের অভাবে মণিকা সিনেমা হলটিও বন্ধ অবস্থায় রয়েছে। শায়েস্তাগঞ্জের মণিকা সিনেমা হলটি শায়েস্তাগঞ্জ হয়ে হবিগঞ্জ সড়কে ১৯৮৭ সালে ১৭ শতক জায়গার উপরে নির্মাণ করা হয়েছিল। সর্বপ্রথম ৬ টাকা ও ৮ টাকা দরে টিকিট বিক্রি করে সিনেমা দেখানো হত।

সময়ের পরিক্রমায় সর্বশেষ শোভন টিকিট ৬০ টাকা ও বিলাস টিকিট ৮০ টাকা দরে ক্রয় করে সিনেমা দেখেছেন দর্শকরা। সিনেমা হলের স্বর্ণযুগের সময় প্রতি সপ্তাহে একদিন মাইকিং করে দর্শকদের জানিয়ে দেয়া হত পেক্ষাগ্রহে নতুন সিনেমা এসেছে, বাজারে বাজারে লাগানো হত সিনেমার রঙ্গিন পোস্টার। আর এসব প্রচার প্রচারণা শুনেই হুমড়ি খেয়ে সিনেমা হলে ছবি দেখতে আসতেন নানান বয়সী দর্শক। প্রতিদিন মণিকায় তিনটি শো চলত, দুপুর সাড়ে ১২ টায় প্রথম শো, বিকাল ৪ টায় দ্বিতীয় শো এবং রাত দশটায় সর্বশেষ শো দেখানো হত।

প্রতিটি শো চলত একটানা আড়াই ঘন্টা ধরে চলত একটা শোতে হাউজফুল হওয়ায় জায়গা না পেয়ে হলের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতেন অনেক মানুষ, এই মণিকা হলেই ১৫-২০ জন কর্মচারী কাজ করে তাদের জীবন জীবিকা নির্বাহ করতেন। নায়ক সালমান শাহ, নায়ক জসিম নায়ক রিয়াজ, শাকিব খান, নায়িকা শাবানা মৌসুমী, শাবনুর কিংবা পুর্ণিমা তাদের অভিনীত ছবির খোঁজ পেলেই সিনেমা হলে দর্শকের অভাব হত না এই হল দিয়েই ব্যবসা করে একসময় লাভবান ছিলেন হলের মালিক।

সরেজমিনে গেলে দেখা যায়- মণিকা হলের সামনে এখন বেশ কয়েকজন ওয়ার্কশপের কাজ করছেন। সিনেমা হল বন্ধ হওয়ার কারণ খুজলে দেখা যায়, দেশে সুস্থ ও ভাল সিনেমার অভাব, ডিজিটাল যুগের ইউটিউব, ক্যাবল টিভি ও স্যাটেলাইট টিভির প্রসার এবং চায়ের দোকানে সিনেমা দেখানোর প্রভাব। এছাড়াও অভাব রয়েছে মানসম্মত ও উন্নত পরিবেশের সিনেমা হল না থাকায় ও দর্শকরা হল থেকে বিমুখী হয়ে আছেন।

এ ব্যাপারে মণিকা সিনেমা হলের কাউন্টার ম্যানেজার আব্দুর রশীদ জানান, ‘শুরু থেকেই তিনি এ হলে কাজ করে আসছিলেন, বর্তমানে তিনি পেশা পাল্টিয়েছেন তিনি বলেন মানুষ এখন ঘরে বসেই সিনেমা দেখতে পারে তাই হলে আসেনা। আর আগের মতো ভাল সিনেমা ও নির্মাণ হয়না, এক কথায় দর্শক নেই তাই হল বন্ধ হয়েছে, এ ব্যাপারে মণিকা সিনেমা হলের সত্ত্বাধিকারী তাপস গুপ্ত দাস জানান কয়েক বছর ধরেই দর্শক না থাকার কারণে হল বন্ধ রেখেছি অনেক ভর্তুকি দিয়েও চেষ্টা করেছি হলটি টিকিয়ে রাখার জন্য কিন্তু পারিনি।

তিনি বলেন একসময় থার্টি ফাইভ ফিল্ম কিনে আনতাম পরে ফিল্ম আনতাম এরপরে প্যানড্রাইভে সিনেমা দিয়ে দিত, সর্বশেষ অনলাইনে সিনেমা কিনে এনেছি এগুলো পর্দায় দেখানো হত। একটা সময় যেকোন জাতীয় উৎসব এলেই মানুষের ঢল নামত সিনেমা দেখার জন্য, কিন্তু আমার আক্ষেপ হয় দুই তিন বছরে ও একজন দর্শক এসে জিজ্ঞেস করল না সিনেমা আছে কি, দেখতে চাই। তাহলে বুঝেন সিনেমা হলের অবস্থা।’

