রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ১১:৪৪ পূর্বাহ্ন

আমি আপনাদের মানুষ, আমার কাজ হলো মানুষের কাজ করা : ফারুক

মাসুদ হাসান রিদম :   বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাংসদ ও বাঙালি সাংস্কৃতিক বন্ধনের সভাপতি আকবর হোসেন পাঠান (চিত্র নায়ক ফারুক) বলেছেনে, আমি শিল্পী, আমাকে এমপি টেমপি বলবেন না, আমি আপনাদের মানুষ, আমার কাজ হলো মানুষের কাজ করা। উন্নয়ন চলছে, চলবেই। কারন আমার নেত্রী শেখ হাসিনা। উন্নয়নের আরেক নাম শিল্পী। আমি বিশ্বাস করি, আমাদের প্রধানমন্ত্রী আমাদের দেশের মানুষকে সোনার বাংলা উপহার দেবেন।
সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর তার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, প্রায় ৩০ হাজার ফুলের তোরা আমাকে দেয়া হয়েছে। আমার মনে হয় না, আর কোন সংসদ সদস্য এতো ফুল পেয়েছে। তখন আমার এই আর্ট-কালচারের ভাই-বোনদের কথা মনে হয়েছে। দেখুন আর্ট-কালচারের মানুষদেও মানুষ কত ভালোবাসে এবং বিশ্বাস করে।
বঙ্গবন্ধুকে স্মৃতিচারন করে তিনি বলেন, আর্ট কালচার নিয়ে বঙ্গবন্ধুও আমাকে বলেছিলেন। আমি গিয়ে বঙ্গবন্ধুকে বললাম, আমি একটি ছবিতে অভিনয় করছি। তিনি আমাকে বললেন, আবার তুই রঙ মেখে ঢং শুরু করেছিস। বঙ্গবন্ধুর কথা শুনে আমার চোখে পানি চলে এসেছিল। তিনি আমার চোখের পানি দেখে মুচকি মুচকি হেসেছিলেন। তখন তিনি বলেছিলেন, তুই যেখানে আছিস, সেখানেই থাক। আর্ট-কালচারই হচ্ছে শক্তিশালি মাধ্যম, যেখানে রাজনীতির কথা বলা যায়, ক্ষুধার্ত মানুষের কথা বলা যায়। যদিও আমারও কোন ভুল হয়, তাহলে তোরা আর্ট-কালচারের মাধ মে তোরা আমার বিরুদ্ধেও কথা বলবি।
আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে বাঙালি সাংস্কৃতিক বন্ধন আয়োজিত আলোচনা সভায় আকবর হোসেন পাঠান এসব কথা বলেন।
আলোচনা সভার শুরুতেই বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনে ১ মিনিট দাঁড়িয়ে নিরবতা পালন করা হয়।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য কবি ড. মোহাম্মদ সামাদ বলেন, আমি যখন ক্লাস নাইনে পড়ি তখন আমি নিজে চোখে দেখেছি চাইনজ রাইফেল দিয়ে পাক হানাদার বাহিনী এবং রাজাকাররা আমাদের দেশের মানুষ ধরে নিয়ে হত্যা করছে। তখন বঙ্গবন্ধুকে প্রেফতার করা হয়েছিল।
নাট্যব্যক্তিত্ব এবং বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশন শিল্পী সংস্থার সভাপতি ড. ইনামুল হক বলেন, আজ আমাদের আনন্দের দিন। এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেছিলেন। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততোদিন এই দিনটি শ্রদ্ধাভরে স্মরন করবে। এখানে যারা আমরা উপস্থিত রয়েছি, তারা আমরা সবাই আপনজন। আমাদের সবাইকে এই স্বাধীনতার পক্ষের সরকারকে সহযোগিতা করে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালি করতে হবে।
সভায় বক্তারা স্মৃতিচারন করে বলেন, ১৯৭১ এর ২৫ মার্চ কালো রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে যায়। সেখানে সামরিক আদালতে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুদ- দেওয়া হয়। তখনও বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, আমাকে মৃত্যুদ- দাও, তাতে আমার কোন দুঃখ নেই, কিন্তু আমার মৃত্যুও পর আমার লাশটি যেন আমার বাংলাদেশের মাটিতে কবর দেওয়া হয়।  বক্তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের স্মৃতিচারন করেন।
সংগঠনের সাধারন সম্পাদক সাইফুল আজম বাশারের বাশারের সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সাবেক সাংসদ কবি কাজী রোজী, চিত্র নায়ক রিয়াজ, ফেরদৌস, চিত্র নায়িকা দিলারা, নাট্যব্যক্তিত্ব এসএম মহসিন, শহীদুল হক সাচ্চু, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দ সৈনিক সঙ্গীতজ্ঞ মনোরঞ্জন ঘোষাল, ইন্দ্রমোহন রাজবংশীসহ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিবর্গ।
এছাড়াও, আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর সভাপতি সালমা চৌধুরী,বঙ্গবন্ধু শিল্পী গোষ্ঠীর সভাপতি মাহবুব রিয়াজ, বঙ্গবন্ধু লেখক পরিষদের এস এম মঞ্জু, বাংলার মুখের সাধারন সম্পাদক সঞ্জীব দাস অপু, বাংলাদেশ টেলিভিশন লার্নার এসোসিয়েশনের সভাপতি আক্তারুজ্জামান খোকা, স্বাধীনতা সাংস্কৃতিক পরিষদের সভাপতি রূপক চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি দয়াল বেলাল শাহ, খান মিউজিক একাডেমির সভাপতি ইমন খান, আওয়ামী সাংস্কৃতিক জোটের (আসাজো) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কবি মোশারফ প্রমুখ।
নিউজটি শেয়ার করুন





সর্বস্বত্ব © ২০১৯ মাতৃভূমির খবর কর্তৃক সংরক্ষিত

Design & Developed BY ThemesBazar