ঢাকা ০২:৪২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
রেকর্ড দরপতন মুদ্রার , ১ মার্কিন ডলার কিনতে হচ্ছে ২৫৫ পাকিস্তানি রুপিতে মাতৃত্বকালীন কার্ড প্রদানে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ,ইউপি সচিবসহ আটক দুই মতলব উত্তরে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জাতীয় ইমাম সম্মেলন অনুষ্ঠিত কুমিল্লা জেলা ক্রিকেট কমিটির সভাপতির পদ থেকে থেকে পদত্যাগ করেছেন সাইফুল আলম রনি কুলাউড়ায় ফাহিম স্মৃতি দ্বৈত নক আউট ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট-২০২৩, শুভ উদ্বোধনী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে পরিত্যাক্ত স্কুল ভবন থেকে ৬৮ রাউন্ড এলএমজি গুলি উদ্ধার। ফরিদগঞ্জে যাত্রা শুরু করেছে এক্স স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন অবিভাবক শূণ্যতায় অস্তিত্ব বিলিনের পথে ডাকাতিয়া রামপালে সুইডেনের দূতাবাসে পবিত্র কুরআন পোড়ানোর ঘটনায় প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত সারা দেশব্যাপী কেন্দ্রীয় ফারিয়ার ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন

ব্যাংকগুলোর আমানত ও ঋণে চলছে নজরদারি

ব্যাংকগুলো কী হারে আমানত সংগ্রহ করছে এবং ঋণ কী হারে দিচ্ছে, তা নজরদারির মধ্যে রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আজ মঙ্গলবার চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসের (জুলাই-ডিসেম্বর, ২০১৮) মুদ্রানীতি ঘোষণায় এ কথা বলেন করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। বাংলাদেশ ব্যাংকের মূল ভবনের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স হলে বেলা ১১টায় মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়।

গভর্নর বলেন, ব্যাংকগুলো কী হারে আমানত সংগ্রহ করছে এবং ঋণ কী হারে দিচ্ছে, তা নজরদারি করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

নতুন মুদ্রানীতিতে সুদহার ও নীতিনির্ধারণীতে কোনো পরিবর্তন আসেনি। গত অর্থবছরের জানুয়ারি থেকে জুন মেয়াদের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ ধরা হয়েছিল ১৬ দশমিক ৩ শতাংশ—এই হার এবারের মুদ্রানীতিতে অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

মুদ্রানীতি ঘোষণার সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ছাড়াও ডেপুটি গভর্নরসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

আমদানি বৃদ্ধি পাচ্ছে, টাকা পাচার হচ্ছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান বলেন, ‘চার হাজার কোটি টাকা পাচারের বিষয়ে অনুসন্ধানে একটা তথ্য পাওয়া গেছে। আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে তা পাঠিয়েছি। এ বিষয়ে আরও কাজ চলছে।’

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

রেকর্ড দরপতন মুদ্রার , ১ মার্কিন ডলার কিনতে হচ্ছে ২৫৫ পাকিস্তানি রুপিতে

ব্যাংকগুলোর আমানত ও ঋণে চলছে নজরদারি

আপডেট টাইম ০৮:৩৭:২২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জুলাই ২০১৮

ব্যাংকগুলো কী হারে আমানত সংগ্রহ করছে এবং ঋণ কী হারে দিচ্ছে, তা নজরদারির মধ্যে রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আজ মঙ্গলবার চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসের (জুলাই-ডিসেম্বর, ২০১৮) মুদ্রানীতি ঘোষণায় এ কথা বলেন করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। বাংলাদেশ ব্যাংকের মূল ভবনের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স হলে বেলা ১১টায় মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়।

গভর্নর বলেন, ব্যাংকগুলো কী হারে আমানত সংগ্রহ করছে এবং ঋণ কী হারে দিচ্ছে, তা নজরদারি করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

নতুন মুদ্রানীতিতে সুদহার ও নীতিনির্ধারণীতে কোনো পরিবর্তন আসেনি। গত অর্থবছরের জানুয়ারি থেকে জুন মেয়াদের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ ধরা হয়েছিল ১৬ দশমিক ৩ শতাংশ—এই হার এবারের মুদ্রানীতিতে অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

মুদ্রানীতি ঘোষণার সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ছাড়াও ডেপুটি গভর্নরসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

আমদানি বৃদ্ধি পাচ্ছে, টাকা পাচার হচ্ছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে ডেপুটি গভর্নর আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান বলেন, ‘চার হাজার কোটি টাকা পাচারের বিষয়ে অনুসন্ধানে একটা তথ্য পাওয়া গেছে। আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে তা পাঠিয়েছি। এ বিষয়ে আরও কাজ চলছে।’