ঢাকা ০২:৩৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
হানিমুনে এসে স্বামীকে পিটিয়ে উধাও নববধূঃ প্রেমিকসহ গ্রেফতার এক ইলিশের দাম ৫ হাজার কলাপাড়ায় গাঁজাসহ ৪ জন গ্রেফতার প্রবাসে কাজের সন্ধানে গিয়ে প্রবাসীর মৃত্যু , তিন মাসপর নিজ বাড়িতে দাফন পটুয়াখালী জেলা শাখার সোনালী অতীত ক্লাবের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত দুর্গাপূজায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি নির্দেশ আইজিপির অবৈধ দখল বাজদের দখলে বাকেরগঞ্জের পৌর শহরের বুক চিরে বয়ে যাওয়া শ্রীমন্ত নদীর দু পাশ প্রধানমন্ত্রীর ৭৬ তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছন সোনারগাঁয়ে কাঁচপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী সভা ও সদস্য সংগ্রহ বাকেরগঞ্জে সোশাল ইসলামি ব্যাংকের ১৪৩ তম শাখা উদ্ভোধন

আশুলিয়ায় আলী নূর হত্যা: কথিত স্ত্রী গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টারঃ দেলোয়ার হোসেন
সাভারের আশুলিয়ায় চাঞ্চল্যকর অটোরিকশা চালক আলী নূর হত্যা মামলার মূল আসামী আহিনা খাতুন (২৯) কে নারায়নগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ এর একটি আভিযানিক দল।
বুধবার (০৩ আগস্ট) দুপুর ১টার দিকে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেন র‌্যাব-৪, সিপিসি-২ এর কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান।
এরআগে মঙ্গলবার (০২ আগস্ট) রাতে নারায়নগঞ্জ জেলার কাঁচপুর এলাকায় সাড়াশি অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।
আটক আহিনা খাতুন (২৯) নীলফামারির বাসিন্দা বলে জানা যায়। তবে তার বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।
নিহত আলী নূর বিশ্বাস মাগুড়া জেলার শ্রীপুর থানার হোগলডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা।
আসামীর জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, প্রায় তিন বছর আগে নিহতের সাথে আসামীর পরিচয়ের সূত্র ধরে তাদের মধ্যে গভীর সম্পর্ক গড়ে উঠে। সম্পর্কের এক পর্যায়ে তারা দুজনই একসাথে বসবাস করার সিদ্ধান্ত নেয়। এমতাবস্থায় বিবাহ না করে তারা নিজেদের স্বামী-স্ত্রীর পরিচয় দিয়ে আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করতে থাকে। গত ৩ বছরে তারা ৫ বার বাসা পরিবর্তন করেছেন। জুলাই মাসের শুরুতে আলী নূর গ্রামের বাড়িতে গিয়ে অন্য একটি মেয়েকে বিয়ে করে। পরে গত ১৭ জুলাই আলী নূর ঢাকায় ফিরে আসে। তার বিয়ের কথা জানতে পেরে আসামীর মনে প্রচন্ড ক্রোধ এবং প্রতিহিৎসার সৃষ্টি হয়। পরে প্রতিহিৎসা ও ক্রোধে নূর বিশ্বাসকে হত্যার পরিকল্পনা করে সেই মোতাবেক আহিনা খাতুন ঘটনার দিন ভোররাতে ঘুমন্ত অবস্থায় বটি দিয়ে মাথা, গলা এবং বুকে নৃশংশভাবে কুপিয়ে হত্যা করে এবং লাশটি কাঁথা চাপা দিয়ে রাখে। হত্যার পরে তার থালা-বাসন, কাপড় চোপর এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি একটি বস্তায় ভরে ঘড়ে তালা দিয়েনারায়নগঞ্জের কাঁচপুর এলাকায় পালিয়ে যায়।
পরবর্তীতে গত ৩১ জুলাই আলী নূরের মোবাইলের মাধ্যমে তার ভগ্নিপতি জাকিরকে অসুস্থতার কথা জানায়। এবং বলে তাকে বাঁচাতে তার পরিবার যেন দ্রুত আশুলিয়ার ভাড়া বাসায় আসেন সে কথা বলেন। ০১ আগস্ট নিহতের পরিবারের লোকজন জিরাবো এলাকায় দেলোয়ার বেপারীর ভাড়া দেওয়া টিনশেড বাসায় গিয়ে দেখতে পায় যে রুমের দরজা বাহির হতে তালাবদ্ধ। তারা বাসার মালিক ও স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় জানালা খুললে রুমের ভিতর হতে তীব্র দুর্গন্ধসহ মেঝেতে কাঁথা মোড়ানো অবস্থায় চিৎ হয়ে আলী নূরের লাশ দেখতে পায়। পরবর্তীতে আশুলিয়া থানা পুলিশ উক্ত ঘরের তালা ভেঙ্গে রুমের ভিতর থেকে লাশটি উদ্ধার করে।
র‌্যাব আরও জানায়, এ ঘটনাটি প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়াসহ এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। পরবর্তীতে নিহতের বড় ভাই বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে র‌্যাব-৪ আসামী গ্রেফতারে ছায়া তদন্ত শুরু করে। পরবর্তীতে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৪ এর একটি চৌকস আভিযানিক দল গতকাল রাতে অভিযান চালিয়ে নারায়নগঞ্জ জেলার কাঁচপুর এলাকা হতে আসামী আহিনা খাতুন (২৯)কে গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়।
র‌্যাব-৪, সিপিসি-২ এর কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান জানান, গ্রেফতার আসামীকে থানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

