ঢাকা ০৮:৫২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও মুসলিম ইনস্টিটিউটের কাজ দ্রত শেষ করার নির্দেশ মেয়র এম রেজাউল করিম চৌধুরী জীবন যুদ্ধে হার না মানা প্রতিবন্ধী মনছুর আনোয়ারা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে অবৈধ টাকায় সরে বৈদ্যুতিক খুটি, বৈধতায় মেলে যন্ত্রণা দুমকিতে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ বিতরণ নারায়ণগঞ্জ অফিসার্স ফোরামের নতুন কমিটি ঘোষণা টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে এমপি ও মেয়র গ্রুপের পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ মিছিল আবারও রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছেন কাটাখালীর সাবেক পৌর মেয়র আব্বাস আলী পর্যটনে নতুন সম্ভাবনা দেখাচ্ছে পটুয়াখালীর বিচ্ছিন্ন চর। দুই মন্ত্রীর এলাকায় থমকে গেছে ফোরলেন শিক্ষককে পোশাক নিয়ে অপমান, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির পদত্যাগ।

ফেলানী হত্যার আট বছর আজ

মাতৃভূমির খবর ডেস্কঃ  কুড়িগ্রাম সীমান্তে কিশোরী ফেলানী হত্যার আট বছর আজ। ২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার অনন্তপুর সীমান্তে তাকে নির্মমভাবে খুন করা হয়।

ভারতের ১৮১ ব্যাটালিয়নের চৌধুরীহাট ক্যাম্পের বিএসএফ জওয়ান অমিয় ঘোষের গুলিতে নিহত হয় ফেলানী। কাঁটাতারে ফেলানীর লাশ ঝুলে থাকার দৃশ্য দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমে উঠে এলে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট ভারতের কোচবিহারের বিএসএফের বিশেষ আদালতে ফেলানী হত্যার বিচারকাজ শুরু হয়। তবে ওই বছরের ৬ সেপ্টেম্বর অভিযুক্ত বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষকে বেকসুর খালাস দেয় আদালত। এরপর ২০১৫ সালে ভারতের উচ্চ আদালতে রিট করেন বাবা নুরুল ইসলাম।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও মুসলিম ইনস্টিটিউটের কাজ দ্রত শেষ করার নির্দেশ মেয়র এম রেজাউল করিম চৌধুরী

ফেলানী হত্যার আট বছর আজ

আপডেট টাইম ০৪:৩১:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৭ জানুয়ারী ২০১৯

মাতৃভূমির খবর ডেস্কঃ  কুড়িগ্রাম সীমান্তে কিশোরী ফেলানী হত্যার আট বছর আজ। ২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার অনন্তপুর সীমান্তে তাকে নির্মমভাবে খুন করা হয়।

ভারতের ১৮১ ব্যাটালিয়নের চৌধুরীহাট ক্যাম্পের বিএসএফ জওয়ান অমিয় ঘোষের গুলিতে নিহত হয় ফেলানী। কাঁটাতারে ফেলানীর লাশ ঝুলে থাকার দৃশ্য দেশ-বিদেশের গণমাধ্যমে উঠে এলে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট ভারতের কোচবিহারের বিএসএফের বিশেষ আদালতে ফেলানী হত্যার বিচারকাজ শুরু হয়। তবে ওই বছরের ৬ সেপ্টেম্বর অভিযুক্ত বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষকে বেকসুর খালাস দেয় আদালত। এরপর ২০১৫ সালে ভারতের উচ্চ আদালতে রিট করেন বাবা নুরুল ইসলাম।