শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১০:০১ অপরাহ্ন

জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে আমরা সব সময় মনিটরিং করব-র্যাব মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ

সিনিয়র রিপোর্টার (মাসুদ হাসান মোল্লা রিদম),ঢাকা:  র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলছেন, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অনেক আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের পরও জঙ্গিবাদ এর শেকড় করতে পারে নাই। এক্ষেত্রে আমাদের দেশের বর্তমান সরকার সফল। আর জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে আমরা সব সময় কাজ করব। জঙ্গিবাদ নির্মূলে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। শনিবার (১৬ মার্চ) দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁওস্থ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (বিএফডিসি) ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি আয়োজনে সহিংস উগ্রবাদ প্রতিরোধে তথ্য প্রযুক্তির নিয়ন্ত্রিত ব্যবহার নিয়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতায় সাংবাদিকদের র‌্যাবের মহাপরিচালক এসব কথা বলেন। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ানের (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, সন্ত্রাসবাদ-উগ্রবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা, এটি বৈশ্বিক অভিশাপ। বিশ্বের কোনো দেশই সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকি থেকে মুক্ত নয়। আমাদের সবাই মিলেই এ বিষয়টি মোকাবিলা করতে হবে। র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, বাংলাদেশের সরকার, জনগণ, সাংবাদিকরা সকলেই সন্ত্রাসবাদ-উগ্রবাদের বিরুদ্ধে। তাই এসব আমরা দমন করতে পেরেছি। এটাই আমাদের মূলশক্তি। আমরা এখন এমন একটা পর্যায়ে এসেছি যে সন্ত্রাসবাদবিরোধী বিষয় নিয়ে অনেকের সঙ্গে শেয়ার করতে পারি। র‌্যাবের বেনজীর আহমেদ বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী সন্ত্রাসবাদ নিয়ে পরিতৃপ্তি নয়।আমরা সব সময় চাই দেশের মানুষ যেন জঙ্গিবাদ-উগ্রবাদ থেকে নিরাপদে থাকে। সেজন্য আমরা সব সময় কাজ করে যাচ্ছি। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের ঘটনার পর আমরা সতর্ক অবস্থায় আছি। আমরা শুক্রবারই (১৫ মার্চ) রাজধানীর ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে র‌্যাবের টহলদারি বৃদ্ধি করেছিলাম। ওই ঘটনা থেকে আমরা বার্তা গ্রহণ করে সর্বোচ্চ সতর্ক আছি। বিতর্ক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে র‌্যাবের মহাপরিচালক বলেন, যা দেখবেন সেটা সব বিশ্বাস করবেন না। সোশ্যাল মিডিয়ায় বা তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে আপনারা যা যা দেখবেন তার সব বিশ্বাস করবেন না। দেখেশুনে বুঝে বা বিচার বিশ্লেষণ করে সব বিশ্বাস করবেন। অর্থাৎ গুজবে কান দেবেন না। এই গুজব বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে আমরা টিভিসিও তৈরি করেছি। নির্বাচনসহ বিভিন্ন আন্দোলনের সময় এসব গুজব আমরা লক্ষ করেছি। আমাদের তথ্য-প্রযুক্তির এমন অপব্যবহার রোধ করতে হবে। ইসলামের বিরুদ্ধে কথা বলে যে ইসলামকে কোণঠাসা করে রাখা হয়েছে তার বিপরীতের যুক্তিও ইন্টারনেটে আছে। সেগুলোর প্রচার বাড়াতে হবে। র‌্যাবের মহাপরিচালক মাদ্রাসার বিষয় নিয়ে বলেন, মাদ্রাসাও একটি জ্ঞান আহরণের স্থান। এটা সম্পর্কে আমাদের যে ভুল ধারণা সৃষ্টি হয়ে রয়েছে তাও দূর করতে হবে। তাদেরও দায়িত্ব রয়েছে। সেটা হলো- কোরআন শরীফ হচ্ছে একটি বিশুদ্ধ জীবনবিধান। সেখানেও বলা আছে তোমরা তোমাদের যুগোপযোগী জীবনবিধান এই কোরআনের আলোকে বের করে নাও। এ দায়িত্ব ইসলামিক