ঢাকা ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
কুমিল্লায় প্রাইভেটকারের গ্যাস সিলিন্ডার ভিতরে ফেন্সিডিল বহনকালে আটক এক ঢাকার আশুলিয়ায় সাংবাদিক মাসুদ রানার উপর হামালাকারীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ। ঢাকার আশুলিয়াতে পুলিশকে মিথ্যা ও বিভ্রান্তকর তথ্য দিয়ে হয়রানি কমলগঞ্জ আদমপুরে, নববধূর আত্নহত্যা নাকি পরিকল্পিতো হত্যা। আজ কুমিল্লায় জাতীয় ভোক্তা অ‌ধিকার সংরক্ষণ অ‌ধিদপ্ত‌রের অভিযান দুমকিতে ঝড়ের আঘাতে স্কুল ঘর লন্ডভন্ড গজারিয়াবাসী ২০ বছরে ফুলদী নদীতে সেতু পায়নি মতলব উত্তরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী ও ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালিত ১৫ আগস্টের ইতিহাস ভুলে গেলে জাতি ফের পথভ্রষ্ট হবে ——— প্রতিমন্ত্রী ড.শামসুল আলম “বাংলাদেশে ‘ফিফা বিশ্বকাপ ২০২২’ সম্প্রচারের স্বত্ব পেয়েছে টি স্পোর্টস” গ্লোবাল টেলিভিশনের আশুলিয়া প্রতিনিধি মাসুদ রানার উপর সন্ত্রাসী হামলা

ভারতের উত্তরপ্রদেশ ও বিহারে বন্যায় নিহত ১৩৪

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :  ভারতে মৌসুমি বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট নানা দুর্ঘটনায় নিহতদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। উত্তর প্রদেশ ও বিহার রাজ্যে মাত্র তিনদিনে মারা গেছে কমপক্ষে ১৩৪ জন। এছাড়া রাজস্থান ও মধ্যপ্রদেশে তুমুল বর্ষনে মারা গেছে ছয়জন। আর জম্মু-কাশ্মীরে মৃত্যু হয়েছে একজনের।

আরো পড়ুন : সৌদি বাদশাহ’র দেহরক্ষীকে গুলি করে হত্যা

এদিকে একটানা বৃষ্টিপাতের কারণে রোববার হাঁটু পনির নিচে তলিয়ে গেছে বিহারের রাজধানী পাটনা।

বিহার রাজ্যের দুর্যাগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের বরাত দিয়ে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে গত ৭২ ঘণ্টায় এই রাজ্যে নিহত হয়েছেন ১২৭ জন। সেখানে মাত্র চব্বিশ ঘণ্টার বৃষ্টিপাতে মারা গেছে ২৩ জন। তারা পাটনা সংলগ্ন ভাগলপুর ও কাইমুর জেলার বাসিন্দা।

রোববার প্রচণ্ড বৃষ্টির ফলে হাঁটু পানির নিচে তলিয়ে গেছে বিহারের রাজধানী পাটনা। ফলে সেখানে বাতিল করা হয়েছে ২২টি ট্রেন।

স্থানীয় আবহাওয়া দপ্তর বলছে, আগামী ২৪ ঘণ্টা রাজ্যের কমপক্ষে ১৫টি জেলায় আরো বৃষ্টিপাতের সম্ভবনা রয়েছে। ফলে আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত বন্ধ করে দেয়া হয়েছে পাটনাসহ রাজ্যের বৃষ্টি কবলিত এলাকার স্কুলগুলো।

এ নিয়ে রোববার রাজ্যের দুর্যোগ ব্যবস্থাপণা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার। এ অবস্থায় তিনি রাজ্যের বাসিন্দাদের ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানিয়েছেন।

এছাড়া গত চব্বিশ ঘণ্টায় উত্তর প্রদেশে মারা গেছে কমপক্ষে ২০ জন। এ নিয়ে গত তিন দিনে এই রাজ্যে নিহতের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ৯৩ জনে।

এই রাজ্যের ফুড মেনেজম্যান্ট এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেম সেন্টার (এফএমআইসিএস) জানায়, রাজ্যের গাজিপুর ও বাল্লিয়া জেলাগুলোতে গঙ্গা নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আর গনদা জেলায় বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে কুয়ানো নদী। এদিকে অব্যাহত বৃষ্টিপতের কারণে রাজ্যের ২৮টি জেলায় বন্যা সতর্কতা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

কুমিল্লায় প্রাইভেটকারের গ্যাস সিলিন্ডার ভিতরে ফেন্সিডিল বহনকালে আটক এক

ভারতের উত্তরপ্রদেশ ও বিহারে বন্যায় নিহত ১৩৪

আপডেট টাইম ০৮:৩৫:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :  ভারতে মৌসুমি বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট নানা দুর্ঘটনায় নিহতদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। উত্তর প্রদেশ ও বিহার রাজ্যে মাত্র তিনদিনে মারা গেছে কমপক্ষে ১৩৪ জন। এছাড়া রাজস্থান ও মধ্যপ্রদেশে তুমুল বর্ষনে মারা গেছে ছয়জন। আর জম্মু-কাশ্মীরে মৃত্যু হয়েছে একজনের।

আরো পড়ুন : সৌদি বাদশাহ’র দেহরক্ষীকে গুলি করে হত্যা

এদিকে একটানা বৃষ্টিপাতের কারণে রোববার হাঁটু পনির নিচে তলিয়ে গেছে বিহারের রাজধানী পাটনা।

বিহার রাজ্যের দুর্যাগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের বরাত দিয়ে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে গত ৭২ ঘণ্টায় এই রাজ্যে নিহত হয়েছেন ১২৭ জন। সেখানে মাত্র চব্বিশ ঘণ্টার বৃষ্টিপাতে মারা গেছে ২৩ জন। তারা পাটনা সংলগ্ন ভাগলপুর ও কাইমুর জেলার বাসিন্দা।

রোববার প্রচণ্ড বৃষ্টির ফলে হাঁটু পানির নিচে তলিয়ে গেছে বিহারের রাজধানী পাটনা। ফলে সেখানে বাতিল করা হয়েছে ২২টি ট্রেন।

স্থানীয় আবহাওয়া দপ্তর বলছে, আগামী ২৪ ঘণ্টা রাজ্যের কমপক্ষে ১৫টি জেলায় আরো বৃষ্টিপাতের সম্ভবনা রয়েছে। ফলে আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত বন্ধ করে দেয়া হয়েছে পাটনাসহ রাজ্যের বৃষ্টি কবলিত এলাকার স্কুলগুলো।

এ নিয়ে রোববার রাজ্যের দুর্যোগ ব্যবস্থাপণা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার। এ অবস্থায় তিনি রাজ্যের বাসিন্দাদের ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানিয়েছেন।

এছাড়া গত চব্বিশ ঘণ্টায় উত্তর প্রদেশে মারা গেছে কমপক্ষে ২০ জন। এ নিয়ে গত তিন দিনে এই রাজ্যে নিহতের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ৯৩ জনে।

এই রাজ্যের ফুড মেনেজম্যান্ট এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেম সেন্টার (এফএমআইসিএস) জানায়, রাজ্যের গাজিপুর ও বাল্লিয়া জেলাগুলোতে গঙ্গা নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আর গনদা জেলায় বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে কুয়ানো নদী। এদিকে অব্যাহত বৃষ্টিপতের কারণে রাজ্যের ২৮টি জেলায় বন্যা সতর্কতা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন।