মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন

বেতাগী চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে জখম করায়: সাবেক চেয়ারম্যানসহ আসামি ১৪, জন

স্টাফ রিপোর্টার:
বরগুনার বেতাগী উপজেলার সরিষামুড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও যুবলীগ নেতা ইমাম হাসান শিপনকে কুপিয়ে হাত ও পায়ের রগ কেটে আহত করার ঘটনায় সাবেক চেয়ারম্যানসহ ১৪ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে।
২৩ নভেম্বর সোমবার রাতে বেতাগী থানায় মামলা করেছেন আহত চেয়ারম্যান শিপনের শ্বশুর রফিকুল ইসলাম মন্টু।
মামলার আসামির হলেন সরিষামুড়ি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ শরীফ, তার তিন ছেলে জাফর শরীফ, আজিম শরীফ, হাসিব শরীফ এবং তাদের সহযোগী ফারুক খাঁ, সালাম, বাবুল ভাণ্ডারি, খলিল মোল্লা, ওহাব হাওলাদার, সিদ্দিক, মন্টু, আবু তালেব, রফিকুল ইসলাম ও তোতা মিয়া।  তারা সবাই বেতাগী উপজেলার সরিষামুড়ি ও ভোরা গ্রামের বাসিন্দা।
এদিকে শিপনের ওপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে যুবলীগ আসামিদের গ্রেফতারের দাবিতে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।
জানা যায়, শুক্রবার বিকাল সোয়া ৩টার দিকে একটি বিয়েবাড়ি থেকে দাওয়াত খেয়ে চেয়ারম্যান শিপন বেতাগী বাড়ি ফিরছিলেন।
উপজেলার সরিষামুড়ি ইউনিয়নের কালিকাবাড়ি গ্রামের সাতঘর এলাকার নাপিতবাড়ির সামনে তিন রাস্তার মাথায় তার মোটরসাইকেল পৌঁছামাত্র সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ, জাফর শরীফ, হাসিবসহ অন্য আসামিরা শিপনকে হত্যার জন্য কুপিয়ে জখম করে।
স্থানীয়রা শিপনকে উদ্ধার করে প্রথমে বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল থেকে বরিশালে নেয়। পরে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে অস্ত্রোপচার করা হয়।
বাদী রফিকুল ইসলাম মন্টু বলেন, আমার জামাতা শিপনকে আসামিরা কুপিয়ে হাত ও পায়ের রগ কেটে দিয়েছে। জামাতার চিকিৎসা করাতে মামলা করতে বিলম্ব হয়েছে।
জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাহাব উদ্দিন সাবু যুগান্তরকে বলেন, সরিষামুড়ি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইউসুফ শরীফ ও তার তিন ছেলে এবং তাদের সন্ত্রসী বাহিনী শুক্রবার বিকালে শিপনকে কুপিয়ে চিরতরে পঙ্গু করে দিয়েছে।
আমরা সোমবার মানববন্ধন করেছি। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় আসামিদের গ্রেফতারের দাবিতে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছি। আসামিরা গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।
বেতাগী থানার ওসি কাজী শাখাওয়াত হোসেন বলেন, সোমবার রাতে মামলা এজাহার করেছি। আমরা দুই আসামিকে গ্রেফতারও করেছি। অন্য আসামিদের গ্রেফতার করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
নিউজটি শেয়ার করুন





সর্বস্বত্ব © ২০১৯ মাতৃভূমির খবর কর্তৃক সংরক্ষিত

Design & Developed BY ThemesBazar