মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:২৭ পূর্বাহ্ন

সারাদেশে ভোটগ্রহণ শুরু

মাতৃভূমির খবর ডেস্কঃ  শীতের তীব্রতাকে পায়ে ঠেলে দেশে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনায় একযোগে শুরু হয়েছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ । আজ রোববার সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ বিরতিহীনভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে।

এবারই প্রথম নিবন্ধিত ৩৯টি রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। সারাদেশের প্রায় ১০ কোটি সাড়ে ৪২ লাখ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। আগামী পাঁচ বছরের জন্য দেশের শাসনভার তুলে দিতে তারা জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করবেন।

প্রার্থীর মৃত্যুজনিত কারণে গাইবান্ধা-৩ আসন বাদে জাতীয় সংসদের ২৯৯টি আসনে আজ রবিবার ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এই নির্বাচনে ৩৯টি রাজনৈতিক দল অংশ নিলেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে মূলত আওয়ামী লীগ (নৌকা) ও বিএনপির (ধানের শীষ) মধ্যে। ভোটে আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব দিচ্ছে মহাজোটের। ১৪ দলীয় জোটের নেতৃত্বেও আছে দলটি। আর বিএনপি আছে ২০ দলের নেতৃত্বে ও ড. কামাল হোসেনের জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান শরিক হিসেবে। সাধারণ মানুষের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু হলো কারা পরবর্তী পাঁচ বছরের জন্য দেশ পরিচালনার দায়িত্বে আসছে, রাষ্ট্রক্ষমতায় আসছে।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, এবার ২৯৯টি আসনে ৩৯টি রাজনৈতিক দল ও ১ হাজার ৮৬১ প্রার্থী এ নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। এর মধ্যে রাজনৈতিক দলের প্রার্থী ১ হাজার ৭৩৩ জন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ১২৮ জন। একজন প্রার্থী মারা যাওয়ায় গাইবান্ধা-৩ আসনে ২৭ জানুয়ারি ভোটের পুনঃতফসিল ঘোষণা করা হয়েছে।

এবারের নির্বাচনে বাংলাদেশের ৮১টি পর্যবেক্ষক সংস্থার ৩৪ হাজারের বেশি পর্যবেক্ষক আবেদন করে। তবে ইসি অনুমোদন দিয়েছেন ২৫ হাজার ৯০০ জনকে। এছাড়া ওআইসি, কমনওয়েলথসহ কয়েকটি সংস্থার ইসির আমন্ত্রিত ও স্বেচ্ছায় আসা ৩৮ জন বিদেশি পর্যবেক্ষক থাকছেন। এছাড়া কূটনৈতিক ও বিদেশি মিশনের ৬৪ কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশস্থ দূতাবাস, হাইকমিশন ও বিদেশি সংস্থায় নিয়োজিত ৬১ জন বাংলাদেশি কর্মকর্তা পর্যবেক্ষণে থাকবেন।

নির্বাচন উপলক্ষে শুক্রবার মধ্যরাত থেকে মোটরসাইকেল ও আজ শনিবার মধ্যরাত থেকে সব ধরনের যানবাহন চলাচলে বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে কমিশনের অনুমোদিত পরিচয়পত্রধারীদের মোটরসাইকেল ও গাড়ি চলাচল করবে।

এদিকে ভোট গ্রহণে টাকার লেনদেন বন্ধে শুক্রবার বিকাল ৫টা থেকে ৩০ ডিসেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত মোবাইল ও এজেন্ট ব্যাংকিং বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কোন দলের কত প্রার্থী :  নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের তথ্য অনুসারে, রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ২৬০ আসনে। বিএনপির প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ২৫৭ আসনে। সবচেয়ে বেশি ২৯৮ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থীরা। অন্য দলগুলোর মধ্যে জাতীয় পার্টি ১৭৫, এলডিপি আট আসনে (চার আসনে ধানের শীষ প্রতীকে), জাতীয় পার্টি-জেপি ১১, বাংলাদেশ সাম্যবাদী দল (এমএল) দুই, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ আট (তিন আসনে ধানের শীষে), বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) ৭৪, গণতন্ত্রী পার্টি ছয়, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি ৯,  বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি আট (পাঁচ আসনে নৌকা প্রতীকে), বিকল্পধারা বাংলাদেশ ২৬ (তিন আসনে নৌকা প্রতীকে), জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ ১১ (তিন আসনে নৌকা প্রতীকে), জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি ১৯, (চার আসনে ধানের শীষে), জাকের পার্টি ৯০, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ ৪৪, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপি তিন (এক আসনে ধানের শীষে), তরীকত ফেডারেশন ১৭ (এক আসনে নৌকা প্রতীকে), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন ২৪, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ ৪৮, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি) ৭৯, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ আট (তিন আসনে ধানের শীষে), গণফোরাম ২৮ (সাত আসনে ধানের শীষে), গণফ্রন্ট ১৩, প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল  ১৪, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ তিন, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি ১১, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ ১৮, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি দুই (এক আসনে ধানের শীষ), ইসলামী ঐক্যজোট ২৫, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস পাঁচ, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট ২৫, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি চার, বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি ২৮,  খেলাফত মজলিস ১২ (দুই আসনে ধানের শীষে), বাংলাদেশ মুসলিম লীগ-বিএমএল এক, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট দুই এবং বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ ৫৭ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছে।

ভোটের নিরাপত্তা : এবারের নির্বাচনের নিরাপত্তার জন্য সশস্ত্র বাহিনীসহ বিভিন্ন বাহিনীর প্রায় সাত লাখ সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। নির্বাচন পরিচালনায় মোট ছয় লাখ ৬২ হাজার ৭১৩ জন কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছেন। এ নির্বাচনে আচরণবিধি প্রতিপালন নিশ্চিত করার জন্য ৬৫২ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্সের জন্য ৬৭৬ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট,  নির্বাচনী অপরাধের সংক্ষিপ্ত বিচারকাজ পরিচালনার জন্য ৬৪০ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, ১২২টি নির্বাচনী তদন্ত কমিটিতে ২৪৪ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্বে রয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন





সর্বস্বত্ব © ২০১৯ মাতৃভূমির খবর কর্তৃক সংরক্ষিত

Design & Developed BY ThemesBazar