ঢাকা ১২:৩২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
গজারিয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান দুই প্রতিষ্ঠান কে অর্থদন্ড টেকপাড়া ও ইয়াকুব নগরের অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্হদের মাঝে নগর অর্থ ও বস্ত্র বিতরণ বাস ও ফুটওভার ব্রিজ মুখোমুখি সংঘর্ষ “২৬শে এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে শার্ক ট্যাংক বাংলাদেশ” –মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর এলাকা হতে ৫৩ কেজি গাঁজাসহ ০৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০; মাদক বহনে ব্যবহৃত পিকআপ জব্দ। “মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন” ইন্দুরকানীতে দিনব্যাপী পারিবারিক পুষ্টি বাগান ও বস্তায় আদা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ চট্টগ্রামে সড়ক অবরোধ করে চুয়েট শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন … লালমনিরহাটে বৃষ্টির জন‍্য বিশেষ নামাজ আদায় মিছিল ও শোডাউন করায় মতলব উত্তর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে মানিক দর্জিকে শোকজ

হবিগঞ্জে অবাধে বিক্রি হচ্ছে অসুস্থ পশুর মাংস দেখার কেউ নেই।

লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি
হবিগঞ্জ শহরে অবাধে জবাই করে বিক্রি করা হচ্ছে অসুস্থ ও রোগা গরু-ছাগলের মাংস। আর এসব মাংস খেয়ে প্রতিনিয়তই অসুস্থ হচ্ছেন অনেকেই। এছাড়াও নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত মূল্যে মাংস বিক্রির অভিযোগও রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। আর এ কাজটি করছেন হবিগঞ্জ শহরের একটি অসাধু কসাই চক্র
অভিযোগ রয়েছে, জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে রোগা ও অসুস্থ গরু কম দামে ক্রয় করে রাঁতের আধারে জবাই করে বিক্রি করে দিচ্ছে চক্রটি অতিরিক্ত দাম নেয়ার পাশাপাশি ফ্রিজে থাকা পঁচা-বাসি মাংসও তার সাথে রক্ত মিশিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে।

ক্রেতারা বলছেন, প্রশাসন যদি বিষয়টির উপর গুরুত্ব দিয়ে নজরদারি রাখতো তা হলে এমনটা হতো না। যদিও এ বিষয়ে প্রশাসন তৎপর রয়েছে বলে জানিয়েছেন হবিগঞ্জ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা। খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, হবিগঞ্জ শহরের সবচেয়ে বড় মাংস বিক্রির বাজার হচ্ছে শায়েস্তাগর বাজার। এছাড়াও চৌধুরী বাজার, বগলা বাজার, সিনেমাহল বাজারসহ শহর ও শহরতলীর আশপাশের আরো কয়েকটি বাজারে মাংস বিক্রি করা হচ্ছে আর এসব বাজারের কসাইরা যে যার মত করে অসুস্থ, রোগা ও চোরাই গরু জবাই করে বিক্রি করছে মাংস।

গরু জবাই করার পুর্বে গরুর স্বাস্থ্য পরিক্ষা করার কথা থাকলেও নিয়মনীতির কাছেও নেই তারা অভিযোগ রয়েছে, ফ্রিজে থাকা পচাবাসি গরু মাংস নতুন জবাই করা গরুর রক্ত দিয়ে মিশিয়ে বিক্রি করে দিচ্ছে চক্রটি। নেয়া হচ্ছে অতিরিক্ত দামও। এছাড়াও অনেক মাংস বিক্রেতাদের সাথে গরু চোরদের সখ্যতা রয়েছে বলেও জানা গেছে। চোরাইকৃত গরু রাতের আধারে জবাই করে বিক্রি করে দেয়া হচ্ছে যে কারণে জেলার বিভিন্ন স্থানে বাড়ছে গরু চুরি এদিকে, সম্প্রতি শহরের কয়েকটি হাট বাজারে অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে করা হয়েছে জরিমানা কিন্তু কাজের কাজ হচ্ছে না কিছুই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা জানান, আমি এখানে আসার পর এ নিয়ে বেশ কয়েকটি অভিযান পরিচালনা করেছি করা হয়েছে জরিমানাও তিনি বলেন, যদি কোন মাংস বিক্রেতার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ পাওয়া যায় তা হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে এনিয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর তৎপর রয়েছে বলেও জানান তিনি সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা বলেন, রোগা গরুর বিষয়টি দেখার দায়িত্ব প্রাণী সম্পদ অফিসের পৌরসভার মাধ্যমে বিষয়টি মনিটরিংয়ের কথা।

