ঢাকা ০৩:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সাইনবোর্ডে আগুন জ্বালিয়ে অটোরিকশা চালকদের বিক্ষোভ “দেশীয় সফটওয়্যারে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের প্রত্যয়ে শপথ নিল বেসিসের নতুন কার্যনির্বাহী পরিষদ” রাজশাহী গোদাগাড়ী অঞ্চলে পুকুর সংস্কারের নামে প্রশাসনকে যেভাবে বোকা বানাচ্ছে অবৈধ পুকুর ব্যবসায়ীরা চট্টগ্রামে দ্বিতীয় ধাপে হাটহাজারী ও রাঙ্গুনিয়ায়-ফটিকছড়ি উপজেলায় ভোট আজ “অ্যালায়েন্স ফাইন্যান্স ও কনকর্ড রিয়েল এস্টেটের সাথে চুক্তি সই” গজারিয়ায় সাংবাদিকের উপর হামলা, থানার সামনে সাংবাদিকদের অবস্থান কর্মসূচি গত ১৯শে মে রাত ১১ টায় সাইনবোর্ড লিংকরোডে অটো সিএনজি ভাঙচুর বাকেরগঞ্জের এমপি হাফিজ মল্লিকের উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় দিশেহারা একটি কুচক্রী মহল।। টাঙ্গাইলে উপজেলা নির্বাচনের ৩য় ও ৪র্থ ধাপের প্রার্থীদের সাথে মতবিনিময় টাঙ্গাইলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে আইন-শৃংখলা রক্ষার্থে নির্বাচনী ব্রিফিং অনুষ্ঠিত

কেএমপি’র লবণচরা থানা পুলিশের চৌকস টিম কর্তৃক ১২ (বার) পিস স্বর্ণের বার উদ্ধারপূর্বক ০১ জন গ্রেফতার।

ওয়াহিদ মুরাদ, খুলনা প্রতিনিধি–

আজ ২০ এপ্রিল ২০২৪ খ্রি: দুপুরে লবণচরা থানার একটি চৌকস টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, ঢাকা থেকে সাতক্ষীরার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা টুংগীপাড়া এক্সপ্রেসে (ঢাকা মেট্রো-ব-১৫-৯০৩৩) একজন ব্যক্তি সন্দেহজনক কোন বস্তু বহন করে নিয়ে যাচ্ছে। অতঃপর জিরোপয়েন্ট মোড়স্থ খুলনা সাতক্ষীরা মহাসড়কের পাশে রূপকথা রেষ্টুরেষ্টের সামনে পাঁকা রাস্তার উপর টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেস পরিবহন থামিয়ে কেএমপি’র ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, বিপিএম-সেবা; সহকারী পুলিশ কমিশনার (খুলনা জোন) গোপীনাথ কানজিলাল; লবণচরা থানার অফিসার ইনচার্জ মমতাজুল হক এবং এসআই (নি:) প্রদীপ বৈদ্য সহ সঙ্গীয় ফোর্স, স্থানীয় জনগণ এবং সাংবাদিকের সম্মুখে বাসটি তল্লাশি করা হয়।

পরবর্তীতে টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেস পরিবহনের বিভিন্ন স্থান এবং যাত্রীদের চেক করাকালে মাসুম বিল্লাহ (২৮), পিতা-মোঃ আলম গাজী, মাতা-রাশিদা বেগম, সাং-শাখরা কমলপুর, থানা-দেবহাটা, জেলা-সাতক্ষীর নামক এক ব্যক্তির আচরণ ও কথাবার্তা সন্দেহজনক মনে হয়। অতঃপর উপস্থিত বাসযাত্রী ও জনগণের সম্মুখে প্রকাশ্যে ব্যাপকভাবে তার দেহ তল্লাশীকালে এক পর্যায়ে তার স্বীকারোক্তি মতে তার দুই পায়ে পরিহিত চকলেট রংয়ের জুতার (লোফার) ভিতরে সুকৌশলে সাজিয়ে রাখা (৬+৬)=১২ (বার) পিস স্বর্ণের বার, যার প্রতিটি স্বর্ণের বারের ওজন ১১৬.৬৫ গ্রাম প্রায় ও সর্বমোট ওজন ১৩৯৯.৭৪ গ্রাম, যার সর্বমোট মূল্য অনুমান ১,৩৪,৪০,৩০৩/-(এক কোটি চৌত্রিশ লক্ষ চল্লিশ হাজার তিনশত তিন) টাকা উদ্ধারপূর্বক উক্ত ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়।

উক্ত গ্রেফতারকৃত স্বর্ণ চোরা চালানকারী মাসুম বিল্লাহকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে জানা যায় সে দীর্ঘদিন যাবৎ এই রুটে স্বর্ণ পাচারের সাথে জড়িত। এর পূর্বেও সে পাঁচবার এই রুট ব্যবহার করে স্বর্ণের চালান পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে পাচার করেছে।