তাপস দাস গুপ্ত সিনেমা হলের ভবিষ্যৎ দিনদিন অন্ধকারই দেখেন, তাই এই মণিকা সিনেমা হল ও চালু হওয়ার সম্ভাবনা দেখেন না। দীর্ঘদিন সিনেমা হল চালিয়েছেন, এখন বন্ধ থাকায় নিজের কাছে খারাপ লাগলে কিছু করার নেই বলে জানান তিনি। দীর্ঘ আলাপচারিতায় তিনি বলেন, ‘সিনেমা হলে যদি দর্শকরা আসত এবং সিনেমা দেখতে চাইত এবং দেশে সিনেমা হল চলার মত অনুকূল পরিবেশ পেত তাহলে তিনি আরো আধুনিকায়ন করে মণিকা সিনেমা হলকে সাজ্জিত করতেন কিন্তু সেগুলো হয়ত আর হবে না তাই সিনেমা হল বন্ধই হয়ত থাকবে।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ থিয়েটারের সভাপতি জালাল উদ্দিন রুমি বলেন-সিনেমা দেখার দর্শক আসলে কমেনি, বহুমাত্রিক ডিজিটাল ইজেশনের কারণে মানুষ হাতের নাগালেই সিনেমা পাচ্ছে সেজন্য তারা হলে যাচ্ছে না এছাড়াও সিনেমা হলে পরিকল্পিত পরিবেশের অভাব রয়েছে। যার কারণে হলে পরিবার পরিজন নিয়ে ছবি দেখতে পারা যায় না।

তিনি আরো বলেন আমরা যারা সংস্কৃতিকে ধারণ করি, তারা মূলত সিনেমা দেখেই উৎসাহিত হয়েছিলাম শায়েস্তাগঞ্জে সিনেমা হল বন্ধ হওয়ার কারণে এর প্রভাব সংস্কৃতির উপর ও পড়েছে আমি আশা করি দেশে ভাল সিনেমা নির্মাণ হলে এবং সিনেমা হলের পরিবেশ ভাল করে সংস্কার করলে আবারও দর্শক সিনেমা দেখবে।

Tag :

জনপ্রিয় সংবাদ

বাকেরগঞ্জ জেলা পুনরুদ্ধারের দাবিতে মানববন্ধন।

হবিগঞ্জে দর্শকের অভাবে বন্ধ হলো সিনেমা হল

আপডেট টাইম ০৩:২৫:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ নভেম্বর ২০২১

লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় মোনালিসা ও মণিকা নামে দুটি সিনেমা হল ছিল। বেশ কয়েকবছর আগেই মালিকানা পরিবর্তন হয়ে মোনালিসা হলটি বন্ধ রয়েছে, এরপরে পুরো উপজেলায় কেবল মণিকা হলটি চালু ছিল। গেল করোনা শুরুর এক বছর আগ থেকে দর্শকের অভাবে মণিকা সিনেমা হলটিও বন্ধ অবস্থায় রয়েছে। শায়েস্তাগঞ্জের মণিকা সিনেমা হলটি শায়েস্তাগঞ্জ হয়ে হবিগঞ্জ সড়কে ১৯৮৭ সালে ১৭ শতক জায়গার উপরে নির্মাণ করা হয়েছিল। সর্বপ্রথম ৬ টাকা ও ৮ টাকা দরে টিকিট বিক্রি করে সিনেমা দেখানো হত।

সময়ের পরিক্রমায় সর্বশেষ শোভন টিকিট ৬০ টাকা ও বিলাস টিকিট ৮০ টাকা দরে ক্রয় করে সিনেমা দেখেছেন দর্শকরা। সিনেমা হলের স্বর্ণযুগের সময় প্রতি সপ্তাহে একদিন মাইকিং করে দর্শকদের জানিয়ে দেয়া হত পেক্ষাগ্রহে নতুন সিনেমা এসেছে, বাজারে বাজারে লাগানো হত সিনেমার রঙ্গিন পোস্টার। আর এসব প্রচার প্রচারণা শুনেই হুমড়ি খেয়ে সিনেমা হলে ছবি দেখতে আসতেন নানান বয়সী দর্শক। প্রতিদিন মণিকায় তিনটি শো চলত, দুপুর সাড়ে ১২ টায় প্রথম শো, বিকাল ৪ টায় দ্বিতীয় শো এবং রাত দশটায় সর্বশেষ শো দেখানো হত।

প্রতিটি শো চলত একটানা আড়াই ঘন্টা ধরে চলত একটা শোতে হাউজফুল হওয়ায় জায়গা না পেয়ে হলের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতেন অনেক মানুষ, এই মণিকা হলেই ১৫-২০ জন কর্মচারী কাজ করে তাদের জীবন জীবিকা নির্বাহ করতেন। নায়ক সালমান শাহ, নায়ক জসিম নায়ক রিয়াজ, শাকিব খান, নায়িকা শাবানা মৌসুমী, শাবনুর কিংবা পুর্ণিমা তাদের অভিনীত ছবির খোঁজ পেলেই সিনেমা হলে দর্শকের অভাব হত না এই হল দিয়েই ব্যবসা করে একসময় লাভবান ছিলেন হলের মালিক।

