ঢাকা ০১:৪১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
হানিমুনে এসে স্বামীকে পিটিয়ে উধাও নববধূঃ প্রেমিকসহ গ্রেফতার এক ইলিশের দাম ৫ হাজার কলাপাড়ায় গাঁজাসহ ৪ জন গ্রেফতার প্রবাসে কাজের সন্ধানে গিয়ে প্রবাসীর মৃত্যু , তিন মাসপর নিজ বাড়িতে দাফন পটুয়াখালী জেলা শাখার সোনালী অতীত ক্লাবের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত দুর্গাপূজায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি নির্দেশ আইজিপির অবৈধ দখল বাজদের দখলে বাকেরগঞ্জের পৌর শহরের বুক চিরে বয়ে যাওয়া শ্রীমন্ত নদীর দু পাশ প্রধানমন্ত্রীর ৭৬ তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছন সোনারগাঁয়ে কাঁচপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী সভা ও সদস্য সংগ্রহ বাকেরগঞ্জে সোশাল ইসলামি ব্যাংকের ১৪৩ তম শাখা উদ্ভোধন

চট্টগ্রামে ৩৭ ইউনিয়নে দ্বিতীয়দফা-১১ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নির্বাচন,

ব্যুরো চট্টগ্রামঃ

চট্টগ্রামে দ্বিতীয়দফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের তিন উপজেলা ফটিকছড়ি, সীতাকুণ্ড ও মিরসারইয়ের ৩৭ ইউনিয়নে (১১ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নির্বাচন। এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে সব কার্যক্রম।

সকাল থেকে সব কেন্দ্রে পৌঁছানো হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম। ফটিকছড়ি উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মধ্যে ২ ইউনিয়ন ভক্তপুর ও লেলাং ইউপিতে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশের কারণে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে না।

এছাড়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার কারণে এই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। তবে বাকি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া এই উপজেলায় বাকি ১১টি ইউনিয়নে মোট চেয়ারম্যান প্রার্থী ২৬ জন। এই উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৩৬৫ জন।

এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৮২ হাজার ২৭৪ জন এবং মহিলা ভোটার ১ লাখ ৬৪ হাজার ৯১ জন।
সীতাকুণ্ড উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে ৫টি (সৈয়দপুর, মুরাদপুর, সোনাইছড়ি, ভাটিয়ারি, কুমিরা) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এই সব ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে না।

তবে অন্যান্য পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। অন্যদিকে বাকি ৪টি (বাড়বকুণ্ড, বাঁশবাড়িয়া, বারৈয়াঢালা, ছলিমপুর) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদসহ সব পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হওয়া ৪টি ইউনিয়নের মোট চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংখ্যা ৯ জন।

এছাড়া পুরো উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য পদে ৬৪ জনের মধ্যে ৭ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এবং সাধারণ ওয়ার্ড সদস্যপদে ২৯৪ জনের মধ্যে ৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

এই উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৬৪ হাজার ৯৮৯ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৪১ হাজার ৩৮১ জন এবং মহিলা ভোটার ১ লাখ ২৩ হাজার ৬০৮ জন।

মীরসরাই উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ১৩ টি (জোরারগঞ্জ, করেরহাট, হিঙ্গুলী, দুর্গাপুর, কাটাছড়া, ওয়াহেদপুর, সাহেরখালী, ওসমানপুর, ধুম, হাইতকান্দি, মায়ানী, মিঠানালা, মঘাদিয়া) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এসব ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে না। তবে অন্যান্য পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। বাকি ৩টি (ইছাখালী, মিরসরাই সদর ও খৈয়াছড়া) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদসহ সব পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হওয়া ৩টি ইউনিয়নের মোট চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংখ্যা ৯ জন।

এছাড়া পুরো উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য পদে ১১৮ জন এবং সাধারণ ওয়ার্ড সদস্যপদে ৪৮৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এই উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১৩ হাজার ৭৩৬ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৬০ হাজার ৪২৬ জন এবং মাহিলা ভোটার ১ লাখ ৫৩ হাজার ৩১০ জন।

