ঢাকা ১২:০৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
রেকর্ড দরপতন মুদ্রার , ১ মার্কিন ডলার কিনতে হচ্ছে ২৫৫ পাকিস্তানি রুপিতে মাতৃত্বকালীন কার্ড প্রদানে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ,ইউপি সচিবসহ আটক দুই মতলব উত্তরে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জাতীয় ইমাম সম্মেলন অনুষ্ঠিত কুমিল্লা জেলা ক্রিকেট কমিটির সভাপতির পদ থেকে থেকে পদত্যাগ করেছেন সাইফুল আলম রনি কুলাউড়ায় ফাহিম স্মৃতি দ্বৈত নক আউট ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট-২০২৩, শুভ উদ্বোধনী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে পরিত্যাক্ত স্কুল ভবন থেকে ৬৮ রাউন্ড এলএমজি গুলি উদ্ধার। ফরিদগঞ্জে যাত্রা শুরু করেছে এক্স স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন অবিভাবক শূণ্যতায় অস্তিত্ব বিলিনের পথে ডাকাতিয়া রামপালে সুইডেনের দূতাবাসে পবিত্র কুরআন পোড়ানোর ঘটনায় প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত সারা দেশব্যাপী কেন্দ্রীয় ফারিয়ার ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন

আওয়ামী লীগ সরকার আসার আগে কারও হাতে মোবাইল ছিল না

ফাইল ছবি

মাতৃভূমির খবর ডেস্ক :   আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকারে আসার আগে কারও হাতে মোবাইল ফোন ছিল না। আমরা মোবাইল ফোন পৌঁছে দিয়েছি। গতকাল  শুক্রবার বিকালে রাজধানীর গুলশানের ইয়ুথ ক্লাব মাঠে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রত্যেকটা এলাকায় হাসপাতাল করে দিয়েছি। বেশি করে হাসপাতাল করে দিয়েছি মানুষ যাতে বেশি সেবা পায়। বস্তিবাসীদের কথা আমরা চিন্তা করেছি। তাদের জন্য স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করেছি। নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন নয়, দেশের মানুষের উন্নয়ন করাই আমার মূল লক্ষ্য। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে সেবা করার সুযোগ দিয়েছে বলেই মানুষের জীবনের আয়-রোজগার বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। শিক্ষার উন্নত ব্যবস্থা করে দিয়েছি। বহুমুখী শিক্ষার ব্যবস্থা করে দিয়েছি। যাতে বিদেশে গিয়ে ছেলেমেয়েরা চাকরি করতে পারে।আগে ঘন ঘন লোডশেডিং হতো। এখন আর হয় না। বিদ্যুৎ খাতকে বহুমুখী করে দিয়েছি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, একসময় বাংলাদেশকে খরা, দুর্ভিক্ষ, দুর্যোগ, অভাবের দেশ বলা হতো। যারা বিদেশে যেতেন তাদের এসব প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হতো। তবে সেই বদনাম আর নাই। আজকে আর কারও কাছে হাত পেতে আমাদের চলতে হয় না। বাংলাদেশ আজ ভিক্ষুকের দেশ না। নিজের পায়ে দাঁড়াতে শিখেছে।

এর আগে বিকাল পৌনে ৪টার দিকে প্রধানমন্ত্রী জনসভাস্থলে পৌঁছে প্রধান অতিথির আসন নেন। এদিকে নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে আয়োজিত এ জনসভায় দুপুরের পর থেকেই জড়ো হয়েছেন দলটির বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী। নির্বাচনী আমেজে খণ্ড খণ্ড মিছিল মিলেছে সভাস্থলে।

নৌকার প্রতিকৃতি নিয়ে, নেচে গেয়ে ইয়ুথ ক্লাব মাঠে জড়ো হন নেতাকর্মীরা। তাদের গায়ে লাল-সবুজের পোশাক বর্ণিল করে তুলেন জনসভাকে।

Tag :
জনপ্রিয় সংবাদ

রেকর্ড দরপতন মুদ্রার , ১ মার্কিন ডলার কিনতে হচ্ছে ২৫৫ পাকিস্তানি রুপিতে

আওয়ামী লীগ সরকার আসার আগে কারও হাতে মোবাইল ছিল না

আপডেট টাইম ০৬:০৬:০১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ ডিসেম্বর ২০১৮

মাতৃভূমির খবর ডেস্ক :   আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকারে আসার আগে কারও হাতে মোবাইল ফোন ছিল না। আমরা মোবাইল ফোন পৌঁছে দিয়েছি। গতকাল  শুক্রবার বিকালে রাজধানীর গুলশানের ইয়ুথ ক্লাব মাঠে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রত্যেকটা এলাকায় হাসপাতাল করে দিয়েছি। বেশি করে হাসপাতাল করে দিয়েছি মানুষ যাতে বেশি সেবা পায়। বস্তিবাসীদের কথা আমরা চিন্তা করেছি। তাদের জন্য স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করেছি। নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন নয়, দেশের মানুষের উন্নয়ন করাই আমার মূল লক্ষ্য। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে সেবা করার সুযোগ দিয়েছে বলেই মানুষের জীবনের আয়-রোজগার বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। শিক্ষার উন্নত ব্যবস্থা করে দিয়েছি। বহুমুখী শিক্ষার ব্যবস্থা করে দিয়েছি। যাতে বিদেশে গিয়ে ছেলেমেয়েরা চাকরি করতে পারে।আগে ঘন ঘন লোডশেডিং হতো। এখন আর হয় না। বিদ্যুৎ খাতকে বহুমুখী করে দিয়েছি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, একসময় বাংলাদেশকে খরা, দুর্ভিক্ষ, দুর্যোগ, অভাবের দেশ বলা হতো। যারা বিদেশে যেতেন তাদের এসব প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হতো। তবে সেই বদনাম আর নাই। আজকে আর কারও কাছে হাত পেতে আমাদের চলতে হয় না। বাংলাদেশ আজ ভিক্ষুকের দেশ না। নিজের পায়ে দাঁড়াতে শিখেছে।

এর আগে বিকাল পৌনে ৪টার দিকে প্রধানমন্ত্রী জনসভাস্থলে পৌঁছে প্রধান অতিথির আসন নেন। এদিকে নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে আয়োজিত এ জনসভায় দুপুরের পর থেকেই জড়ো হয়েছেন দলটির বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী। নির্বাচনী আমেজে খণ্ড খণ্ড মিছিল মিলেছে সভাস্থলে।

নৌকার প্রতিকৃতি নিয়ে, নেচে গেয়ে ইয়ুথ ক্লাব মাঠে জড়ো হন নেতাকর্মীরা। তাদের গায়ে লাল-সবুজের পোশাক বর্ণিল করে তুলেন জনসভাকে।