ঢাকা ১২:৫৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
গজারিয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান দুই প্রতিষ্ঠান কে অর্থদন্ড টেকপাড়া ও ইয়াকুব নগরের অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্হদের মাঝে নগর অর্থ ও বস্ত্র বিতরণ বাস ও ফুটওভার ব্রিজ মুখোমুখি সংঘর্ষ “২৬শে এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে শার্ক ট্যাংক বাংলাদেশ” –মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর এলাকা হতে ৫৩ কেজি গাঁজাসহ ০৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০; মাদক বহনে ব্যবহৃত পিকআপ জব্দ। “মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন” ইন্দুরকানীতে দিনব্যাপী পারিবারিক পুষ্টি বাগান ও বস্তায় আদা চাষ বিষয়ক প্রশিক্ষণ চট্টগ্রামে সড়ক অবরোধ করে চুয়েট শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন … লালমনিরহাটে বৃষ্টির জন‍্য বিশেষ নামাজ আদায় মিছিল ও শোডাউন করায় মতলব উত্তর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে মানিক দর্জিকে শোকজ

অনিশ্চিত গন্তব্যে,করোনায় আর্থিক অস্বচ্ছল পরিবারের হাল ধরার চেষ্টায় শিশুকূল

মোস্তাফিজুর রিপোর্টার চট্টগ্রামঃ

বৈশ্বিক মহামারির করোনাভাইরাস বিশ্বময় কতো যে ছন্দ-পতন ঘটিয়েছে তার ইয়াত্তা সঠিক কারো কাছে জানা না থাকলেও প্রাথমিক ভাবে কিছু চিত্র দেখলেই অনুমান করে বলা যায় বাংলাদেশও কতো পিছিয়ে পড়েছে।

বানিজ্যিক রাজধানীখ্যাত চট্টগ্রামের অত্যন্ত ঘনবসতি এলাকা আগ্রাবাদ-জাম্বুরী মাঠ তথা সিডিএ,হালিশহর এলাকায় প্রতিদিন স্বল্প আয়ের মানুষের নানান সমস্যা মা ওশিশু হাসপাতালে গেলেই পথে , ফুটপাতে অথবা মূল সড়কের পাশে দেখা মিলে নতুন,নতুন পেশার মানুষকে। তেমনি কিছু শিশুর বৈচিত্র ব্যবসার পশরা দেখে কথা বলার চেষ্টা করি।

নিজের বাম পা চিকিৎসা করাতে গিয়ে হাসপাতালের ২য় গেট সংলগ্ন পথের ধারেই তিন শিশু-তারেক(০৮) সাজু-১০এবং সুজন-১১এর সাথে । অনেক চেষ্টার পর কথা বলতেই শিশু সুজন জানালেন, তারা হাসপাতালের পাশে গলিস্থ রহিম কলোনীতে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন।

তারা কেউ নোয়াখালী, কেউ বরিশাল অঞ্চলের বাসিন্দা।
”করোনাভাইরাস”জনিত কারণে পরিবারের বাবা-মার আয় কমেছে,তাই তো পথের ধারে বসে মাস্ক বিক্রি করে কিছুটা বাঁচার আকুতি বা সংসারের হাল ধরার চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন।
তারা মাস্ক গুলো ৫-১০টাকা২০-৪০টাকায় বিক্রি করে দৈনিক ১৫০-২০০টাকা আয় করে সংসারের ব্যয়ে সহায়তা করছেন।

স্কুলে যাই কিনা জিজ্ঞেস করলে, তারা তিনজনেই বলেন-এখন স্কুল মাদ্রাসা বন্ধ থাকায়এই পেশা নিয়ে কিছুটা অভাব মেঠানোর চেষ্টাও হচ্ছে।আবার তারা ঐ এলাকায় একটি বে=সরকারী এনজিওর অধীনে সপ্তাহে ২/৩দিন পথস্কুলেও পড়ালেখা শিখেন বলে জানাই।

একটি তথ্য প্রতিবেদনে প্রকাশ হয় যে, করোনায় দেশে ৩কোটি লোক দরিদ্র সীমার নিচে,এর মধ্যে শিশু৪০লাখ বৃদ্ধ৫০লাখ এবং প্রান্তিক জনগোষ্টির প্রায় ১কোটি সহ নিম্ম-মধ্যবৃত্ত মিলে এই দরিদ্রতা অবস্থানে বলে প্রতিবেদনের উল্লেখ আছে। আর ইউনুসেফ,জাতিসংঘের তথ্য অনুয়ায়ী দেশে ১কোটির অধিক শিশু করোনায় শিক্ষা বঞ্চিত,অভুক্ত আর রোগে আক্রান্ত হয়ে মানবেতর জীবণে আছেন বলে শিশু ফোরাম সূত্রে জানান।

