ঢাকা ০৩:৪৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ইউএসটিসি ছাত্রদলের ৫ সদস্যের আহবায়ক কমিটির ৩ সদস্যের পদত্যাগ। পবিপ্রবিতে নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনায় উৎপাদিত তেলাপিয়া ও পাঙ্গাস মাছের নিলাম অনুষ্ঠিত টাঙ্গাইলে এনটিভির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন লক্ষ্মীপুরে পুলিশের নায়েক থেকে সহকারী উপ পরিদর্শক হলেন ৬ জন পানি, খাবার এবং ঔষধ বিতরণ করেন KSA গোল্ডেন বয় সোসাইটি বোয়ালমারীতে গরুবাহী ট্রাকের চাপায় মা-মেয়ে নিহত কাঞ্চনায় স্কুল পরিচালনা নিয়ে মন্তব্য করায় হেনস্তার অভিযোগ মাত্র ৩০ সেকেন্ড টর্নেডোতে লন্ডভন্ড পটুয়াখালীর চরপাড়া। একটি মানবিক সাহায্যের জন্য আবেদন বাঁচতে চাই ক্যান্সারে আক্রান্ত মোহাম্মদ আরমান গজারিয়ায় ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কে ভবেরচর কলেজ রোডে সড়ক দূর্ঘটনা আহত ৫

গুগল জানাবে ভূমিকম্পের ‘আফটারশক’

ভূমিকম্প একটি ভয়ানক আতঙ্ক এবং বিধ্বংসের নাম। তাই ভূমিকম্প পরবর্তী ‘আফটারশক’ সম্পর্কে জানাবে গুগল। এর পূর্বাভাস পেতে সাহায্য করবে গুগলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। এ কাজে গুগলকে সাহায্য করবেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানিরা।

বিজ্ঞানিরা জানান, ভূমিকম্প সাধারণত কয়েকটি স্তরে ঘটে। একটি মূল কম্পনের পরে আসে কয়েকটি ‘আফটারশক’। সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি মূল কম্পনের সময়ে ঘটলেও আফটারশকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণটা একেবারেই কম নয়।

মূল কম্পনের পূর্বাভাস পাওয়া না গেলেও কীভাবে আফটারশক থেকে মানুষকে সাবধান করা যায়, সেটা নিয়েই গুগলের সঙ্গে একযোগে গবেষণা করছেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানিদের একটি দল।

গবেষকদের প্রধান ফোয়েবে ডিভেরিস জানান, ১১৮টি বড় ভূমিকম্প এবং তার আফটারশকগুলোর তথ্য বিচার করে কিছু তালিকা বানানো হয়েছে। সেখানে মূল ভূমিকম্পের কতক্ষণ পরে কতখানি বড় আফটারশক দেখা যায়, সেই তথ্যগুলো বিশ্লেষণ করা হয়।

ডিভেরিস আরও জানান, সারা বিশ্বের ভূমিকম্প ও ভূমিকম্পের পরবর্তী কম্পনের তথ্য বিশ্লেষণের আওতায় রাখা হয়েছিল। সেই তথ্যকে গুগলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে মেশানো হয়। মিশ্রিত তথ্য থেকে নিশ্চিত হওয়া যায়, অন্তত ৯৭ শতাংশ ক্ষেত্রে নিখুঁত ভবিষ্যদ্বাণী করা যেতে পারে।

Tag :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ইউএসটিসি ছাত্রদলের ৫ সদস্যের আহবায়ক কমিটির ৩ সদস্যের পদত্যাগ।

গুগল জানাবে ভূমিকম্পের ‘আফটারশক’

আপডেট টাইম ১০:৫৫:৪০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ভূমিকম্প একটি ভয়ানক আতঙ্ক এবং বিধ্বংসের নাম। তাই ভূমিকম্প পরবর্তী ‘আফটারশক’ সম্পর্কে জানাবে গুগল। এর পূর্বাভাস পেতে সাহায্য করবে গুগলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। এ কাজে গুগলকে সাহায্য করবেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানিরা।

বিজ্ঞানিরা জানান, ভূমিকম্প সাধারণত কয়েকটি স্তরে ঘটে। একটি মূল কম্পনের পরে আসে কয়েকটি ‘আফটারশক’। সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি মূল কম্পনের সময়ে ঘটলেও আফটারশকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণটা একেবারেই কম নয়।

মূল কম্পনের পূর্বাভাস পাওয়া না গেলেও কীভাবে আফটারশক থেকে মানুষকে সাবধান করা যায়, সেটা নিয়েই গুগলের সঙ্গে একযোগে গবেষণা করছেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানিদের একটি দল।

গবেষকদের প্রধান ফোয়েবে ডিভেরিস জানান, ১১৮টি বড় ভূমিকম্প এবং তার আফটারশকগুলোর তথ্য বিচার করে কিছু তালিকা বানানো হয়েছে। সেখানে মূল ভূমিকম্পের কতক্ষণ পরে কতখানি বড় আফটারশক দেখা যায়, সেই তথ্যগুলো বিশ্লেষণ করা হয়।

ডিভেরিস আরও জানান, সারা বিশ্বের ভূমিকম্প ও ভূমিকম্পের পরবর্তী কম্পনের তথ্য বিশ্লেষণের আওতায় রাখা হয়েছিল। সেই তথ্যকে গুগলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে মেশানো হয়। মিশ্রিত তথ্য থেকে নিশ্চিত হওয়া যায়, অন্তত ৯৭ শতাংশ ক্ষেত্রে নিখুঁত ভবিষ্যদ্বাণী করা যেতে পারে।