ঢাকা ০৫:৫৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
জোয়ার ও বৃষ্টির পানিতে শরনখোলা উপজেলার রায়েন্দা বাজার প্লাবিত। ভাঙ্গা – যশোর – বেনাপোল মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীতকরন হলে দুরত্ব কমবেশি ৮৬ কি: মি: গজারিয়ায় ভবেরচর ইউনিয়নে জাতীয় শোক দিবস পালনে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত। মাদারীপুরের কালকিনিতে এক শিশুকে ধর্ষনের চেষ্টা,থানায় মামলা দায়ের টাঙ্গাইলে মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত রাঙ্গাবালীর জল কপাটের বেহাল দশা, দুশ্চিন্তায় কৃষকরা গজারিয়ার বালুয়াকান্দীতে অনুদানের চেক হস্তান্তর মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামী লীগের যৌথ বর্ধিত সভা ট্রাক উল্টে খাদে পড়ে গেল শরনখোলা উপজেলায় মতলব উত্তরে নতুন ভোটার ফরমে ইউপি সদস্যের স্বাক্ষর জাল করার অভিযোগ

প্রত্যেক নাগরিকেরই ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

মাতৃভূমির খবর ডেস্কঃ  প্রত্যেক নাগরিকেরই ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার রয়েছে। আমাদের বিভিন্ন পরিকল্পনায় ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার কথা রয়েছে। আমরা ন্যায়বিচার নিশ্চিত করব এমনটাই জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।আজ শনিবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলন-২০১৯ এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

আরো পড়ুন:  ফ্লোরিডায় নৌঘাঁটিতে হামলা বন্দুকধারীসহ নিহত ৪

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা চাই আমাদের দেশে গণতন্ত্র অব্যাহত থাকুক। বিচার বিভাগকে ধন্যবাদ জানাই, অগণতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতা দখলকে উচ্চ আদালত অবৈধ বলে ঘোষণা দিয়েছেন। এ সাহসী ভূমিকার জন্য উচ্চ আদালতের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

বিচার বিভাগের উন্নয়নে তার সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিচার বিভাগের উন্নয়নে আমাদের কাজ অব্যাহত রয়েছে। সারাদেশে জেলা ও  দায়রা জজ আদালতের উন্নয়নে কাজ করছি। ন্যায়বিচার যেন হয় তার জন্য যা যা করা দরকার আমরা তা করছি।

বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনে নারী বিচারক নিয়োগের বিষয়টি ছিল না উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরাই নারী বিচারক নিয়োগের ব্যবস্থা করেছি। একটা দেশ চলতে হলে নারী ও পুরুষের সমান অধিকার থাকতে হবে।

তিনি বলেন, প্রত্যেকটা জেলায় চিফ জুডিশিয়াল আদালত ভবন নির্মাণ করেছি। প্রতিটি জেলায়ই যেন বিচার কাজ সুষ্ঠুভাবে চলে তার জন্য আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি। বিচারকদের আবাসন সংকট ছিল। দুইজন বিচারক সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয়েছেন। আমরা বিচারকদের নিরাপত্তার জন্য ব্যবস্থা নিয়েছি।

বিচারকদের বেতনের বিষয়টি উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাজেটে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ দিয়েছি। বেতন কাঠামোও আলাদা করে দিয়েছি। অনেকগুলো ভাতা দিয়েছি। পৃথিবীর কোন দেশ এক সঙ্গে এত বেতন বাড়ায়নি। আমরা মোট ৩৩৪ ভাগ বেতন বৃদ্ধি করেছি। এর জন্য আমাদের কাছে কেউ দাবি করেনি। আমরা দেখে শুনেই এ বেতন বাড়িয়েছি। বিচারকদের জন্য কী কী প্রয়োজন এ বিষয়গুলো মাথায় রেখেই তাদের জন্য আবাসনের ব্যবস্থা করে দিয়েছি। এর আগে কেউ বিচারকদের নিরাপত্তার বিষয়টি খেয়াল করেনি। বিচারকদের নানাভাবে হয়রানি করা হতো। বিচার বিভাগে ই-জুডিশিয়াল সার্ভিস চালু করার বিষয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, সুপ্রিম কোর্টসহ ১৩টি জেলায় ডিজিটাল বোর্ড দেওয়া হয়েছে। আমরা আধুনিকায়নের জন্য কাজ করছি। আদালতে আসামি নেওয়ার পথে যেন ছিনতাই না হয় এর জন্য বিকল্প ব্যবস্থা করার চিন্তা করছি। আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই উন্নত, সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে। দেশকে জাতির জনকের স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা করতে চাই। আমরা প্রত্যেকটা প্রতিষ্ঠানকে উন্নত করতে চাই। আমরাই প্রথম জুডিশিয়াল ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন করেছি। বিচার বিভাগের জন্য আমাদের কর্তব্য আমরা করে যাব। আপনারা আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবেন।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