নির্বাচনের বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ইতোমধ্যে সব ধরণের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। সকাল থেকে প্রতিটি কেন্দ্রে নির্বাচনী সরঞ্জাম পৌঁছানো হচ্ছে। প্রতিটি কেন্দ্র মোতায়েন থাকবে পুলিশ সদস্য। আশা করছি সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন শেষ করতে পারবো।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

হানিমুনে এসে স্বামীকে পিটিয়ে উধাও নববধূঃ প্রেমিকসহ গ্রেফতার

চট্টগ্রামে ৩৭ ইউনিয়নে দ্বিতীয়দফা-১১ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নির্বাচন,

আপডেট টাইম ০৭:৫২:০২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ নভেম্বর ২০২১

ব্যুরো চট্টগ্রামঃ

চট্টগ্রামে দ্বিতীয়দফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের তিন উপজেলা ফটিকছড়ি, সীতাকুণ্ড ও মিরসারইয়ের ৩৭ ইউনিয়নে (১১ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নির্বাচন। এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে সব কার্যক্রম।

সকাল থেকে সব কেন্দ্রে পৌঁছানো হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম। ফটিকছড়ি উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মধ্যে ২ ইউনিয়ন ভক্তপুর ও লেলাং ইউপিতে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশের কারণে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে না।

এছাড়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার কারণে এই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। তবে বাকি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া এই উপজেলায় বাকি ১১টি ইউনিয়নে মোট চেয়ারম্যান প্রার্থী ২৬ জন। এই উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৩৬৫ জন।

এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৮২ হাজার ২৭৪ জন এবং মহিলা ভোটার ১ লাখ ৬৪ হাজার ৯১ জন।
সীতাকুণ্ড উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে ৫টি (সৈয়দপুর, মুরাদপুর, সোনাইছড়ি, ভাটিয়ারি, কুমিরা) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এই সব ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে না।

তবে অন্যান্য পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। অন্যদিকে বাকি ৪টি (বাড়বকুণ্ড, বাঁশবাড়িয়া, বারৈয়াঢালা, ছলিমপুর) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদসহ সব পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হওয়া ৪টি ইউনিয়নের মোট চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংখ্যা ৯ জন।

এছাড়া পুরো উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য পদে ৬৪ জনের মধ্যে ৭ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এবং সাধারণ ওয়ার্ড সদস্যপদে ২৯৪ জনের মধ্যে ৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

এই উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৬৪ হাজার ৯৮৯ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৪১ হাজার ৩৮১ জন এবং মহিলা ভোটার ১ লাখ ২৩ হাজার ৬০৮ জন।

মীরসরাই উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ১৩ টি (জোরারগঞ্জ, করেরহাট, হিঙ্গুলী, দুর্গাপুর, কাটাছড়া, ওয়াহেদপুর, সাহেরখালী, ওসমানপুর, ধুম, হাইতকান্দি, মায়ানী, মিঠানালা, মঘাদিয়া) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এসব ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে না। তবে অন্যান্য পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। বাকি ৩টি (ইছাখালী, মিরসরাই সদর ও খৈয়াছড়া) ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদসহ সব পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হওয়া ৩টি ইউনিয়নের মোট চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংখ্যা ৯ জন।

এছাড়া পুরো উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য পদে ১১৮ জন এবং সাধারণ ওয়ার্ড সদস্যপদে ৪৮৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এই উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১৩ হাজার ৭৩৬ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৬০ হাজার ৪২৬ জন এবং মাহিলা ভোটার ১ লাখ ৫৩ হাজার ৩১০ জন।

নির্বাচনের বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ইতোমধ্যে সব ধরণের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। সকাল থেকে প্রতিটি কেন্দ্রে নির্বাচনী সরঞ্জাম পৌঁছানো হচ্ছে। প্রতিটি কেন্দ্র মোতায়েন থাকবে পুলিশ সদস্য। আশা করছি সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন শেষ করতে পারবো।