ঢাকা ০৪:২২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
সীমান্তে হত্যা এবং মাদকদ্রব্যসহ সকল চোরাচালান বন্ধের দাবিতে সমাবেশ ও কাঁটাতার মিছিল মসজিদে নামাজের মধ্যদিয়ে মুসল্লিদের মাঝে হৃদ্যতা বাড়ে : আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দিন শখ থেকে উদ্যোক্তা, কোয়েল পাখির ডিম বিক্রি করে মাসে আয় আড়াই লাখ। নড়াইল-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মুফতি শহিদুল ইসলামের ইন্তেকাল বাউফলে সরকারি চাল বাজারজাত করার সময় বাবা-ছেলে আটক। থানায় আগত সেবা প্রত্যাশীদের যথাযথ আইনি সহায়তা প্রদান করুন: আইজিপি জননেত্রী শেখ হাসিনার আমলে বাংলাদেশের মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারেঃ” আব্দুস সালাম মূর্শেদী এমপি” কলাপাড়ার মহিপুরে ৫০ মণ জাটকাসহ ট্রলার জব্দ। সমাজের কল্যাণে ইমামদের কাজ করার আহ্বান স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর৷ গজারিয়ায় গাজা সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক

চাঁদপুর মতলবে মসজিদ উন্নয়নের বরাদ্ধকৃত অর্থ আত্মসাতের চেষ্টা।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ মতলব পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের কদমতলী জামে মসজিদের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য জেলা পরিষদ থেকে বরাদ্ধকৃত ১লাখ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে ওই মসজিদ কমিটির সহ- সভাপতি গোলাম হায়দার মোল্লা ও সেক্রেটারী জাকির হোসেন মোল্লার বিরুদ্ধে।
জানা যায়, ২০১৮- ২০১৯ অর্থ বছরে ওই মসজিদ কমিটির অন্য সদস্যদের না জানিয়ে সহ-সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মসজিদের উন্নয়নের জন্য জেলা পরিষদে আবেদন করে। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে  জেলা পরিষদ মসজিদের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য ১লাখ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্ধ দেয়।
কমিটির এ দুই জন মসজিদের নামে অনুদান আছে এবং তা উত্তোলনের জন্য অফিসিয়াল খরচ দেখিয়ে মসজিদের তহবিল থেকে তারা ৩৫ হাজার টাকা নেয়। কিন্তু এ টাকা উঠিয়ে মসজিদের কোনো সদস্যকে না জানিয়ে নিজেরা ভাগ বাটোয়ারা করে নেয়। এরই মধ্যে বেশ কিছুদিন অতিবাহিত হলেও সভাপতিসহ অন্য সদস্যরা টাকা না পেলে বিষয়টি জেলা পরিষদ সদস্য আলআমিন ফরাজীকে জানানো হয়। তখন ওই জেলা পরিষদ সদস্য বলেন, আপনাদের মসজিদের নামে ১লাখ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্ধ হয়েছে এবং তারা ওই টাকা ওঠিয়ে নিয়েছে।
এ সময়ে মসজিদের কোনো উন্নয়ন কাজ হয়নি বলে মসজিদ কমিটির একাধিক সদস্য ও মুসুল্লীরা জানান।
এছাড়াও মসজিদ কমিটির সদস্যরা ২০১৯ সালের ঈদুল আযহার পর এ টাকা ফেরত দিতে বললে তারা টাকা না দেওয়ায় ওই সময়  সকলের তােপের মুখে পড়েছে বলে সরেজমিনে জানা গেছে।
মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন মোল্লা বলেন, এগুলো এক বছর আগেই সমাধান হয়েছে।
কদমতলী জামে মসজিদের সভাপতি বেনজীর আহমেদ পাটোয়ারী লাতু বলেন, নয় ছয় করে তারা টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করেছিল। পরে মুসুল্লীদের রোষানলে পড়ে টাকা ফেরত দিবে বলে বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো তা ফেরত দিচ্ছে না। মসজিদের টাকা না পেয়ে আমরা আশাহত। আমরা টাকা আদায়ে আইনগত ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছি।
Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

সীমান্তে হত্যা এবং মাদকদ্রব্যসহ সকল চোরাচালান বন্ধের দাবিতে সমাবেশ ও কাঁটাতার মিছিল

চাঁদপুর মতলবে মসজিদ উন্নয়নের বরাদ্ধকৃত অর্থ আত্মসাতের চেষ্টা।

আপডেট টাইম ০১:৩৮:৩৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ অগাস্ট ২০২০
নিজস্ব প্রতিনিধিঃ মতলব পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের কদমতলী জামে মসজিদের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য জেলা পরিষদ থেকে বরাদ্ধকৃত ১লাখ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে ওই মসজিদ কমিটির সহ- সভাপতি গোলাম হায়দার মোল্লা ও সেক্রেটারী জাকির হোসেন মোল্লার বিরুদ্ধে।
জানা যায়, ২০১৮- ২০১৯ অর্থ বছরে ওই মসজিদ কমিটির অন্য সদস্যদের না জানিয়ে সহ-সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মসজিদের উন্নয়নের জন্য জেলা পরিষদে আবেদন করে। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে  জেলা পরিষদ মসজিদের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য ১লাখ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্ধ দেয়।
কমিটির এ দুই জন মসজিদের নামে অনুদান আছে এবং তা উত্তোলনের জন্য অফিসিয়াল খরচ দেখিয়ে মসজিদের তহবিল থেকে তারা ৩৫ হাজার টাকা নেয়। কিন্তু এ টাকা উঠিয়ে মসজিদের কোনো সদস্যকে না জানিয়ে নিজেরা ভাগ বাটোয়ারা করে নেয়। এরই মধ্যে বেশ কিছুদিন অতিবাহিত হলেও সভাপতিসহ অন্য সদস্যরা টাকা না পেলে বিষয়টি জেলা পরিষদ সদস্য আলআমিন ফরাজীকে জানানো হয়। তখন ওই জেলা পরিষদ সদস্য বলেন, আপনাদের মসজিদের নামে ১লাখ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্ধ হয়েছে এবং তারা ওই টাকা ওঠিয়ে নিয়েছে।
এ সময়ে মসজিদের কোনো উন্নয়ন কাজ হয়নি বলে মসজিদ কমিটির একাধিক সদস্য ও মুসুল্লীরা জানান।
এছাড়াও মসজিদ কমিটির সদস্যরা ২০১৯ সালের ঈদুল আযহার পর এ টাকা ফেরত দিতে বললে তারা টাকা না দেওয়ায় ওই সময়  সকলের তােপের মুখে পড়েছে বলে সরেজমিনে জানা গেছে।
মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন মোল্লা বলেন, এগুলো এক বছর আগেই সমাধান হয়েছে।
কদমতলী জামে মসজিদের সভাপতি বেনজীর আহমেদ পাটোয়ারী লাতু বলেন, নয় ছয় করে তারা টাকা আত্মসাতের চেষ্টা করেছিল। পরে মুসুল্লীদের রোষানলে পড়ে টাকা ফেরত দিবে বলে বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো তা ফেরত দিচ্ছে না। মসজিদের টাকা না পেয়ে আমরা আশাহত। আমরা টাকা আদায়ে আইনগত ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছি।