ঢাকা ১১:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
জাকের ভাই নাটকে সাংবাদিক চরিত্রে এড. উত্তম *অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার্স‌‌‌ কল্যাণ সমিতির এজিএম অনুষ্ঠিত* মালদ্বীপের বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে প্রবাসীদের বর্ষবরণ ও ঈদ পৃর্নমিলন উদযাপন ঝড়ে লন্ডভন্ড নড়াইলের একটি মাদ্রাসা কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মজয়ন্তী উদযাপন কুসিক নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ পেলেন যারা সিলেটের বন‍্যার্তদের পাশে বঞ্চিত নারী ও শিশু অধিকার ফাউন্ডেশন টাঙ্গাইলের ঘাটাইল থানা আকস্মিক পরিদর্শনে পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার গজারিয়ায় মাদক, সন্ত্রাস,জঙ্গীবাদ ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ,প্রতিরোধে বিট পুলিশের সভা অনুষ্ঠিত।

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ

মাতৃভূমির খবর ডেস্কঃ   আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও জাতীয় সমাবেশ আজ। এ উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে- বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, কেক কাটা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং দরবার গ্রহণ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল কাজী কায়কোবাদ।প্রতিষ্ঠানটির গণসংযোগ কর্মকর্তা মুনমুন সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

এই বাহিনী প্রতিষ্ঠা লাভ করে ১৯৪৮ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি। তৎকালীন পূর্ববাংলা আইন পরিষদে আনসার অ্যাক্ট অনুমোদিত হলে ১৭ জুন ১৯৪৮ সালে তা কার্যকর হয়। তখন থেকে এ বাহিনীর প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সাময়িকভাবে ঢাকার শাহবাগে অনুষ্ঠিত হতো। ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধকালে দেশের সীমান্ত ফাঁড়িগুলোতে আনসারদের প্রতিরক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত করা হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকারের (মুজিবনগর) শপথ গ্রহণ শেষে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতিকে আনসার প্লাটুন কমান্ডার ইয়াদ আলীর নেতৃত্বে ১২ জন আনসার সদস্য গার্ড অব অনার প্রদান করে। স্বাধীনতা যুদ্ধকালে আনসার বাহিনীকে বিদ্রোহী আখ্যায়িত করে বিলুপ্ত করা হয়। প্রায় ৪০ হাজার রাইফেল নিয়ে আনসার সদস্যরা স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেয়। যুদ্ধে আনসার বাহিনীর ৯ কর্মকর্তা, ৪ কর্মচারী ও ৬৫৭ আনসারসহ মোট ৬৭০ জন শহীদ হন। এ বাহিনীর একজন বীরবিক্রম এবং দু`জন বীরপ্রতীক খেতাবে ভূষিত হন। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে ১৯৭৩ সাল থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত সাভারে আনসার বাহিনীর প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। ১৯৭৬ সালে গ্রাম প্রতিরক্ষা দল (ভিডিপি) ও ১৯৮০ সালে শহর প্রতিরক্ষা দলের (টিডিপি) সৃষ্টি হয়। পরে এ দুটি বাহিনী আনসার বাহিনীর সঙ্গে একীভূত হয়। ১৯৭৬ সালে গাজীপুরের সফিপুরে জাতীয় আনসার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (এনএটিসি) প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮৩ সালে এর নামকরণ হয় আনসার ট্রেনিং স্কুল। ১৯৮৬ সালে আনসার ট্রেনিং স্কুলকে আনসার একাডেমিতে উন্নীত করা হয়। ১৯৯৫ সালে এর নামকরণ হয় আনসার-ভিডিপি একাডেমি।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

জাকের ভাই নাটকে সাংবাদিক চরিত্রে এড. উত্তম

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ

আপডেট টাইম ০৫:২০:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৫ জানুয়ারী ২০১৯

মাতৃভূমির খবর ডেস্কঃ   আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও জাতীয় সমাবেশ আজ। এ উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে- বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, কেক কাটা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং দরবার গ্রহণ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল কাজী কায়কোবাদ।প্রতিষ্ঠানটির গণসংযোগ কর্মকর্তা মুনমুন সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

এই বাহিনী প্রতিষ্ঠা লাভ করে ১৯৪৮ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি। তৎকালীন পূর্ববাংলা আইন পরিষদে আনসার অ্যাক্ট অনুমোদিত হলে ১৭ জুন ১৯৪৮ সালে তা কার্যকর হয়। তখন থেকে এ বাহিনীর প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সাময়িকভাবে ঢাকার শাহবাগে অনুষ্ঠিত হতো। ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধকালে দেশের সীমান্ত ফাঁড়িগুলোতে আনসারদের প্রতিরক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত করা হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকারের (মুজিবনগর) শপথ গ্রহণ শেষে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতিকে আনসার প্লাটুন কমান্ডার ইয়াদ আলীর নেতৃত্বে ১২ জন আনসার সদস্য গার্ড অব অনার প্রদান করে। স্বাধীনতা যুদ্ধকালে আনসার বাহিনীকে বিদ্রোহী আখ্যায়িত করে বিলুপ্ত করা হয়। প্রায় ৪০ হাজার রাইফেল নিয়ে আনসার সদস্যরা স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেয়। যুদ্ধে আনসার বাহিনীর ৯ কর্মকর্তা, ৪ কর্মচারী ও ৬৫৭ আনসারসহ মোট ৬৭০ জন শহীদ হন। এ বাহিনীর একজন বীরবিক্রম এবং দু`জন বীরপ্রতীক খেতাবে ভূষিত হন। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে ১৯৭৩ সাল থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত সাভারে আনসার বাহিনীর প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। ১৯৭৬ সালে গ্রাম প্রতিরক্ষা দল (ভিডিপি) ও ১৯৮০ সালে শহর প্রতিরক্ষা দলের (টিডিপি) সৃষ্টি হয়। পরে এ দুটি বাহিনী আনসার বাহিনীর সঙ্গে একীভূত হয়। ১৯৭৬ সালে গাজীপুরের সফিপুরে জাতীয় আনসার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (এনএটিসি) প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮৩ সালে এর নামকরণ হয় আনসার ট্রেনিং স্কুল। ১৯৮৬ সালে আনসার ট্রেনিং স্কুলকে আনসার একাডেমিতে উন্নীত করা হয়। ১৯৯৫ সালে এর নামকরণ হয় আনসার-ভিডিপি একাডেমি।