হানিমুনে এসে স্বামীকে পিটিয়ে উধাও নববধূঃ প্রেমিকসহ গ্রেফতার

আশুলিয়ায় আলী নূর হত্যা: কথিত স্ত্রী গ্রেফতার

আপডেট টাইম ০৮:১৫:৪৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ অগাস্ট ২০২২

স্টাফ রিপোর্টারঃ দেলোয়ার হোসেন
সাভারের আশুলিয়ায় চাঞ্চল্যকর অটোরিকশা চালক আলী নূর হত্যা মামলার মূল আসামী আহিনা খাতুন (২৯) কে নারায়নগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ এর একটি আভিযানিক দল।
বুধবার (০৩ আগস্ট) দুপুর ১টার দিকে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেন র‌্যাব-৪, সিপিসি-২ এর কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান।
এরআগে মঙ্গলবার (০২ আগস্ট) রাতে নারায়নগঞ্জ জেলার কাঁচপুর এলাকায় সাড়াশি অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।
আটক আহিনা খাতুন (২৯) নীলফামারির বাসিন্দা বলে জানা যায়। তবে তার বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যায়নি।
নিহত আলী নূর বিশ্বাস মাগুড়া জেলার শ্রীপুর থানার হোগলডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা।
আসামীর জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, প্রায় তিন বছর আগে নিহতের সাথে আসামীর পরিচয়ের সূত্র ধরে তাদের মধ্যে গভীর সম্পর্ক গড়ে উঠে। সম্পর্কের এক পর্যায়ে তারা দুজনই একসাথে বসবাস করার সিদ্ধান্ত নেয়। এমতাবস্থায় বিবাহ না করে তারা নিজেদের স্বামী-স্ত্রীর পরিচয় দিয়ে আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করতে থাকে। গত ৩ বছরে তারা ৫ বার বাসা পরিবর্তন করেছেন। জুলাই মাসের শুরুতে আলী নূর গ্রামের বাড়িতে গিয়ে অন্য একটি মেয়েকে বিয়ে করে। পরে গত ১৭ জুলাই আলী নূর ঢাকায় ফিরে আসে। তার বিয়ের কথা জানতে পেরে আসামীর মনে প্রচন্ড ক্রোধ এবং প্রতিহিৎসার সৃষ্টি হয়। পরে প্রতিহিৎসা ও ক্রোধে নূর বিশ্বাসকে হত্যার পরিকল্পনা করে সেই মোতাবেক আহিনা খাতুন ঘটনার দিন ভোররাতে ঘুমন্ত অবস্থায় বটি দিয়ে মাথা, গলা এবং বুকে নৃশংশভাবে কুপিয়ে হত্যা করে এবং লাশটি কাঁথা চাপা দিয়ে রাখে। হত্যার পরে তার থালা-বাসন, কাপড় চোপর এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি একটি বস্তায় ভরে ঘড়ে তালা দিয়েনারায়নগঞ্জের কাঁচপুর এলাকায় পালিয়ে যায়।
পরবর্তীতে গত ৩১ জুলাই আলী নূরের মোবাইলের মাধ্যমে তার ভগ্নিপতি জাকিরকে অসুস্থতার কথা জানায়। এবং বলে তাকে বাঁচাতে তার পরিবার যেন দ্রুত আশুলিয়ার ভাড়া বাসায় আসেন সে কথা বলেন। ০১ আগস্ট নিহতের পরিবারের লোকজন জিরাবো এলাকায় দেলোয়ার বেপারীর ভাড়া দেওয়া টিনশেড বাসায় গিয়ে দেখতে পায় যে রুমের দরজা বাহির হতে তালাবদ্ধ। তারা বাসার মালিক ও স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় জানালা খুললে রুমের ভিতর হতে তীব্র দুর্গন্ধসহ মেঝেতে কাঁথা মোড়ানো অবস্থায় চিৎ হয়ে আলী নূরের লাশ দেখতে পায়। পরবর্তীতে আশুলিয়া থানা পুলিশ উক্ত ঘরের তালা ভেঙ্গে রুমের ভিতর থেকে লাশটি উদ্ধার করে।
র‌্যাব আরও জানায়, এ ঘটনাটি প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়াসহ এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। পরবর্তীতে নিহতের বড় ভাই বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে র‌্যাব-৪ আসামী গ্রেফতারে ছায়া তদন্ত শুরু করে। পরবর্তীতে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৪ এর একটি চৌকস আভিযানিক দল গতকাল রাতে অভিযান চালিয়ে নারায়নগঞ্জ জেলার কাঁচপুর এলাকা হতে আসামী আহিনা খাতুন (২৯)কে গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়।
র‌্যাব-৪, সিপিসি-২ এর কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান জানান, গ্রেফতার আসামীকে থানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।