ঢাকা ০৯:৫৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বন্দরে স্বামীকে ধরিয়ে দিতে স্ত্রী’র পুরস্কার ঘোষণা কুমিল্লার মুরাদনগরে জি,এম, উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিভাবক প্রতিনিধি নির্বাচন সম্পন্ন গজারিয়ায় নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দ্রব্যমুল্যের উর্দ্ধগতিতে বিপাকে নিম্নআয়ের মানুষ। ইন্দুরকানীতে ভেসে আসা যুবকের অর্ধ-গলিত লাশ উদ্ধার নড়াগাতীতে অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকায় আটক দুই, ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা। ঢাকার সাভারে আশুলিয়া সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপ-প্রচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ কুমিল্লার বুড়িচংয়ে কলেজ ছাত্রী যৌন হয়রানির প্রতিবাদে ক্লাস বর্জন, শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ। গজারিয়া উপজেলা পরিষদ এর মাসিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত। টাঙ্গাইলে সৃষ্টি শিক্ষার্থী শিহাব হত্যা মামলায় ৪ আসামির আত্মসমর্পণ, জামিন নামঞ্জুর তেলের মূল্য বৃদ্ধি লোড শেডিং ও দ্রব্যমূল্যর উর্দ্ধগতির প্রতিবাদে জাতীয় পার্টির প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত।

বিদ্যালয়ের গা ঘেঁষে বিপজ্জনক বৈদ্যুতিক খুঁটি, শিক্ষার্থীসহ শিক্ষকদের জীবনের ঝুঁকি

রাফিউ হাসানঃ সড়কের মধ্যে কিংবা ঘরের মধ্যে বা দালান ঘেষে বৈদ্যুতিক খুঁটি এমন খবর নিয়ে দেশজুড়ে বেশ হই-চই হয়। ঠিক সেই মুহূর্তে আর একটি ভয়াবহ চিত্র ধরা পড়েছে চাঁদপুর উপজেলার শাহরাস্তিতে।
চাঁদপুর উপজেলায় শাহরাস্তির রায়শ্রী দক্ষিণ ইউনিয়নের ওয়ার্ড নং ৩ এর ফটিকখিরা নামক জায়গাতে সরেজমিনে গিয়ে দেখতে পাওয়া যায় এই ভয়াবহতা।
ফটিকখিরা এস এ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় স্থাপিত হওয়ার পরে খুঁটি বসানো হয়। বিদ্যালয়ের টিনের স্থাপনা ঘেঁষে ১১ হাজার কিলোওয়াট শক্তিসম্পন্ন লাইন প্রবাহিত হয়েছে। ধান লাগানোর মৌসুমে মাঠে পানি দেওয়ার জন্য অতিরিক্ত আরো দুটি সহ মোট তিনটি ট্রান্সমিটার বসানো হয়। ২৪২ জন শিক্ষার্থীসহ মোট ১৬ জন শিক্ষক ও অফিস কর্মচারী নিয়ে বিদ্যালয়টি প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে চলে। বৃষ্টি কিংবা হালকা বাতাসে আর্থিং এর কারণে গুনগুন শব্দে শিক্ষার্থীসহ শিক্ষকরাও আতঙ্কে বিদ্যালয়ের সময়টি পার করেন। ফটিকখিরা গ্রামের বিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীদের ব্যাপারটি শঙ্কিত করলেও বিষয়টি নিয়ে মাথাব্যাথা নেই পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগের।  ফলে দুর্ঘটনার আশঙ্কা দিন দিন প্রকট হচ্ছে।

বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক দ্বীন মোহাম্মদ বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক কাঠের খুঁটি শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের জান-মালের নিরাপত্তার জন্য  জরুরী ভিত্তিতে অন্যত্র জায়গায় সরিয়ে ফেলা একান্ত দরকার। নতুবা যে কোন মুহূর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া নূরে আফনান নামের শিক্ষার্থী বলেন, আমরা প্রতিদিন আমাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করি।  আমরা ট্রান্সমিটার বিস্ফোরণের আতঙ্কেও থাকি। আমরা পুরোপুরি আমাদের পড়ালেখায় ঠিকমত মনোযোগ দিতে পারি না। আমরা আমাদের জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

