ঢাকা ০৯:০২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
জনগনের বন্ধুঃ আলহাজ্ব আজমল হোসেন মুক্তা জাসদের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত কুলাউড়ার মইনুল ইসলাম শামীম পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে পানিতে ডুবে রিফাত নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে নড়াইলে সুবাস বোসের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরন বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন থানায় অভিযোগ দায়ের- নির্বাচনে সব দলের অংশ গ্রহণ নিশ্চিতে আমরা শেষ দিন পর্যন্ত চেষ্টা করবো- কৃষিমন্ত্রী বরিশালে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্ভোধন গজারিয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন উপলক্ষে- আবুল কাশেম এর নেতৃত্বে বিশাল শোডাউন টাঙ্গাইলে হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীমকে সংবর্ধনা উলিপুরে “অম্বিকাচরণ রায় শিক্ষা বৃত্তি” প্রদান

শুনুন শুকনো শ্যাম্পুর কথা

চুল পরিষ্কার রাখতে আর নিয়মিত যত্নে শ্যাম্পুর বিকল্প নেই। সপ্তাহে ২ থেকে ৩ দিন চুলে শ্যাম্পু করতেই হয়। কিন্তু ব্যস্ততার কারণে চুল পরিষ্কার করতে না পারলে বিকল্পও আছে। চাইলেই যেকোনো সময়ে ৫ মিনিটে পেয়ে যাবেন ঝরঝরে চুল। এ জন্য লাগবে ড্রাই শ্যাম্পু।
নানা রকম কাজে বাইরে যেতে হয়। তাই চুলে ধুলাবালু লাগবেই। কিউবেলার রূপবিশেষজ্ঞ ফারজানা মুন্নী বলেন, ড্রাই শ্যাম্পুর কাজ হচ্ছে পানি ছাড়া চুল পরিষ্কার করা। স্প্রে বা গুঁড়া শুকনো বা ড্রাই শ্যাম্পু চুলের গোড়ায় দিয়ে ৫ মিনিট অপেক্ষা করলেই তা চুলের তৈলাক্তভাব ও ময়লা শুষে নেয়। এমনকি চুলে ভলিউম আনতে ড্রাই শ্যাম্পু দিয়ে চুল বেঁধে রাখতে হবে।
যাঁদের চুল খুব বেশি ঘামে ও গন্ধ হয়, তাঁদের জন্যও ড্রাই শ্যাম্পু দারুণ কাজ করে। কারণ, এটি ঘাম ও আঠালো ভাব কমানোর সঙ্গে সঙ্গে সুগন্ধও এনে দেয়।
অনেকেরই কম বয়সে চুলে পাক ধরে। তাদের সুবিধার জন্য বাজারে এমন ড্রাই শ্যাম্পুও আছে, যা চুল পরিষ্কার করার পাশাপাশি চুলে রং এনে দেয়।
চুল পরিষ্কার করতে এই শ্যাম্পু করে ২ দিন পর ধুয়ে ফেলা যায়। আর ভালো ব্র্যান্ডের ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুলের ক্ষতি হবে না।
গরমে ড্রাই শ্যাম্পু সবচেয়ে বেশি দরকার বলে মনে করেন ফারজানা মুন্নী। আমাদের দেশের আবহাওয়ায় যখন গরম থাকে, তখন চুল বেশি ঘামে ও ময়লা হয়। তবে যাঁদের তৈলাক্ত চুল, তাঁদের শীতের সময়েও চুলে ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করা প্রয়োজন।
ড্রাই শ্যাম্পু ব্যহারের জন্য কোনো প্রস্তুতিই নিতে হবে না। শুধু চুল ভাগ ভাগ করে গোড়ায় ব্যবহার করে চুলটা আঁচড়ে নিলেই পাওয়া যায় ঝরঝরে পরিষ্কার চুল। তবে চুলের ডগায় বা মাঝখানে এটি ব্যবহার করা যাবে না। চুল ভেজা থাকলেও ড্রাই শ্যাম্পুর ব্যবহার বারণ। পানিতে এটি কাজ করে না।
এই শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুল প্রথমে সাদা হয়ে যায়। তবে ভয়ের কিছু নেই, পাঁচ মিনিট পর চুলে স্বাভাবিক রং চলে আসবে।

সতর্কতা
ঢাকা মেডিকেল কলেজের চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের অধ্যাপক মাসুদা খাতুন বলেন, সবার মাথার ত্বক এক রকম হয় না। শুষ্ক ত্বকে খুশকির প্রবণতা বেশি, তাই নিয়মিত ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার না করাই ভালো। অন্যদিকে শীতকালেও ত্বকে রুক্ষতা আসে। সে সময়েও বুঝেশুনে শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে। যাঁদের মাথার ত্বকে অ্যালার্জি রয়েছে, তাঁদের এই শ্যাম্পু ব্যবহার না করাই ভালো। ড্রাই শ্যাম্পু ছোটদের চুলে ব্যবহার করা যাবে না।
সাধারণত ড্রাই শ্যাম্পু ক্ষতি করে না। তবে কারও মাথার ত্বক যদি খুব স্পর্শকাতর হয় বা অ্যালার্জি থাকে, তবে সঙ্গে সঙ্গে এই শ্যাম্পুর ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়া উচিত। ড্রাই শ্যাম্পু কোনোভাবেই মাথা ছাড়া অন্য জায়গা, ত্বকে বা চোখে যেন না লাগে। সপ্তাহে তিন বারের বেশি এটি ব্যবহার করা উচিত নয়। কারণ, ড্রাই শ্যাম্পু বেশি ব্যবহার করলে চুল শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে যেতে পারে।
বাজারে এখন বেশ কিছু ড্রাই শ্যাম্পু পাওয়া যায়। যার মধ্যে বাম্বেল অ্যান্ড বাম্বেল, লিভিইং প্রুফ, ট্রেসেমে ফ্রেশ স্টার্ট, বি ব্লান্ট ব্যাক টু লাইফ ইত্যাদি ব্র্যান্ডের ড্রাই শ্যাম্পু রয়েছে।

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

জনগনের বন্ধুঃ আলহাজ্ব আজমল হোসেন মুক্তা

শুনুন শুকনো শ্যাম্পুর কথা

আপডেট টাইম ০১:১৫:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

চুল পরিষ্কার রাখতে আর নিয়মিত যত্নে শ্যাম্পুর বিকল্প নেই। সপ্তাহে ২ থেকে ৩ দিন চুলে শ্যাম্পু করতেই হয়। কিন্তু ব্যস্ততার কারণে চুল পরিষ্কার করতে না পারলে বিকল্পও আছে। চাইলেই যেকোনো সময়ে ৫ মিনিটে পেয়ে যাবেন ঝরঝরে চুল। এ জন্য লাগবে ড্রাই শ্যাম্পু।
নানা রকম কাজে বাইরে যেতে হয়। তাই চুলে ধুলাবালু লাগবেই। কিউবেলার রূপবিশেষজ্ঞ ফারজানা মুন্নী বলেন, ড্রাই শ্যাম্পুর কাজ হচ্ছে পানি ছাড়া চুল পরিষ্কার করা। স্প্রে বা গুঁড়া শুকনো বা ড্রাই শ্যাম্পু চুলের গোড়ায় দিয়ে ৫ মিনিট অপেক্ষা করলেই তা চুলের তৈলাক্তভাব ও ময়লা শুষে নেয়। এমনকি চুলে ভলিউম আনতে ড্রাই শ্যাম্পু দিয়ে চুল বেঁধে রাখতে হবে।
যাঁদের চুল খুব বেশি ঘামে ও গন্ধ হয়, তাঁদের জন্যও ড্রাই শ্যাম্পু দারুণ কাজ করে। কারণ, এটি ঘাম ও আঠালো ভাব কমানোর সঙ্গে সঙ্গে সুগন্ধও এনে দেয়।
অনেকেরই কম বয়সে চুলে পাক ধরে। তাদের সুবিধার জন্য বাজারে এমন ড্রাই শ্যাম্পুও আছে, যা চুল পরিষ্কার করার পাশাপাশি চুলে রং এনে দেয়।
চুল পরিষ্কার করতে এই শ্যাম্পু করে ২ দিন পর ধুয়ে ফেলা যায়। আর ভালো ব্র্যান্ডের ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুলের ক্ষতি হবে না।
গরমে ড্রাই শ্যাম্পু সবচেয়ে বেশি দরকার বলে মনে করেন ফারজানা মুন্নী। আমাদের দেশের আবহাওয়ায় যখন গরম থাকে, তখন চুল বেশি ঘামে ও ময়লা হয়। তবে যাঁদের তৈলাক্ত চুল, তাঁদের শীতের সময়েও চুলে ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করা প্রয়োজন।
ড্রাই শ্যাম্পু ব্যহারের জন্য কোনো প্রস্তুতিই নিতে হবে না। শুধু চুল ভাগ ভাগ করে গোড়ায় ব্যবহার করে চুলটা আঁচড়ে নিলেই পাওয়া যায় ঝরঝরে পরিষ্কার চুল। তবে চুলের ডগায় বা মাঝখানে এটি ব্যবহার করা যাবে না। চুল ভেজা থাকলেও ড্রাই শ্যাম্পুর ব্যবহার বারণ। পানিতে এটি কাজ করে না।
এই শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুল প্রথমে সাদা হয়ে যায়। তবে ভয়ের কিছু নেই, পাঁচ মিনিট পর চুলে স্বাভাবিক রং চলে আসবে।

সতর্কতা
ঢাকা মেডিকেল কলেজের চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের অধ্যাপক মাসুদা খাতুন বলেন, সবার মাথার ত্বক এক রকম হয় না। শুষ্ক ত্বকে খুশকির প্রবণতা বেশি, তাই নিয়মিত ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার না করাই ভালো। অন্যদিকে শীতকালেও ত্বকে রুক্ষতা আসে। সে সময়েও বুঝেশুনে শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে। যাঁদের মাথার ত্বকে অ্যালার্জি রয়েছে, তাঁদের এই শ্যাম্পু ব্যবহার না করাই ভালো। ড্রাই শ্যাম্পু ছোটদের চুলে ব্যবহার করা যাবে না।
সাধারণত ড্রাই শ্যাম্পু ক্ষতি করে না। তবে কারও মাথার ত্বক যদি খুব স্পর্শকাতর হয় বা অ্যালার্জি থাকে, তবে সঙ্গে সঙ্গে এই শ্যাম্পুর ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়া উচিত। ড্রাই শ্যাম্পু কোনোভাবেই মাথা ছাড়া অন্য জায়গা, ত্বকে বা চোখে যেন না লাগে। সপ্তাহে তিন বারের বেশি এটি ব্যবহার করা উচিত নয়। কারণ, ড্রাই শ্যাম্পু বেশি ব্যবহার করলে চুল শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে যেতে পারে।
বাজারে এখন বেশ কিছু ড্রাই শ্যাম্পু পাওয়া যায়। যার মধ্যে বাম্বেল অ্যান্ড বাম্বেল, লিভিইং প্রুফ, ট্রেসেমে ফ্রেশ স্টার্ট, বি ব্লান্ট ব্যাক টু লাইফ ইত্যাদি ব্র্যান্ডের ড্রাই শ্যাম্পু রয়েছে।