শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০৭:০০ অপরাহ্ন

দর্শন মামলার বাদিকে খুন করে ঘুম করার হুমকি!

মতলব প্রতিনিধি : মতলবে ফিল্মী কায়দায় অপহরন করে মাহমুদা নামের এক মেয়েকে আটক রেখে টানা ২০ দিন দর্শন করার অভিযোগ পাওয়াগেছে। ঘটনাটি ঘটে চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলায়। অভিযোগকারি মাহমুদার পরিবার ও তার দায়ের করা মামলার এজাহারের বিবরনে যানাযায়, চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলার ঘিলাতলীর সর্দার বাড়ির বৃদ্ধা আব্দুল মান্নানের মেয়ে মাহমুদা (২২) কে ওই উপজেলার নায়েরগাঁও ইউনিয়নের ঘোনা বকাউল বাড়ি (গোল বাড়ির ) সুলতান আহমেদ এর ছেলে জহির (৩২) ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে মতলবের (গৌরিপুর -পেন্নাই সড়ক) নারায়ণপুর বাজার সিএনজি ষ্ট্যান্ড থেকে, মাহমুদাকে জোড় পুর্বক মুখে কাপর চাপাদিয়ে ফিল্মী কায়দায় একটি মাইক্রোবাসে করে ঢাকায় অজ্ঞাত কোনএক বাসায় নিয়ে গত ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ পর্যন্ত মারধোরসহ অমানসিক যৌন নির্যাতন চালায় জহির। তারপর অসুস্থ্য অবস্থায় ২৮ ফেব্রুয়ারি বিকালে আমাকে(মাহমুদা) আমাদের বাড়ির সামনে ফেলেরেখে পালিয়ে যায়। (মাহমুদার) পরিবারের লোকজন যানাযানিরপরে ঘোনা জহিরের বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি মিমাংশা করতে চাইলে তারা আমাদের মারদোর করে হুমকি-দমকি দিয়ে জোড়পুর্বক সাদা কাগজে আমার (মাহমুদার) স্বাক্ষর করিয়ে রাখে। এবং হুমকি দিয়ে বলে এই ব্যাপারে লোক সমাজে জানাযানি করলে তোর খবর আছে। আর মতলব থানায় তোর বাবারাও মামলা নিবেনা। বেশী বারাবারি করলে তোকে খুন করে লাশ ঘুম করে ফেলবো । এবিষয়ে আমি চাঁদপুরের বিজ্ঞ আদালতে আইনের আশ্রয় নেই। বিষয়টি আমলেও নিয়েছে বিজ্ঞ আদালত। এই ব্যাপারে ঘোনায় জহিরের পরিবারের সাথে আলাপ করলে তারা বলেন, বিষয়টি স্থানীয়দের মাধ্যমে সমাধান করা হয়েছে। এব্যাপাওে স্থানীয়রা বলেন অসহায় পরিবারের একটি মেয়েকে ফিল্মী কায়দায় মফস্বল এলাকা থেকে তুলেনিয়ে ২০দিন দর্শন করে স্থানীয়দের মাধ্যমে কিশের রফাদফা!। যে দেশে আইনের শাসন আছে সেই দেশে দর্শনকারি জহিরের বিচার বিজ্ঞ আদালতেই হবে। মাহমুদার পরিবার জানায় বিয়ষটির সুষ্ঠ ও ন্যায় বিচারের জন্যই আমরা বিজ্ঞ আদালতের স্বরর্নাপন্ন হয়েছি আশাকরি আমরা ন্যায় বিচার পাবো । মাহমুদার মামলার আইন জিবী এ্যাডভোকেট নাজিম উল্লাহ বাপ্পি যানায়, আসামি দর্শনকারি জহির বিবাহিত, দামপত্ত জীবনে তার ৫ বছরের একটি ছেলে রয়েছে। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়েছে,আমরা ন্যায় বিচার ও আমামির সর্বোচ্চ শাস্তি প্রত্যাশাকরছি ।

নিউজটি শেয়ার করুন





সর্বস্বত্ব © ২০১৯ মাতৃভূমির খবর কর্তৃক সংরক্ষিত

Design & Developed BY ThemesBazar