ঢাকা ০৪:৩৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সাইনবোর্ডে আগুন জ্বালিয়ে অটোরিকশা চালকদের বিক্ষোভ “দেশীয় সফটওয়্যারে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের প্রত্যয়ে শপথ নিল বেসিসের নতুন কার্যনির্বাহী পরিষদ” রাজশাহী গোদাগাড়ী অঞ্চলে পুকুর সংস্কারের নামে প্রশাসনকে যেভাবে বোকা বানাচ্ছে অবৈধ পুকুর ব্যবসায়ীরা চট্টগ্রামে দ্বিতীয় ধাপে হাটহাজারী ও রাঙ্গুনিয়ায়-ফটিকছড়ি উপজেলায় ভোট আজ “অ্যালায়েন্স ফাইন্যান্স ও কনকর্ড রিয়েল এস্টেটের সাথে চুক্তি সই” গজারিয়ায় সাংবাদিকের উপর হামলা, থানার সামনে সাংবাদিকদের অবস্থান কর্মসূচি গত ১৯শে মে রাত ১১ টায় সাইনবোর্ড লিংকরোডে অটো সিএনজি ভাঙচুর বাকেরগঞ্জের এমপি হাফিজ মল্লিকের উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় দিশেহারা একটি কুচক্রী মহল।। টাঙ্গাইলে উপজেলা নির্বাচনের ৩য় ও ৪র্থ ধাপের প্রার্থীদের সাথে মতবিনিময় টাঙ্গাইলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে আইন-শৃংখলা রক্ষার্থে নির্বাচনী ব্রিফিং অনুষ্ঠিত

এমপি পদে মনোনয়ন ‘ঈশ্বরপ্রদত্ত অধিকার’ নয়

সংসদ সদস্য (এমপি) নির্বাচিত হওয়ার পর দলের স্থানীয় সদস্যদের মতামতকে আর তোয়াক্কা করবেন না, তা কী করে হয়? একবার নির্বাচিত হয়েছেন বলে কোনো আপত্তি ছাড়াই বারবার মনোনয়ন পেতেই থাকবেন, সেটাও–বা কোন অধিকারে?

‘আজীবন সংসদ সদস্য’ থাকার সংস্কৃতি বিলোপের পক্ষে ভোট দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টির তৃণমূল সদস্যরা। তাঁরা বলছেন, এমপি পদে মনোনয়ন কারও ‘ঈশ্বরপ্রদত্ত অধিকার’ নয়। ঠিকমতো কাজ না করলে তাঁদের ছুড়ে ফেলার অধিকার রয়েছে দলের সদস্যদের।

গতকাল রোববার দলীয় বার্ষিক সম্মেলনে লেবার এমপিদের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনার কাজটি অধিকতর সহজ করার পক্ষে রায় দিয়েছেন সদস্যরা। এতে কোনো আসনের মাত্র ৩৩ শতাংশ সদস্য অনাস্থা ভোট দিলে সংশ্লিষ্ট এমপি পরবর্তী নির্বাচনে আর সরাসরি মনোনয়ন পাবেন না। উন্মুক্ত প্রতিযোগিতায় নতুন করে তাঁকে মনোনয়নের জন্য লড়তে হবে। আগে মনোনয়ন কেড়ে নিতে ৫০ শতাংশ ভোটের প্রয়োজন হতো।

এবার ২৩ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর লিভারপুল শহরে সম্মেলন হচ্ছে। ছবি: রয়টার্সএবার ২৩ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর লিভারপুল শহরে সম্মেলন হচ্ছে। ছবি: রয়টার্সলেবার পার্টির ব্রাডফোর্ড ওয়েস্ট শাখার সদস্য স্টিভ আরলোফ বলেন, লেবার এমপিদের এমন ভাবা উচিত নয় যে এমপি পদে আজীবন মনোনয়ন তাঁদের ঈশ্বরপ্রদত্ত অধিকার। অনেক এমপি স্থানীয় সদস্যদের মতামত তোয়াক্কা না করে টিকে আছেন। অথচ স্থানীয় সদস্যরা নিজেদের জুতা ক্ষয় করে তাঁদের এমপি বানিয়েছেন।