এ ব্যাপারে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম সিদ্দিকুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করার জন্য অফিসে গেলে তাকে বেলা ১১ ঘটিকায় অফিসে পাওয়া যায়নি। তার এই অনুপুস্থিতির ব্যাপারে অফিসের কেউই ঠিকমতো সদুত্তর দিতে পারেনি।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্দরে স্বামীকে ধরিয়ে দিতে স্ত্রী’র পুরস্কার ঘোষণা

বিদ্যালয়ের গা ঘেঁষে বিপজ্জনক বৈদ্যুতিক খুঁটি, শিক্ষার্থীসহ শিক্ষকদের জীবনের ঝুঁকি

আপডেট টাইম ০৬:১০:০৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৭ অগাস্ট ২০১৯

রাফিউ হাসানঃ সড়কের মধ্যে কিংবা ঘরের মধ্যে বা দালান ঘেষে বৈদ্যুতিক খুঁটি এমন খবর নিয়ে দেশজুড়ে বেশ হই-চই হয়। ঠিক সেই মুহূর্তে আর একটি ভয়াবহ চিত্র ধরা পড়েছে চাঁদপুর উপজেলার শাহরাস্তিতে।
চাঁদপুর উপজেলায় শাহরাস্তির রায়শ্রী দক্ষিণ ইউনিয়নের ওয়ার্ড নং ৩ এর ফটিকখিরা নামক জায়গাতে সরেজমিনে গিয়ে দেখতে পাওয়া যায় এই ভয়াবহতা।
ফটিকখিরা এস এ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় স্থাপিত হওয়ার পরে খুঁটি বসানো হয়। বিদ্যালয়ের টিনের স্থাপনা ঘেঁষে ১১ হাজার কিলোওয়াট শক্তিসম্পন্ন লাইন প্রবাহিত হয়েছে। ধান লাগানোর মৌসুমে মাঠে পানি দেওয়ার জন্য অতিরিক্ত আরো দুটি সহ মোট তিনটি ট্রান্সমিটার বসানো হয়। ২৪২ জন শিক্ষার্থীসহ মোট ১৬ জন শিক্ষক ও অফিস কর্মচারী নিয়ে বিদ্যালয়টি প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে চলে। বৃষ্টি কিংবা হালকা বাতাসে আর্থিং এর কারণে গুনগুন শব্দে শিক্ষার্থীসহ শিক্ষকরাও আতঙ্কে বিদ্যালয়ের সময়টি পার করেন। ফটিকখিরা গ্রামের বিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীদের ব্যাপারটি শঙ্কিত করলেও বিষয়টি নিয়ে মাথাব্যাথা নেই পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগের।  ফলে দুর্ঘটনার আশঙ্কা দিন দিন প্রকট হচ্ছে।

বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক দ্বীন মোহাম্মদ বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক কাঠের খুঁটি শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের জান-মালের নিরাপত্তার জন্য  জরুরী ভিত্তিতে অন্যত্র জায়গায় সরিয়ে ফেলা একান্ত দরকার। নতুবা যে কোন মুহূর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া নূরে আফনান নামের শিক্ষার্থী বলেন, আমরা প্রতিদিন আমাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করি।  আমরা ট্রান্সমিটার বিস্ফোরণের আতঙ্কেও থাকি। আমরা পুরোপুরি আমাদের পড়ালেখায় ঠিকমত মনোযোগ দিতে পারি না। আমরা আমাদের জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

এ ব্যাপারে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম সিদ্দিকুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করার জন্য অফিসে গেলে তাকে বেলা ১১ ঘটিকায় অফিসে পাওয়া যায়নি। তার এই অনুপুস্থিতির ব্যাপারে অফিসের কেউই ঠিকমতো সদুত্তর দিতে পারেনি।