জোয়ার ও বৃষ্টির পানিতে শরনখোলা উপজেলার রায়েন্দা বাজার প্লাবিত।

প্রত্যেক নাগরিকেরই ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

আপডেট টাইম ০১:৩০:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯

মাতৃভূমির খবর ডেস্কঃ  প্রত্যেক নাগরিকেরই ন্যায়বিচার পাওয়ার অধিকার রয়েছে। আমাদের বিভিন্ন পরিকল্পনায় ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার কথা রয়েছে। আমরা ন্যায়বিচার নিশ্চিত করব এমনটাই জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।আজ শনিবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বিচার বিভাগীয় সম্মেলন-২০১৯ এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

আরো পড়ুন:  ফ্লোরিডায় নৌঘাঁটিতে হামলা বন্দুকধারীসহ নিহত ৪

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা চাই আমাদের দেশে গণতন্ত্র অব্যাহত থাকুক। বিচার বিভাগকে ধন্যবাদ জানাই, অগণতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতা দখলকে উচ্চ আদালত অবৈধ বলে ঘোষণা দিয়েছেন। এ সাহসী ভূমিকার জন্য উচ্চ আদালতের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

বিচার বিভাগের উন্নয়নে তার সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিচার বিভাগের উন্নয়নে আমাদের কাজ অব্যাহত রয়েছে। সারাদেশে জেলা ও  দায়রা জজ আদালতের উন্নয়নে কাজ করছি। ন্যায়বিচার যেন হয় তার জন্য যা যা করা দরকার আমরা তা করছি।

বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনে নারী বিচারক নিয়োগের বিষয়টি ছিল না উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরাই নারী বিচারক নিয়োগের ব্যবস্থা করেছি। একটা দেশ চলতে হলে নারী ও পুরুষের সমান অধিকার থাকতে হবে।

তিনি বলেন, প্রত্যেকটা জেলায় চিফ জুডিশিয়াল আদালত ভবন নির্মাণ করেছি। প্রতিটি জেলায়ই যেন বিচার কাজ সুষ্ঠুভাবে চলে তার জন্য আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি। বিচারকদের আবাসন সংকট ছিল। দুইজন বিচারক সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয়েছেন। আমরা বিচারকদের নিরাপত্তার জন্য ব্যবস্থা নিয়েছি।

বিচারকদের বেতনের বিষয়টি উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাজেটে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ দিয়েছি। বেতন কাঠামোও আলাদা করে দিয়েছি। অনেকগুলো ভাতা দিয়েছি। পৃথিবীর কোন দেশ এক সঙ্গে এত বেতন বাড়ায়নি। আমরা মোট ৩৩৪ ভাগ বেতন বৃদ্ধি করেছি। এর জন্য আমাদের কাছে কেউ দাবি করেনি। আমরা দেখে শুনেই এ বেতন বাড়িয়েছি। বিচারকদের জন্য কী কী প্রয়োজন এ বিষয়গুলো মাথায় রেখেই তাদের জন্য আবাসনের ব্যবস্থা করে দিয়েছি। এর আগে কেউ বিচারকদের নিরাপত্তার বিষয়টি খেয়াল করেনি। বিচারকদের নানাভাবে হয়রানি করা হতো। বিচার বিভাগে ই-জুডিশিয়াল সার্ভিস চালু করার বিষয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, সুপ্রিম কোর্টসহ ১৩টি জেলায় ডিজিটাল বোর্ড দেওয়া হয়েছে। আমরা আধুনিকায়নের জন্য কাজ করছি। আদালতে আসামি নেওয়ার পথে যেন ছিনতাই না হয় এর জন্য বিকল্প ব্যবস্থা করার চিন্তা করছি। আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই উন্নত, সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে। দেশকে জাতির জনকের স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা করতে চাই। আমরা প্রত্যেকটা প্রতিষ্ঠানকে উন্নত করতে চাই। আমরাই প্রথম জুডিশিয়াল ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন করেছি। বিচার বিভাগের জন্য আমাদের কর্তব্য আমরা করে যাব। আপনারা আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবেন।