শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ০৮:১০ পূর্বাহ্ন

পার্ল হারবারে বন্দুক হামলা! নিহত ২

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ  পার্ল হারবারে মার্কিন নৌ ঘাঁটিতে এক সেনার গুলিতে দুই মার্কিন নাগরিক নিহত হয়েছেন। পরে হামলাকারী নিজেও আত্মহত্যা করেন। স্থানীয় সময়মতে ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার দুপুর ২.৩০ মিনিট নাগাদ। মার্কিন সেনা কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম রয়টার্স।

আরো পড়ুন: ইরাকে মার্কিন বিমানঘাঁটিতে রকেট হামলা

পার্ল হারবার-হিকাম ঘাঁটির এক মুখপাত্র ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। এক বিবৃতিতে তিনি জানান, হামলায় হতাহতরা মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বেসামরিক কর্মী হিসাবে কাজ করতেন। কিন্তু তিনি ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দিতে রাজি হননি।

ঘাঁটি থেকে প্রচারিত এক টুইটার বার্তায় বলা হয়েছে, বুধবার স্থানীয় সময় দুপুর আড়াইটার দিকে পার্ল হারবারের নেভাল শিপইয়ার্ডের ড্রেডক-২’তে এক মার্কিন সেনা ওই বন্দুক হামলা চালায়। এতে দুইজন নিহত এবং আরো একজন আহত হন। পরে হামলাকারী নিজের মাথায় গুলি করে আত্মহত্যা করেন।

তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের পরিচয় জানা যায়নি। তবে হামলাকারীর পরনে মার্কিন নৌ সেনাদের পোশক ছিল বলে জানা যায়। এ ঘটনায় আহতকে স্থানীয় এক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল বলেই জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

এই ঘটনার পর ওই মার্কিন ঘাঁটিটি দু ঘণ্টা ধরে বন্ধ ছিল।

নৌসেনার তরফে জারিকৃত এক বিবৃতিতে বলা হয়ছে, হামলাকারী নৌবাহিনীর এক সিনিয়র কর্মকর্তা।

বুধবার দুপুর ২.৩০ নাগাদ আচমকাই নৌঘাঁটির অসামরিক কর্মীদের উপর আচমকাই গুলি চালাতে শুরু করে হামলাকারী। সঙ্গে সঙ্গেই গোটা চত্বর ঘিরে ফেলে নিরাপত্তারক্ষীরা। তারপরই মাথায় গুলি করে আত্মহত্যা করেন হামলাকারী। গোটা বিষয়টিতে উচ্চপর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, হামলাকারীর গায়ে নৌ-সৈনিকের ইউনিফর্ম ছিল। ঘটনাটি নৌঘাঁটির দক্ষিণ প্রবেশ পথের পাশে সংঘটিত হয়েছে

এদিকে এই হামলা সম্পর্কে হোয়াইট হাউসের এক মুখপাত্র বলেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পার্ল হারবারের গোটা পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণ করছেন। তিনি হামলা নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন।

উল্লেখ্য, আর তিনদিন বাদেই পার্ল হারবারে জাপানের হামলার ৭৮তম বর্ষপূর্তি। তার আগেই এহেন ঘটনায় রীতিমতো চঞ্চল্য ছড়িয়েছে। উল্লেখ্য, ১৯৪১ ৭ ডিসেম্বর পার্ল হারবারে ভয়াবহ হামলা চালিয়েছিল ইম্পেরিয়াল জাপান৷ সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিত ওই হামলায় মার্কিন নৌসেনার প্রায় ২ হাজার ৫০০ জওয়ান প্রাণ হরিয়েছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন





সর্বস্বত্ব © ২০১৯ মাতৃভূমির খবর কর্তৃক সংরক্ষিত

Design & Developed BY ThemesBazar