ঢাকা ০২:৫৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে চা বাগানের শিশুদের শতভাগ ভর্তি নিশ্চিত ও জন্ম নিবন্ধনে উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ক বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের- আজাহার আলী মৃধার শুভেচ্ছা গজারিয়ায় ফরাজীকান্দি তৈয়ব আলী আত তাইয়্যাবিয়া মাদ্রাসা সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি করতোয়া নদীতে ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ ফাইনাল খেলা ও পুরুস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের,এমপি চন্দনাইশে হাশিমপুর ভাই খলিফাপাড়া সড়কের বেহাল-দশা সাতকানিয়ায় সাপের কামড়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু বাউফলে সেই অজ্ঞাত নারীর পরিচয় মিলেছে পটুয়াখালীতে ৮৬.২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড

চলে গেলেন শচীনের গুরু আচরেকার

ফাইল ছবি

স্পোর্টস ডেস্ক :  নতুন বছরের শুরুতেই ভারতীয় ক্রিকেটে শোকের আবহ। চলে গেলেন রমাকান্ত আচরেকার। ক্রিকেট নিয়ে উৎসাহ রয়েছে অথচ আচরেকারের নাম শোনেননি এমন মানুষ সত্যিই বিরল। শচীন টেন্ডুলকার, বিনোদ কাম্বলি, প্রভীন আমরেদের মতো নক্ষত্রদের তিনি উপহার দিয়েছেন বিশ্ব ক্রিকেটকে। ৮৭ বছর বয়সে মুম্বাই ক্রিকেটের এক রঙিন অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি ঘটালো তার মৃত্যু। গতকাল বুধবার বিকাল চারটায় নিজ বাসভবনেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

১৯৩২ সালে জন্ম আচরেকারের। ১৯৬০ সালে স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার হয়ে একটি মাত্র প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছিলেন হায়দরাবাদ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের বিপক্ষে। খেলোয়াড়ের চেয়ে তিনি বেশি সুনাম অর্জন করেন কোচ হিসেবে। খ্যাতি ছড়িয়ে পড়াতেই ১১ বছর বয়সী টেন্ডুলকারকে তাঁর বড় ভাই নিয়ে যান সারদাশ্রম আচরেকারের একাডেমিতে। টেন্ডুলকারের প্রতিভা দেখে স্কুল বদলানোর পরামর্শ দেন প্রথমে। বান্দারার নিউ ইংলিশ স্কুল থেকে টেন্ডুলকার চলে আসেন সারদাশ্রম বিদ্যা মন্দিরে। বাকিটা ইতিহাস।

আচরেকারের ছোঁয়ায় সাফল্যের শিখরে ওঠা টেন্ডুলকার গুরুকে নিয়ে একবার বলেছিলেন, ১১ বছর বয়সেই আমার আসল ক্রিকেটের শুরু, যখন আমার বড় ভাই নিয়ে যান আচরেকারের কাছে। সেই তিন-চার বছরই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল আমার গড়ে ওঠার পেছনে।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

মাধবপুরে চা বাগানের শিশুদের শতভাগ ভর্তি নিশ্চিত ও জন্ম নিবন্ধনে উদ্বুদ্ধকরণ বিষয়ক বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত

চলে গেলেন শচীনের গুরু আচরেকার

আপডেট টাইম ০৬:১৯:৫০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ জানুয়ারী ২০১৯

স্পোর্টস ডেস্ক :  নতুন বছরের শুরুতেই ভারতীয় ক্রিকেটে শোকের আবহ। চলে গেলেন রমাকান্ত আচরেকার। ক্রিকেট নিয়ে উৎসাহ রয়েছে অথচ আচরেকারের নাম শোনেননি এমন মানুষ সত্যিই বিরল। শচীন টেন্ডুলকার, বিনোদ কাম্বলি, প্রভীন আমরেদের মতো নক্ষত্রদের তিনি উপহার দিয়েছেন বিশ্ব ক্রিকেটকে। ৮৭ বছর বয়সে মুম্বাই ক্রিকেটের এক রঙিন অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি ঘটালো তার মৃত্যু। গতকাল বুধবার বিকাল চারটায় নিজ বাসভবনেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

১৯৩২ সালে জন্ম আচরেকারের। ১৯৬০ সালে স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার হয়ে একটি মাত্র প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছিলেন হায়দরাবাদ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের বিপক্ষে। খেলোয়াড়ের চেয়ে তিনি বেশি সুনাম অর্জন করেন কোচ হিসেবে। খ্যাতি ছড়িয়ে পড়াতেই ১১ বছর বয়সী টেন্ডুলকারকে তাঁর বড় ভাই নিয়ে যান সারদাশ্রম আচরেকারের একাডেমিতে। টেন্ডুলকারের প্রতিভা দেখে স্কুল বদলানোর পরামর্শ দেন প্রথমে। বান্দারার নিউ ইংলিশ স্কুল থেকে টেন্ডুলকার চলে আসেন সারদাশ্রম বিদ্যা মন্দিরে। বাকিটা ইতিহাস।

আচরেকারের ছোঁয়ায় সাফল্যের শিখরে ওঠা টেন্ডুলকার গুরুকে নিয়ে একবার বলেছিলেন, ১১ বছর বয়সেই আমার আসল ক্রিকেটের শুরু, যখন আমার বড় ভাই নিয়ে যান আচরেকারের কাছে। সেই তিন-চার বছরই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল আমার গড়ে ওঠার পেছনে।