ঢাকা ১০:৫৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম ঢাকা’র সভাপতি সাজ্জাদ সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ নির্বাচিত ভর্তুকি দিয়ে গ্যাস বিদ্যুৎ ও দ্রব্যমূল্য কমানোর দাবিতে সমাবেশ ও মিছিল “সফল সংগঠক হিসেবে ‘সাকসেস এ্যাওয়ার্ড-২০২৪’ পাচ্ছেন ব্যারিস্টার সাইফুর রহমান “ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের নব নির্বাচিত সভাপতি মনিরুল ইসলাম ,এবং সাধারণ সম্পাদক নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল সাংবাদিক নাসির উদ্দীন বাবুলের ইন্তেকাল। দুমকিতে আন্তঃ উপজেলা ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। মুন্সীগঞ্জ পৌর নির্বাচনে আমিরুল ইসলাম এর নির্দেশে জগ মার্কার গনসংযোগ রাজধানীর বেইলি রোডে আগুন লাগার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেন। “গুলশানে বিশ্বমানের জুয়েলারী শোরুম চালু করছে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড” ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চিটাগাং রোড সিমরাইল ট্রাক ও ইজিবাইকের সংঘর্ষে এক বৃদ্ধার মৃত্যু ও আহত ২

কুলপি মালাই বিক্রয় করে সাবলম্বী বাবুল হোসেন

মো: শহিদুল ইসলাম,কোটচাঁদপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি:বাবুল হোসেন কুলপি মালাই বিক্রেতা।সদাহাস্যেৎজ্বল, চোঁখেমুখে আনন্দের ফল্গুধারা, দেখে বুঝার উপায় নেই বাবুল হোসেন একজন হত দরিদ্র কলপি মালাই বিক্রেতা।বাছের শেখ এর ৫ পুত্র সন্তান।বাবুল হোসেন তাদের একজন। অভাবী সংসার কিন্তু সুখের কমতি ছিলো না। কুষ্টিয়ার শিলাইদহে বাবুল হোসেনের পৈতিক ভিটা।দিনমজুর করে তাদের সংসার চলতো।সংসারের অভাব আর দিনমজুরের কাজ তা ভাল লাগতো না বাবুল হোসেনের। মনে মনে সব সময় নিজের স্বাধীন ভাবে কাজ করা তার বাসনা ছিল।হঠাৎ একদিন তার ফুপাতো বুনাই মফিজুর এর কথোপকথনে ফেরি করে কুলপি মালাই এর ব্যবসায়ী কাজে লেগে পড়েন।জীবিকার সন্ধানে চলে আসেন ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে।বিয়ে করেন পৌর শহরের রুদ্রপুর গ্রামে পলি খাতুনকে।সুখের সংসারে বাবুল হোসেন ও পলি খাতুনের দাম্পত্য জীবনের কোলজুঁড়ে আসে ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে।বাবুল হোসেন জানায় কুলপি মালাই বিক্রয় করে প্রতিদিন ৫/৬ শত টাকা তাঁর আয়। এই কুলপি মালাই বিক্রয় করে তার সংসারের ভরনপোষণ শেষে রুদ্রপুর গ্রামে প্রায় ৪ শতক জমি ক্রয় করে বাবুল হোসেন বসতভিটা বানিয়ে সেখানে পরিবার নিয়ে আনন্দে দিনযাপন করছেন।ইতিমধ্যে বড় ছেলে কে বিবাহ দিয়েছেন। ১ছেলে তামিম ও ১ মেয়ে তানিয়া লেখাপড়ায় ব্যস্ত। বাবুলের স্বপ্ন ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া করাবেন।তাঁরা চাকুরী করবেন। অনেক স্বপ্ন দেখেন বাবুল হোসেন তাঁর সন্তানদের নিয়ে।কুলপি মালাই বিক্রয় করে বাবুল হোসেন প্রতিমাসে ১৫ – ১৮ হাজার টাকা আয় করেন। দৈনন্দিন অভাবের সেই সংসারে এখন সুখের ঢেউ। দুধ, চিনি আর হালকা কনফিলোয়ার তৈরি করে ১ টা কলপি মালাইয়ে ২-৩ টাকা খরচ হয়। সেখানে কুলপি মালাই প্রতি বিক্রয় করেন ৫/ ১০/২০/২৫ / ৩০ টাকা হারে । তবে মাঝে মাঝে দুধের দাম বেশি হলে বা বর্ষাকালে নানা সমস্যায় পড়তে হয়। সব মিলিয় বাবুল হোসেন জানালেন, সৎ ও হালাল রিজিক আর পরিশ্রমে সে এই কুলপি মালাই বিক্রয় ২০ বছরের সংসার জীবনে খুব ভাল আছেন এবং বাকী জীবনটা সুস্হ শরীরে এই ব্যবসা করে কাটাতে চান।