চিন্তাবিদদের যারা এই মাদ্রাসা থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেন। তাদের দায়িত্ব নিয়ে বোঝাতে হবে ইসলাম কতটা উদার। এই ইসলামে জঙ্গিবাদের জায়গা নেই তাও পরিষ্কার করে তুলে ধরতে হবে। এসময় উক্ত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি) অনুরোধ করে র‌্যাবের ডিজি বলেন, অন্যান্য দেশের ক্রিকেট দল বাংলাদেশে খেলতে আসলে নিরাপত্তাজনিত বিষয়ে আমাদের অনেক চাহিদা দেয়। তারা বলে সেসব চাহিদা পূরণ না করলে তারা খেলতে আসবে না। কিন্তু আমাদের ক্ষেত্রে এমনটা হয় না। তাই বিসিবিকে অনুরোধ জানাবো অন্যান্য দেশে আমাদের ক্রিকেট দল খেলতে যাওয়ার আগে নিরাপত্তার বিষয়টা নিশ্চিত না করলে আমাদের যাওয়া উচিৎ নয়। এক্ষেত্রে আরও কঠোর অবস্থানে আসতে হবে আমাদের। র‌্যাবের মহাপরিচালক বলেন, তথ্য পাওয়ার অধিকার উন্মুক্ত থাকা উচিত বলে আমি মনে করি।এই বিতর্কে একটি বিষয় উঠে এসেছে যে, তথ্য-প্রযুক্তির ক্ষেত্রে সেন্সর ব্যবহারের জন্য। কিন্তু এটা করা উচিৎ হবে না। কারণ এটা মানুষের একটি অধিকার। অধিকার হনন করা যাবে না। তাই আমাদের ধারণাগুলোকে সঠিক রাস্তায় প্রবাহিত করাই হবে মূল লক্ষ্য। র‌্যাবের ডিজি বলেন,বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের গাড়তে করতে পারেনি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অনেক আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের পরও জঙ্গিবাদ শেকড় গাড়তে পারেনি। এক্ষেত্রে সরকার সফল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আমরা দেশকে জঙ্গিমুক্ত করতে সফল হয়েছি। ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ কিরণ বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি তথা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহার আমাদের কিছু কিছু তরুণদের উগ্র বাদী কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়তে উৎসাহিত করছে।কেবল উগ্র ধর্মীয় উন্মাদনা,অর্থ সামাজিক বৈষম্য দারিদ্রতা সুশাসনের অভাব সহিংস উগ্রবাদের জন্য দায়ী নয়। তার উৎকৃষ্ট প্রমাণ গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের দুটি মসজিদে ঘটে যাওয়া বন্দুক হামলা। যে হামলায় তিনজন বাংলাদেশিসহ ৪৯ জন মুসলিম নাগরিক হত্যার শিকার হয়েছে। এইযে একজন অস্ট্রেলিয়ান তরুণ উগ্রবাদী কর্মকাণ্ড ঘটিয়েও নিউজিল্যান্ডে মসজিদে গুলি করে ৪৯ জন মানুষ হত্যা করেছে সে কিন্তু আইএস এর দীক্ষায় দীক্ষিত নয়,তথাপি মুসলিম জন্য নয়। তার জন্ম ও বেড়ে ওঠা পৃথিবীর অন্যতম উন্নত দেশ অস্ট্রেলিয়া তে। সে মূলত অভিবাসী বিরোধী ও মুসলিম বিদ্বেষী বলে জানা যায়। মসজিদে হামলা কারী ব্যাক্তির মধ্যে প্রতিশোধ প্রবণতা কাজ করছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যবহারে প্রতি তার শক্তি ছিল। এর আগে বিএফডিসির অডিটোরিয়ামে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি আয়োজিত ‘তথ্য-প্রযুক্তির অবাধ ব্যবহার উগ্রবাদ বৃদ্ধির প্রধান কারণ’ বিষয়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। বিতর্কে লালমাটিয়া মহিলা কলেজ পক্ষে ও দারুন্নাজাত সিদ্দীকিয়া কামিল মাদ্রাসা বিপক্ষে স্ব স্ব যুক্তি উপস্থাপন করে। বিতর্কে লালমাটিয়া মহিলা কলেজ বিচারকদের বিচার অনুসারে বিজয়ী হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির সভাপতি হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। উক্ত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত র্যাবের মিডিয়া শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মুফতি মাহমুদ খান ও উপ-পরিচালক সিনিয়র এএসপি মিজানুর রহমান ভূঁইয়া।

নিউজটি শেয়ার করুন





সর্বস্বত্ব © ২০১৯ মাতৃভূমির খবর কর্তৃক সংরক্ষিত

Design & Developed BY ThemesBazar