ঢাকা ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
রেকর্ড দরপতন মুদ্রার , ১ মার্কিন ডলার কিনতে হচ্ছে ২৫৫ পাকিস্তানি রুপিতে মাতৃত্বকালীন কার্ড প্রদানে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ,ইউপি সচিবসহ আটক দুই মতলব উত্তরে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জাতীয় ইমাম সম্মেলন অনুষ্ঠিত কুমিল্লা জেলা ক্রিকেট কমিটির সভাপতির পদ থেকে থেকে পদত্যাগ করেছেন সাইফুল আলম রনি কুলাউড়ায় ফাহিম স্মৃতি দ্বৈত নক আউট ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট-২০২৩, শুভ উদ্বোধনী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে পরিত্যাক্ত স্কুল ভবন থেকে ৬৮ রাউন্ড এলএমজি গুলি উদ্ধার। ফরিদগঞ্জে যাত্রা শুরু করেছে এক্স স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন অবিভাবক শূণ্যতায় অস্তিত্ব বিলিনের পথে ডাকাতিয়া রামপালে সুইডেনের দূতাবাসে পবিত্র কুরআন পোড়ানোর ঘটনায় প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত সারা দেশব্যাপী কেন্দ্রীয় ফারিয়ার ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন

মাদরাসা ছাত্র নয়, উগ্রবাদে জড়িত রাজনৈতিক সুবিধাভোগীরা: হানিফ

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, ‌‘উগ্রবাদ, ভুয়া কন্টেন্ট তৈরিতে বা সন্ত্রাসে- ইসলাম, মুসলিম, ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা কওমী মাদরাসা কোনো ভাবেই জড়িত নয়। এ সবের পেছনে রাজনৈতিক সুবিধাভোগীরা জড়িত।

মঙ্গলবার রাজধানীর বারিধারার একটি হোটেলে মুভ ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উগ্রবাদ ও ভুয়া কন্টেন্ট: চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ সব কথা বলেন তিনি।

বর্তমান সরকারের আমলে কক্সবাজারের রামু ও উখিয়ায় এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঘটনা তুলে ধরে হানিফ বলেন, ধর্মীয় উস্কানি দিয়ে এই হামলার ঘটনা ঘটানো হয়েছে। কোটা সংস্কার আন্দোলন ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় গুজব ছড়িয়ে অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরির চেষ্টা করা হয়েছে। এ সবের পেছনে রাজনৈতিক সমর্থন ও সহযোগিতা ছিল। জামায়াত করেছে, লন্ডন থেকেও এর জন্য ফোন এসেছে।

তিনি বলেন, মাদরাসা ছাত্ররা কোনো উগ্রবাদি দলে বা কর্মকাণ্ডে জড়িত নয়। জামায়াতসহ বিভিন্ন দল যারা উগ্রবাদি কর্মকাণ্ডের পর রাজনৈতিক সুবিধা পাবে, তারাই এতে জড়িত। আমাদের আগে সংগঠিত ঘটনার পেছনে উপকারভোগী কারা তা বের করতে হবে। তা হলেই কারা এতে জড়িত তা বেরিয়ে আসবে।

মত প্রকাশের স্বাধীনতা প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, যে কেউ তার নাম-পরিচয় প্রকাশ করে মত প্রকাশ করতেই পারে। তবে নাম পরিচয় গোপন করে ভুয়া আইডি থেকে অপপ্রচার বা বিভ্রান্তি ছাড়াতে পারে না। যদি কেউ এটা করে, তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। এমন বাক স্বাধীনতা আমরা চাই না- যেটা সমাজে হানাহানি সৃষ্টি করে। এমন গণতন্ত্র আমরা চাই না, যে গণতন্ত্রের নামে মানুষ পোড়ানোর মত ঘটনাও ঘটে।

সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ব্যবহারে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে হানিফ বলেন, আমাদের সামাজিক দায়বদ্ধতা থাকা উচিত। সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ব্যবহারে আরো সচেতন হওয়া উচিত। এর নেগেটিভ প্রভাবও জানা দরকার।