এই অবস্থায় শিশুদের কর্মময় শিক্ষা-প্রাথমিক শিক্ষা ও পরিবার নির্ভর রাখতে না পারলে দেশে চরম ভাবে শিশু শ্রম, কিশোর অপরাধ, বাল্য বিবাহ এবং শিশু পাচার বেড়ে যেতে পারে বলে অভিঞ্জ মহল ধারণা করে বলছেন।

Tag :

জনপ্রিয় সংবাদ

গজারিয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান দুই প্রতিষ্ঠান কে অর্থদন্ড

অনিশ্চিত গন্তব্যে,করোনায় আর্থিক অস্বচ্ছল পরিবারের হাল ধরার চেষ্টায় শিশুকূল

আপডেট টাইম ০৬:২৪:০৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ নভেম্বর ২০২১

মোস্তাফিজুর রিপোর্টার চট্টগ্রামঃ

বৈশ্বিক মহামারির করোনাভাইরাস বিশ্বময় কতো যে ছন্দ-পতন ঘটিয়েছে তার ইয়াত্তা সঠিক কারো কাছে জানা না থাকলেও প্রাথমিক ভাবে কিছু চিত্র দেখলেই অনুমান করে বলা যায় বাংলাদেশও কতো পিছিয়ে পড়েছে।

বানিজ্যিক রাজধানীখ্যাত চট্টগ্রামের অত্যন্ত ঘনবসতি এলাকা আগ্রাবাদ-জাম্বুরী মাঠ তথা সিডিএ,হালিশহর এলাকায় প্রতিদিন স্বল্প আয়ের মানুষের নানান সমস্যা মা ওশিশু হাসপাতালে গেলেই পথে , ফুটপাতে অথবা মূল সড়কের পাশে দেখা মিলে নতুন,নতুন পেশার মানুষকে। তেমনি কিছু শিশুর বৈচিত্র ব্যবসার পশরা দেখে কথা বলার চেষ্টা করি।

নিজের বাম পা চিকিৎসা করাতে গিয়ে হাসপাতালের ২য় গেট সংলগ্ন পথের ধারেই তিন শিশু-তারেক(০৮) সাজু-১০এবং সুজন-১১এর সাথে । অনেক চেষ্টার পর কথা বলতেই শিশু সুজন জানালেন, তারা হাসপাতালের পাশে গলিস্থ রহিম কলোনীতে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন।

তারা কেউ নোয়াখালী, কেউ বরিশাল অঞ্চলের বাসিন্দা।
”করোনাভাইরাস”জনিত কারণে পরিবারের বাবা-মার আয় কমেছে,তাই তো পথের ধারে বসে মাস্ক বিক্রি করে কিছুটা বাঁচার আকুতি বা সংসারের হাল ধরার চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন।
তারা মাস্ক গুলো ৫-১০টাকা২০-৪০টাকায় বিক্রি করে দৈনিক ১৫০-২০০টাকা আয় করে সংসারের ব্যয়ে সহায়তা করছেন।

স্কুলে যাই কিনা জিজ্ঞেস করলে, তারা তিনজনেই বলেন-এখন স্কুল মাদ্রাসা বন্ধ থাকায়এই পেশা নিয়ে কিছুটা অভাব মেঠানোর চেষ্টাও হচ্ছে।আবার তারা ঐ এলাকায় একটি বে=সরকারী এনজিওর অধীনে সপ্তাহে ২/৩দিন পথস্কুলেও পড়ালেখা শিখেন বলে জানাই।

একটি তথ্য প্রতিবেদনে প্রকাশ হয় যে, করোনায় দেশে ৩কোটি লোক দরিদ্র সীমার নিচে,এর মধ্যে শিশু৪০লাখ বৃদ্ধ৫০লাখ এবং প্রান্তিক জনগোষ্টির প্রায় ১কোটি সহ নিম্ম-মধ্যবৃত্ত মিলে এই দরিদ্রতা অবস্থানে বলে প্রতিবেদনের উল্লেখ আছে। আর ইউনুসেফ,জাতিসংঘের তথ্য অনুয়ায়ী দেশে ১কোটির অধিক শিশু করোনায় শিক্ষা বঞ্চিত,অভুক্ত আর রোগে আক্রান্ত হয়ে মানবেতর জীবণে আছেন বলে শিশু ফোরাম সূত্রে জানান।

এই অবস্থায় শিশুদের কর্মময় শিক্ষা-প্রাথমিক শিক্ষা ও পরিবার নির্ভর রাখতে না পারলে দেশে চরম ভাবে শিশু শ্রম, কিশোর অপরাধ, বাল্য বিবাহ এবং শিশু পাচার বেড়ে যেতে পারে বলে অভিঞ্জ মহল ধারণা করে বলছেন।