লেবার নেতা জেরেমি করবিনের বিরোধিতা করছেন দলটির অনেক এমপি। কিন্তু তৃণমূল সদস্যদের তুমুল সমর্থনের কারণে তিনি নেতা হিসেবে আজও টিকে আছেন। নেতার বিরুদ্ধাচারী ওই এমপিদের মনোনয়ন কেড়ে নিতে চান তৃণমূলের সদস্যরা।

প্রতিবছর সেপ্টেম্বরে (শরৎকালে) লেবার পার্টির সম্মেলন হয়। এবার ২৩ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর লিভারপুল শহরে হচ্ছে এই সম্মেলন।

দলীয় সদস্যদের পাশাপাশি দর্শনার্থী ও অংশীজনদের মিলনমেলায় পরিণত হয় সম্মেলন। প্রায় ১৩ হাজার লোক সম্মেলনে অংশ নেয়। সম্মেলনে তৃণমূল সদস্যরা বিভিন্ন প্রস্তাবের পক্ষে-বিপক্ষে ভোট দিয়ে দলের ভবিষ্যৎ গন্তব্য নির্ধারণ করেন।

লেবার নেতা জেরেমি করবিন। ছবি: রয়টার্সলেবার নেতা জেরেমি করবিন। ছবি: রয়টার্সএবারের সম্মেলনে ব্রেক্সিট (ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের বিচ্ছেদ) বিষয়ে মোট ১৫১টি প্রস্তাব জমা পড়েছে। কোনো একক বিষয়ে এত প্রস্তাব উত্থাপনের ঘটনা বিরল। বেশির ভাগ প্রস্তাবে ব্রেক্সিট বিষয়ে পুনরায় গণভোটের দাবি জানানো হয়েছে। মঙ্গলবার বিষয়টি নিয়ে সম্মেলনে আলোচনা ও ভোটাভুটি হবে।

এবারের দলীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে ব্রেক্সিটবিরোধীরা আগে থেকেই তৎপরতা চালিয়ে আসছেন। সম্মেলনে তাঁরা পুনরায় গণভোটের প্রস্তাব পাস করিয়ে নিতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন।

লেবার নেতা জেরেমি করবিন বলেছেন, দলের সদস্যরা যে মতামত দেবেন, সেটিই তিনি করবেন।

৩০ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে কনজারভেটিভ দলের সম্মেলন। সেখানেও এবার ব্রেক্সিট বিষয়ে পুনরায় গণভোটের বিষয়টি মুখ্য হয়ে উঠবে বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

Tag :

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সাইনবোর্ডে আগুন জ্বালিয়ে অটোরিকশা চালকদের বিক্ষোভ

এমপি পদে মনোনয়ন ‘ঈশ্বরপ্রদত্ত অধিকার’ নয়

আপডেট টাইম ১২:৫০:৫৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সংসদ সদস্য (এমপি) নির্বাচিত হওয়ার পর দলের স্থানীয় সদস্যদের মতামতকে আর তোয়াক্কা করবেন না, তা কী করে হয়? একবার নির্বাচিত হয়েছেন বলে কোনো আপত্তি ছাড়াই বারবার মনোনয়ন পেতেই থাকবেন, সেটাও–বা কোন অধিকারে?

‘আজীবন সংসদ সদস্য’ থাকার সংস্কৃতি বিলোপের পক্ষে ভোট দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টির তৃণমূল সদস্যরা। তাঁরা বলছেন, এমপি পদে মনোনয়ন কারও ‘ঈশ্বরপ্রদত্ত অধিকার’ নয়। ঠিকমতো কাজ না করলে তাঁদের ছুড়ে ফেলার অধিকার রয়েছে দলের সদস্যদের।