ড. মঞ্জুর আহমেদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন- ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিয়াউল আহসান। আলোচনায় অংশ নেন কানাডিয়ান হাইকমিশনার বিনয় প্রিপনটেইন, সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার অধ্যাপক গোলাম রহমান, ইসলামী ঐক্যজোটের নেতা মাওলানা আলতাফ হোসাইন, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ ইব্রাহীম বীর প্রতীক, বিএনপির নেতা ব্যারিস্টার সারোয়ার, আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, সাংবাদিক শ্যামল দত্ত, অজয় দাস গুপ্ত, কওমী মাদরাসা ছাত্রদের পেইজের এডমিন সালাহ উদ্দিন জাহাঙ্গীর প্রমুখ।

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

রেকর্ড দরপতন মুদ্রার , ১ মার্কিন ডলার কিনতে হচ্ছে ২৫৫ পাকিস্তানি রুপিতে

মাদরাসা ছাত্র নয়, উগ্রবাদে জড়িত রাজনৈতিক সুবিধাভোগীরা: হানিফ

আপডেট টাইম ০৯:৩৫:২৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, ‌‘উগ্রবাদ, ভুয়া কন্টেন্ট তৈরিতে বা সন্ত্রাসে- ইসলাম, মুসলিম, ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা কওমী মাদরাসা কোনো ভাবেই জড়িত নয়। এ সবের পেছনে রাজনৈতিক সুবিধাভোগীরা জড়িত।

মঙ্গলবার রাজধানীর বারিধারার একটি হোটেলে মুভ ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উগ্রবাদ ও ভুয়া কন্টেন্ট: চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ সব কথা বলেন তিনি।

বর্তমান সরকারের আমলে কক্সবাজারের রামু ও উখিয়ায় এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঘটনা তুলে ধরে হানিফ বলেন, ধর্মীয় উস্কানি দিয়ে এই হামলার ঘটনা ঘটানো হয়েছে। কোটা সংস্কার আন্দোলন ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় গুজব ছড়িয়ে অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরির চেষ্টা করা হয়েছে। এ সবের পেছনে রাজনৈতিক সমর্থন ও সহযোগিতা ছিল। জামায়াত করেছে, লন্ডন থেকেও এর জন্য ফোন এসেছে।

তিনি বলেন, মাদরাসা ছাত্ররা কোনো উগ্রবাদি দলে বা কর্মকাণ্ডে জড়িত নয়। জামায়াতসহ বিভিন্ন দল যারা উগ্রবাদি কর্মকাণ্ডের পর রাজনৈতিক সুবিধা পাবে, তারাই এতে জড়িত। আমাদের আগে সংগঠিত ঘটনার পেছনে উপকারভোগী কারা তা বের করতে হবে। তা হলেই কারা এতে জড়িত তা বেরিয়ে আসবে।

মত প্রকাশের স্বাধীনতা প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, যে কেউ তার নাম-পরিচয় প্রকাশ করে মত প্রকাশ করতেই পারে। তবে নাম পরিচয় গোপন করে ভুয়া আইডি থেকে অপপ্রচার বা বিভ্রান্তি ছাড়াতে পারে না। যদি কেউ এটা করে, তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। এমন বাক স্বাধীনতা আমরা চাই না- যেটা সমাজে হানাহানি সৃষ্টি করে। এমন গণতন্ত্র আমরা চাই না, যে গণতন্ত্রের নামে মানুষ পোড়ানোর মত ঘটনাও ঘটে।

সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ব্যবহারে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে হানিফ বলেন, আমাদের সামাজিক দায়বদ্ধতা থাকা উচিত। সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ব্যবহারে আরো সচেতন হওয়া উচিত। এর নেগেটিভ প্রভাবও জানা দরকার।

ড. মঞ্জুর আহমেদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন- ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিয়াউল আহসান। আলোচনায় অংশ নেন কানাডিয়ান হাইকমিশনার বিনয় প্রিপনটেইন, সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার অধ্যাপক গোলাম রহমান, ইসলামী ঐক্যজোটের নেতা মাওলানা আলতাফ হোসাইন, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ ইব্রাহীম বীর প্রতীক, বিএনপির নেতা ব্যারিস্টার সারোয়ার, আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, সাংবাদিক শ্যামল দত্ত, অজয় দাস গুপ্ত, কওমী মাদরাসা ছাত্রদের পেইজের এডমিন সালাহ উদ্দিন জাহাঙ্গীর প্রমুখ।