সরেজমিনে গেলে দেখা যায়- মণিকা হলের সামনে এখন বেশ কয়েকজন ওয়ার্কশপের কাজ করছেন। সিনেমা হল বন্ধ হওয়ার কারণ খুজলে দেখা যায়, দেশে সুস্থ ও ভাল সিনেমার অভাব, ডিজিটাল যুগের ইউটিউব, ক্যাবল টিভি ও স্যাটেলাইট টিভির প্রসার এবং চায়ের দোকানে সিনেমা দেখানোর প্রভাব। এছাড়াও অভাব রয়েছে মানসম্মত ও উন্নত পরিবেশের সিনেমা হল না থাকায় ও দর্শকরা হল থেকে বিমুখী হয়ে আছেন।

এ ব্যাপারে মণিকা সিনেমা হলের কাউন্টার ম্যানেজার আব্দুর রশীদ জানান, ‘শুরু থেকেই তিনি এ হলে কাজ করে আসছিলেন, বর্তমানে তিনি পেশা পাল্টিয়েছেন তিনি বলেন মানুষ এখন ঘরে বসেই সিনেমা দেখতে পারে তাই হলে আসেনা। আর আগের মতো ভাল সিনেমা ও নির্মাণ হয়না, এক কথায় দর্শক নেই তাই হল বন্ধ হয়েছে, এ ব্যাপারে মণিকা সিনেমা হলের সত্ত্বাধিকারী তাপস গুপ্ত দাস জানান কয়েক বছর ধরেই দর্শক না থাকার কারণে হল বন্ধ রেখেছি অনেক ভর্তুকি দিয়েও চেষ্টা করেছি হলটি টিকিয়ে রাখার জন্য কিন্তু পারিনি।

তিনি বলেন একসময় থার্টি ফাইভ ফিল্ম কিনে আনতাম পরে ফিল্ম আনতাম এরপরে প্যানড্রাইভে সিনেমা দিয়ে দিত, সর্বশেষ অনলাইনে সিনেমা কিনে এনেছি এগুলো পর্দায় দেখানো হত। একটা সময় যেকোন জাতীয় উৎসব এলেই মানুষের ঢল নামত সিনেমা দেখার জন্য, কিন্তু আমার আক্ষেপ হয় দুই তিন বছরে ও একজন দর্শক এসে জিজ্ঞেস করল না সিনেমা আছে কি, দেখতে চাই। তাহলে বুঝেন সিনেমা হলের অবস্থা।’

তাপস দাস গুপ্ত সিনেমা হলের ভবিষ্যৎ দিনদিন অন্ধকারই দেখেন, তাই এই মণিকা সিনেমা হল ও চালু হওয়ার সম্ভাবনা দেখেন না। দীর্ঘদিন সিনেমা হল চালিয়েছেন, এখন বন্ধ থাকায় নিজের কাছে খারাপ লাগলে কিছু করার নেই বলে জানান তিনি। দীর্ঘ আলাপচারিতায় তিনি বলেন, ‘সিনেমা হলে যদি দর্শকরা আসত এবং সিনেমা দেখতে চাইত এবং দেশে সিনেমা হল চলার মত অনুকূল পরিবেশ পেত তাহলে তিনি আরো আধুনিকায়ন করে মণিকা সিনেমা হলকে সাজ্জিত করতেন কিন্তু সেগুলো হয়ত আর হবে না তাই সিনেমা হল বন্ধই হয়ত থাকবে।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ থিয়েটারের সভাপতি জালাল উদ্দিন রুমি বলেন-সিনেমা দেখার দর্শক আসলে কমেনি, বহুমাত্রিক ডিজিটাল ইজেশনের কারণে মানুষ হাতের নাগালেই সিনেমা পাচ্ছে সেজন্য তারা হলে যাচ্ছে না এছাড়াও সিনেমা হলে পরিকল্পিত পরিবেশের অভাব রয়েছে। যার কারণে হলে পরিবার পরিজন নিয়ে ছবি দেখতে পারা যায় না।

তিনি আরো বলেন আমরা যারা সংস্কৃতিকে ধারণ করি, তারা মূলত সিনেমা দেখেই উৎসাহিত হয়েছিলাম শায়েস্তাগঞ্জে সিনেমা হল বন্ধ হওয়ার কারণে এর প্রভাব সংস্কৃতির উপর ও পড়েছে আমি আশা করি দেশে ভাল সিনেমা নির্মাণ হলে এবং সিনেমা হলের পরিবেশ ভাল করে সংস্কার করলে আবারও দর্শক সিনেমা দেখবে।