গতকাল রোববার দলীয় বার্ষিক সম্মেলনে লেবার এমপিদের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনার কাজটি অধিকতর সহজ করার পক্ষে রায় দিয়েছেন সদস্যরা। এতে কোনো আসনের মাত্র ৩৩ শতাংশ সদস্য অনাস্থা ভোট দিলে সংশ্লিষ্ট এমপি পরবর্তী নির্বাচনে আর সরাসরি মনোনয়ন পাবেন না। উন্মুক্ত প্রতিযোগিতায় নতুন করে তাঁকে মনোনয়নের জন্য লড়তে হবে। আগে মনোনয়ন কেড়ে নিতে ৫০ শতাংশ ভোটের প্রয়োজন হতো।

এবার ২৩ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর লিভারপুল শহরে সম্মেলন হচ্ছে। ছবি: রয়টার্সএবার ২৩ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর লিভারপুল শহরে সম্মেলন হচ্ছে। ছবি: রয়টার্সলেবার পার্টির ব্রাডফোর্ড ওয়েস্ট শাখার সদস্য স্টিভ আরলোফ বলেন, লেবার এমপিদের এমন ভাবা উচিত নয় যে এমপি পদে আজীবন মনোনয়ন তাঁদের ঈশ্বরপ্রদত্ত অধিকার। অনেক এমপি স্থানীয় সদস্যদের মতামত তোয়াক্কা না করে টিকে আছেন। অথচ স্থানীয় সদস্যরা নিজেদের জুতা ক্ষয় করে তাঁদের এমপি বানিয়েছেন।

লেবার নেতা জেরেমি করবিনের বিরোধিতা করছেন দলটির অনেক এমপি। কিন্তু তৃণমূল সদস্যদের তুমুল সমর্থনের কারণে তিনি নেতা হিসেবে আজও টিকে আছেন। নেতার বিরুদ্ধাচারী ওই এমপিদের মনোনয়ন কেড়ে নিতে চান তৃণমূলের সদস্যরা।

প্রতিবছর সেপ্টেম্বরে (শরৎকালে) লেবার পার্টির সম্মেলন হয়। এবার ২৩ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর লিভারপুল শহরে হচ্ছে এই সম্মেলন।

দলীয় সদস্যদের পাশাপাশি দর্শনার্থী ও অংশীজনদের মিলনমেলায় পরিণত হয় সম্মেলন। প্রায় ১৩ হাজার লোক সম্মেলনে অংশ নেয়। সম্মেলনে তৃণমূল সদস্যরা বিভিন্ন প্রস্তাবের পক্ষে-বিপক্ষে ভোট দিয়ে দলের ভবিষ্যৎ গন্তব্য নির্ধারণ করেন।

লেবার নেতা জেরেমি করবিন। ছবি: রয়টার্সলেবার নেতা জেরেমি করবিন। ছবি: রয়টার্সএবারের সম্মেলনে ব্রেক্সিট (ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের বিচ্ছেদ) বিষয়ে মোট ১৫১টি প্রস্তাব জমা পড়েছে। কোনো একক বিষয়ে এত প্রস্তাব উত্থাপনের ঘটনা বিরল। বেশির ভাগ প্রস্তাবে ব্রেক্সিট বিষয়ে পুনরায় গণভোটের দাবি জানানো হয়েছে। মঙ্গলবার বিষয়টি নিয়ে সম্মেলনে আলোচনা ও ভোটাভুটি হবে।

এবারের দলীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে ব্রেক্সিটবিরোধীরা আগে থেকেই তৎপরতা চালিয়ে আসছেন। সম্মেলনে তাঁরা পুনরায় গণভোটের প্রস্তাব পাস করিয়ে নিতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন।

লেবার নেতা জেরেমি করবিন বলেছেন, দলের সদস্যরা যে মতামত দেবেন, সেটিই তিনি করবেন।

৩০ সেপ্টেম্বর থেকে আগামী ৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে কনজারভেটিভ দলের সম্মেলন। সেখানেও এবার ব্রেক্সিট বিষয়ে পুনরায় গণভোটের বিষয়টি মুখ্য হয়ে উঠবে বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে।