সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৫৫ অপরাহ্ন

রাজাপুরে ঘুষের বিনিময় নিয়োগ দিতে অস্বিকৃতি জানালে অধ্যক্ষের রুমে তালা ও ভাংচুর

রাজাপুর (ঝালকাঠি) প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার কেওতা ঘিগড়া ফাজিল মাদ্রাসায় অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার পদে ঘুষের টাকার বিনিময় নিয়োগ দিতে অস্বিকৃতি জানালে অধ্যক্ষ মাওলানা ওয়ালীউল্লাহ’র রুমে তালা ও মাদ্রাসার আসবাবপত্র ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে স্থানীয় প্রভাবশালী বিএনপির নেতা ও মাদ্রাসার গভনিং বডির সহ সভাপতি তালুকদার আবুল কালাম আজাদ এর ইন্ধনে স্থানীয় কিছু দুস্কৃতিকারী ও কিছু ছাত্ররা মাদ্রাসায় ডুকে মাদ্রাসার আসবাবপত্র ভাংচুর করে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এলাকাবাসী ও শিক্ষকদের সূত্রে জানাযায়, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার পদে আবুল কালাম আজাদ তার নিকটতম এক আত্মীয় ব্যাপারে অন্য লোকের মাধ্যমে নিয়োগ কমিটির দায়ীত্বে থাকা সদস্য সচিব (অধ্যক্ষ) সহ অনেকের কাছে টাকার প্রস্তাব দিলে তারা রাজি না হয়ে কোন বিনিময় ছারা স্বচ্ছ পরীক্ষা নিয়ে ১ম স্থান অধিকারকারী ব্যক্তিকে নিয়োগ দিয়েছেন। আর সেই থেকেই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদসহ হুমকি দিয়ে আসছেন। এমনকি অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার পদে নিয়োগ হওয়া হাফিজুর রহমানকে মাদ্রাসার হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করতে দেয়া হয়নি। এমনকি গত বৃহস্পতিবার (২০ জুন) মাদ্রাসায় এইচএসসি (আলিম) ১ম বর্ষের ছাত্র ছাত্রীদের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে বিএনপির নেতা আবুল কালাম আজাদের বড় ভাই ঐ প্রতিষ্ঠানের সাবেক উপাধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল হাই কে দাওয়াত না দেওয়ায় আব্দুল হাই অধ্যক্ষকে অশ্লিল ভাষায় গালমন্দ সহ বহিরাগত কিছু দুস্কৃতিকারী এসে অধ্যক্ষকে লাঞ্চিত করে এবং তাকে রুম থেকে বের করে দিয়ে তার কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয়। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সোহাগ হাওলাদার জানতে পেরে তাৎক্ষনিক আবুল কালাম আজাদসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে ডেকে তালা খুলে দেওয়া নির্দেশ দেন এবং পরবর্তিতে এমন ঘটনা না ঘটে সে ব্যাপারে সকলকে সচেতন থাকার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন। এ বিষয়ে আবুল কালাম আজাদ জানান, “নিয়োগ বোর্ডে আমিও ছিলাম নিয়োগ স্বচ্ছ হয়েছে এবং ব্যাপারে আমার কোন দ্বিমত নেই আর আমি শুনেছি মাদ্রাসায় নবীন বরণ অনুষ্ঠান অধ্যক্ষ না করতে দেওয়ায় ছাত্ররা ক্ষিপ্ত হয়ে চেয়ার টেবিল নাকি ভাংচুর করেছে।” নিয়োগ দেওয়ার বিষয়ে তখনকার মাদ্রাসার গভনিং বডির সভাপতি হিসেবে দায়ীত্বে থাকা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ ফরিদ উদ্দিন জানান, “আমি স¦চ্ছ ও মেধায় যিনি ১ম স্থান অধিকার করেছেন তাকেই নিয়োগ দিয়েছি।” এ বিষয়ে মাদ্রাসার বর্তমানে গভনিং বডির সভাপতি হিসেবে দায়ীত্বে থাকা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ আরিফুল ইসলাম জানান, আমি যতটুকু জানি ঐ নিয়োগ প্রক্রিয়াটি স্বচ্ছ ভাবে সম্পন্ন হয়েছে এবং যে ব্যক্তিটি নিয়োগ প্রাপ্ত হয়েছেন সে যাহাতে ওখানে সঠিক ভাবে কাজ করতে পারে সে ব্যাপারে আমাদের পূর্ণ সহযোগিতা রয়েছে। আর তালা লাগানোর বিষয়টি আমি শুনেছি এবং সাথে সাথে ইউএনও মহোদয়কে বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য বলে দিয়েছি।” মোঃ সাইদুল ইসলাম রাজাপুর, ঝালকাঠি

নিউজটি শেয়ার করুন





সর্বস্বত্ব © ২০১৯ মাতৃভূমির খবর কর্তৃক সংরক্ষিত

Design & Developed BY ThemesBazar