Tag :

জনপ্রিয় সংবাদ

কুমিল্লা সাংবাদিক ফোরাম ঢাকা’র সভাপতি সাজ্জাদ সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ নির্বাচিত

কুলপি মালাই বিক্রয় করে সাবলম্বী বাবুল হোসেন

আপডেট টাইম ০৪:৩৯:১৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০১৯

মো: শহিদুল ইসলাম,কোটচাঁদপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি:বাবুল হোসেন কুলপি মালাই বিক্রেতা।সদাহাস্যেৎজ্বল, চোঁখেমুখে আনন্দের ফল্গুধারা, দেখে বুঝার উপায় নেই বাবুল হোসেন একজন হত দরিদ্র কলপি মালাই বিক্রেতা।বাছের শেখ এর ৫ পুত্র সন্তান।বাবুল হোসেন তাদের একজন। অভাবী সংসার কিন্তু সুখের কমতি ছিলো না। কুষ্টিয়ার শিলাইদহে বাবুল হোসেনের পৈতিক ভিটা।দিনমজুর করে তাদের সংসার চলতো।সংসারের অভাব আর দিনমজুরের কাজ তা ভাল লাগতো না বাবুল হোসেনের। মনে মনে সব সময় নিজের স্বাধীন ভাবে কাজ করা তার বাসনা ছিল।হঠাৎ একদিন তার ফুপাতো বুনাই মফিজুর এর কথোপকথনে ফেরি করে কুলপি মালাই এর ব্যবসায়ী কাজে লেগে পড়েন।জীবিকার সন্ধানে চলে আসেন ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে।বিয়ে করেন পৌর শহরের রুদ্রপুর গ্রামে পলি খাতুনকে।সুখের সংসারে বাবুল হোসেন ও পলি খাতুনের দাম্পত্য জীবনের কোলজুঁড়ে আসে ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে।বাবুল হোসেন জানায় কুলপি মালাই বিক্রয় করে প্রতিদিন ৫/৬ শত টাকা তাঁর আয়। এই কুলপি মালাই বিক্রয় করে তার সংসারের ভরনপোষণ শেষে রুদ্রপুর গ্রামে প্রায় ৪ শতক জমি ক্রয় করে বাবুল হোসেন বসতভিটা বানিয়ে সেখানে পরিবার নিয়ে আনন্দে দিনযাপন করছেন।ইতিমধ্যে বড় ছেলে কে বিবাহ দিয়েছেন। ১ছেলে তামিম ও ১ মেয়ে তানিয়া লেখাপড়ায় ব্যস্ত। বাবুলের স্বপ্ন ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া করাবেন।তাঁরা চাকুরী করবেন। অনেক স্বপ্ন দেখেন বাবুল হোসেন তাঁর সন্তানদের নিয়ে।কুলপি মালাই বিক্রয় করে বাবুল হোসেন প্রতিমাসে ১৫ – ১৮ হাজার টাকা আয় করেন। দৈনন্দিন অভাবের সেই সংসারে এখন সুখের ঢেউ। দুধ, চিনি আর হালকা কনফিলোয়ার তৈরি করে ১ টা কলপি মালাইয়ে ২-৩ টাকা খরচ হয়। সেখানে কুলপি মালাই প্রতি বিক্রয় করেন ৫/ ১০/২০/২৫ / ৩০ টাকা হারে । তবে মাঝে মাঝে দুধের দাম বেশি হলে বা বর্ষাকালে নানা সমস্যায় পড়তে হয়। সব মিলিয় বাবুল হোসেন জানালেন, সৎ ও হালাল রিজিক আর পরিশ্রমে সে এই কুলপি মালাই বিক্রয় ২০ বছরের সংসার জীবনে খুব ভাল আছেন এবং বাকী জীবনটা সুস্হ শরীরে এই ব্যবসা করে কাটাতে চান।