ঢাকা ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বাসারা উচ্চ বিদ্যালয় এর গোপনে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ। প্রশান্তি আবাসিকে রাস্তার উদ্বোধন করলেন মেয়র বাকেরগঞ্জের প্রথম শহীদ মিনারটি অযত্নে অবহেলায় ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। সিলেট নগরীতে হঠাৎ করে বেড়েছে মশার উপদ্রব মেডিকেলে পড়ার স্বপ্ন পূরণে হাত বাড়ালেন বগুড়ার জেলা প্রশাসক মনপুরায় ইউপি সদস্যের আত্মীয়ের কাছ থেকে ভিজিএফের চাল জব্দ সুশৃঙ্খল সুরক্ষিত হাইওয়ে মহাসড়ক’ হাইওয়ে পুলিশের সেবা সপ্তাহ—২০২৪ হাইওয়ে পুলিশের সেবা সপ্তাহ—২০২৪ ’সুশৃঙ্খল সুরক্ষিত মহাসড়ক’ শিরোনামে টাঙ্গাইলে গৃহায়ন তহবিলের তালিকাভুক্ত এনজিও প্রতিনিধি ও সুবিধাভোগীদের নিয়ে মতবিনিময় অপ্রাপ্ত বয়সেই ৩ বিয়ে, সংবাদ করায় ৪ সাংবাদিকের নামে মামলা

প্রতিটি গ্রামে পর্যাক্রমে ইন্টার্নেট সেবা পৌঁছে দিতে কাজ করছে সরকার: তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী

সিনিয়র রিপোর্টার,ঢাকা: তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেছেন,সরকার ইন্টারনেট সেবাকে মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে পর্যাক্রমে প্রতিটি গ্রামে ইন্টার্নেট সেবা পৌঁছে দিতে কাজ করছে সরকার। মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে তরুণ উদ্যোক্তাদের মধ্যে ব্রাক আয়োজিত ব্রাকাথন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন পলক। প্রতিমন্ত্রী বলেন,”আগে আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ডিজিটাল ল্যাব ছিল না, কিন্তু ডিজিটাল বাংলাদেশ ইশতেহার ঘোষণার পর আমরা সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ৯ হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব প্রতিষ্ঠা করেছি। এছাড়া ৬ষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত আইসিটি বিষয়কে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ইন্টারনেট এখন মানুষের মৌলিক চাহিদার মত, আগে মানুষের মৌলিক চাহিদা ছিল পাঁচটি, কিন্তু বর্তমান সময়ে ইন্টারনেট মানুষের মৌলিক চাহিদার মধ্যে অন্তর্গত হয়েছে। জুনায়েদ আহমেদ পলক এমপি বলেন,সরকার ইন্টারনেট সেবাকে মানুষের দোড় গোড়ায় পৌছে দিতে পর্যাক্রমে প্রতিটি গ্রামে ইন্টারনেট সেবা পৌছে দিতে কাজ করছে সরকার। প্রতিমন্ত্রী বলেন,আমরা ঝুঁকি নেওয়ার জাতি, আমরা অনেক ঝুঁকি নিয়েছি , বিভিন্ন সমস্যা সমাধানও করেছি। এখন আমাদের উচিত তরুণদের অণুপ্রাণিত করা তাদের শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো নয়, তাদেরকে ভোকেশনাল ট্রেনিং এর মাধ্যমে দক্ষ করে তোলা যাতে তারা দক্ষতা দিয়ে কাজ করতে পারে। অনুষ্ঠানে পাঁচটি দলকে বিজয়ী ঘোষনা করা হয়েছে। সামাজিক সমস্যা সমাধানের ধারণা দিয়ে বিজয়ী হয় তারা। তাদের পুরস্কার হিসেবে ৪ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ ডেল এর পক্ষ থেকে ল্যাপটপ,গ্রামীণফোন এর পক্ষ থেকে ইনকিউবেটর সেন্টারে জায়গা দেয়া হবে। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ব্রাকের অ্যাডভোকেসি ফর সোশ্যাল চেঞ্জ এর পরিচালক কে এম মোর্শেদ,গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি,ডেল এর ভাইস প্রেসিডেন্ট অফ এশিয়া ইমার্জিং মার্কেট ও সাউথ এশিয়া এন্ড স্মল কে আনথাই। ব্রাকাথনে টেকনোলজি প্রোগ্রাম ছিল ডেল টেকনোলজিস।

Tag :

জনপ্রিয় সংবাদ

বাসারা উচ্চ বিদ্যালয় এর গোপনে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ।

প্রতিটি গ্রামে পর্যাক্রমে ইন্টার্নেট সেবা পৌঁছে দিতে কাজ করছে সরকার: তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী

আপডেট টাইম ০৫:৩৩:২১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯

সিনিয়র রিপোর্টার,ঢাকা: তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেছেন,সরকার ইন্টারনেট সেবাকে মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে পর্যাক্রমে প্রতিটি গ্রামে ইন্টার্নেট সেবা পৌঁছে দিতে কাজ করছে সরকার। মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে তরুণ উদ্যোক্তাদের মধ্যে ব্রাক আয়োজিত ব্রাকাথন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন পলক। প্রতিমন্ত্রী বলেন,”আগে আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ডিজিটাল ল্যাব ছিল না, কিন্তু ডিজিটাল বাংলাদেশ ইশতেহার ঘোষণার পর আমরা সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ৯ হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব প্রতিষ্ঠা করেছি। এছাড়া ৬ষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত আইসিটি বিষয়কে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ইন্টারনেট এখন মানুষের মৌলিক চাহিদার মত, আগে মানুষের মৌলিক চাহিদা ছিল পাঁচটি, কিন্তু বর্তমান সময়ে ইন্টারনেট মানুষের মৌলিক চাহিদার মধ্যে অন্তর্গত হয়েছে। জুনায়েদ আহমেদ পলক এমপি বলেন,সরকার ইন্টারনেট সেবাকে মানুষের দোড় গোড়ায় পৌছে দিতে পর্যাক্রমে প্রতিটি গ্রামে ইন্টারনেট সেবা পৌছে দিতে কাজ করছে সরকার। প্রতিমন্ত্রী বলেন,আমরা ঝুঁকি নেওয়ার জাতি, আমরা অনেক ঝুঁকি নিয়েছি , বিভিন্ন সমস্যা সমাধানও করেছি। এখন আমাদের উচিত তরুণদের অণুপ্রাণিত করা তাদের শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠানো নয়, তাদেরকে ভোকেশনাল ট্রেনিং এর মাধ্যমে দক্ষ করে তোলা যাতে তারা দক্ষতা দিয়ে কাজ করতে পারে। অনুষ্ঠানে পাঁচটি দলকে বিজয়ী ঘোষনা করা হয়েছে। সামাজিক সমস্যা সমাধানের ধারণা দিয়ে বিজয়ী হয় তারা। তাদের পুরস্কার হিসেবে ৪ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ ডেল এর পক্ষ থেকে ল্যাপটপ,গ্রামীণফোন এর পক্ষ থেকে ইনকিউবেটর সেন্টারে জায়গা দেয়া হবে। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ব্রাকের অ্যাডভোকেসি ফর সোশ্যাল চেঞ্জ এর পরিচালক কে এম মোর্শেদ,গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি,ডেল এর ভাইস প্রেসিডেন্ট অফ এশিয়া ইমার্জিং মার্কেট ও সাউথ এশিয়া এন্ড স্মল কে আনথাই। ব্রাকাথনে টেকনোলজি প্রোগ্রাম ছিল ডেল টেকনোলজিস।