উল্লেখ্য যে, আজকেও ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে স্বর্ণের বার বাসযোগে সাতক্ষীরায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছিলো এবং সেখান থেকে স্বর্ণ সাতক্ষীরা বর্ডার অঞ্চল দিয়ে ভারতে পাচার করার উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। উল্লেখিত স্বর্ণ চোরাচালানের সঙ্গে আরও কে কে জড়িত আছে এবং কোথা থেকে স্বর্ণগুলো আনা হয়েছে ও কোথায় পৌঁছে দিবে সেই রহস্য উদঘাটনের জন্য গভীরভাবে অনুসন্ধান করা হচ্ছে। ইতোমধ্যেই ঢাকা ও সাতক্ষীরা প্রান্তের আরও কিছু সংশ্লিষ্ট চোরাকারবারির নাম খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের হস্তগত হয়েছে। খুব শীঘ্রই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। এ সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত স্বর্ণ চোরা চালানকারীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন ও তদন্ত কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

Tag :

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সাইনবোর্ডে আগুন জ্বালিয়ে অটোরিকশা চালকদের বিক্ষোভ

কেএমপি’র লবণচরা থানা পুলিশের চৌকস টিম কর্তৃক ১২ (বার) পিস স্বর্ণের বার উদ্ধারপূর্বক ০১ জন গ্রেফতার।

আপডেট টাইম ০২:৪৬:২৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

ওয়াহিদ মুরাদ, খুলনা প্রতিনিধি–

আজ ২০ এপ্রিল ২০২৪ খ্রি: দুপুরে লবণচরা থানার একটি চৌকস টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, ঢাকা থেকে সাতক্ষীরার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা টুংগীপাড়া এক্সপ্রেসে (ঢাকা মেট্রো-ব-১৫-৯০৩৩) একজন ব্যক্তি সন্দেহজনক কোন বস্তু বহন করে নিয়ে যাচ্ছে। অতঃপর জিরোপয়েন্ট মোড়স্থ খুলনা সাতক্ষীরা মহাসড়কের পাশে রূপকথা রেষ্টুরেষ্টের সামনে পাঁকা রাস্তার উপর টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেস পরিবহন থামিয়ে কেএমপি’র ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, বিপিএম-সেবা; সহকারী পুলিশ কমিশনার (খুলনা জোন) গোপীনাথ কানজিলাল; লবণচরা থানার অফিসার ইনচার্জ মমতাজুল হক এবং এসআই (নি:) প্রদীপ বৈদ্য সহ সঙ্গীয় ফোর্স, স্থানীয় জনগণ এবং সাংবাদিকের সম্মুখে বাসটি তল্লাশি করা হয়।

পরবর্তীতে টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেস পরিবহনের বিভিন্ন স্থান এবং যাত্রীদের চেক করাকালে মাসুম বিল্লাহ (২৮), পিতা-মোঃ আলম গাজী, মাতা-রাশিদা বেগম, সাং-শাখরা কমলপুর, থানা-দেবহাটা, জেলা-সাতক্ষীর নামক এক ব্যক্তির আচরণ ও কথাবার্তা সন্দেহজনক মনে হয়। অতঃপর উপস্থিত বাসযাত্রী ও জনগণের সম্মুখে প্রকাশ্যে ব্যাপকভাবে তার দেহ তল্লাশীকালে এক পর্যায়ে তার স্বীকারোক্তি মতে তার দুই পায়ে পরিহিত চকলেট রংয়ের জুতার (লোফার) ভিতরে সুকৌশলে সাজিয়ে রাখা (৬+৬)=১২ (বার) পিস স্বর্ণের বার, যার প্রতিটি স্বর্ণের বারের ওজন ১১৬.৬৫ গ্রাম প্রায় ও সর্বমোট ওজন ১৩৯৯.৭৪ গ্রাম, যার সর্বমোট মূল্য অনুমান ১,৩৪,৪০,৩০৩/-(এক কোটি চৌত্রিশ লক্ষ চল্লিশ হাজার তিনশত তিন) টাকা উদ্ধারপূর্বক উক্ত ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়।

উক্ত গ্রেফতারকৃত স্বর্ণ চোরা চালানকারী মাসুম বিল্লাহকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে জানা যায় সে দীর্ঘদিন যাবৎ এই রুটে স্বর্ণ পাচারের সাথে জড়িত। এর পূর্বেও সে পাঁচবার এই রুট ব্যবহার করে স্বর্ণের চালান পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে পাচার করেছে।

উল্লেখ্য যে, আজকেও ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে স্বর্ণের বার বাসযোগে সাতক্ষীরায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছিলো এবং সেখান থেকে স্বর্ণ সাতক্ষীরা বর্ডার অঞ্চল দিয়ে ভারতে পাচার করার উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। উল্লেখিত স্বর্ণ চোরাচালানের সঙ্গে আরও কে কে জড়িত আছে এবং কোথা থেকে স্বর্ণগুলো আনা হয়েছে ও কোথায় পৌঁছে দিবে সেই রহস্য উদঘাটনের জন্য গভীরভাবে অনুসন্ধান করা হচ্ছে। ইতোমধ্যেই ঢাকা ও সাতক্ষীরা প্রান্তের আরও কিছু সংশ্লিষ্ট চোরাকারবারির নাম খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের হস্তগত হয়েছে। খুব শীঘ্রই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। এ সংক্রান্তে গ্রেফতারকৃত স্বর্ণ চোরা চালানকারীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন ও তদন্ত কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।