Tag :

জনপ্রিয় সংবাদ

গজারিয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান দুই প্রতিষ্ঠান কে অর্থদন্ড

হবিগঞ্জে অবাধে বিক্রি হচ্ছে অসুস্থ পশুর মাংস দেখার কেউ নেই।

আপডেট টাইম ০৫:৪৭:১১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২১

লিটন পাঠান, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি
হবিগঞ্জ শহরে অবাধে জবাই করে বিক্রি করা হচ্ছে অসুস্থ ও রোগা গরু-ছাগলের মাংস। আর এসব মাংস খেয়ে প্রতিনিয়তই অসুস্থ হচ্ছেন অনেকেই। এছাড়াও নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত মূল্যে মাংস বিক্রির অভিযোগও রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। আর এ কাজটি করছেন হবিগঞ্জ শহরের একটি অসাধু কসাই চক্র
অভিযোগ রয়েছে, জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে রোগা ও অসুস্থ গরু কম দামে ক্রয় করে রাঁতের আধারে জবাই করে বিক্রি করে দিচ্ছে চক্রটি অতিরিক্ত দাম নেয়ার পাশাপাশি ফ্রিজে থাকা পঁচা-বাসি মাংসও তার সাথে রক্ত মিশিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে।

ক্রেতারা বলছেন, প্রশাসন যদি বিষয়টির উপর গুরুত্ব দিয়ে নজরদারি রাখতো তা হলে এমনটা হতো না। যদিও এ বিষয়ে প্রশাসন তৎপর রয়েছে বলে জানিয়েছেন হবিগঞ্জ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা। খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, হবিগঞ্জ শহরের সবচেয়ে বড় মাংস বিক্রির বাজার হচ্ছে শায়েস্তাগর বাজার। এছাড়াও চৌধুরী বাজার, বগলা বাজার, সিনেমাহল বাজারসহ শহর ও শহরতলীর আশপাশের আরো কয়েকটি বাজারে মাংস বিক্রি করা হচ্ছে আর এসব বাজারের কসাইরা যে যার মত করে অসুস্থ, রোগা ও চোরাই গরু জবাই করে বিক্রি করছে মাংস।

গরু জবাই করার পুর্বে গরুর স্বাস্থ্য পরিক্ষা করার কথা থাকলেও নিয়মনীতির কাছেও নেই তারা অভিযোগ রয়েছে, ফ্রিজে থাকা পচাবাসি গরু মাংস নতুন জবাই করা গরুর রক্ত দিয়ে মিশিয়ে বিক্রি করে দিচ্ছে চক্রটি। নেয়া হচ্ছে অতিরিক্ত দামও। এছাড়াও অনেক মাংস বিক্রেতাদের সাথে গরু চোরদের সখ্যতা রয়েছে বলেও জানা গেছে। চোরাইকৃত গরু রাতের আধারে জবাই করে বিক্রি করে দেয়া হচ্ছে যে কারণে জেলার বিভিন্ন স্থানে বাড়ছে গরু চুরি এদিকে, সম্প্রতি শহরের কয়েকটি হাট বাজারে অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে করা হয়েছে জরিমানা কিন্তু কাজের কাজ হচ্ছে না কিছুই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা জানান, আমি এখানে আসার পর এ নিয়ে বেশ কয়েকটি অভিযান পরিচালনা করেছি করা হয়েছে জরিমানাও তিনি বলেন, যদি কোন মাংস বিক্রেতার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ পাওয়া যায় তা হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে এনিয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর তৎপর রয়েছে বলেও জানান তিনি সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা বলেন, রোগা গরুর বিষয়টি দেখার দায়িত্ব প্রাণী সম্পদ অফিসের পৌরসভার মাধ্যমে বিষয়টি মনিটরিংয়ের কথা।